Sharing is caring!

অটোরিক্সা ছিনতাইকালে শিবগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগের

সহ-সভাপতিকে গণধোলাই : তদন্ত কমিটি গঠন

♦ শিবগঞ্জ প্রতিনিধি

জেলার শিবগঞ্জে অটোরিক্সা ছিনতাইয়ের অভিযোগে শিবগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি মো. নবীনূর রহমানকে গণধোলাই দিয়েছে এলাকাবাসী। এসময় এঘটনার সাথে জড়িত আরো ২জন পালিয়ে যায়। শুক্রবার সকালে শিবগঞ্জ উপজেলার চককীর্ত্তি ইউনিয়নের কৃষ্ণচন্দ্রপুর বাজার এঘটনা ঘটে। উপজেলা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি মো. নবীনূর রহমান চককীর্ত্তি ইউনিয়নের কৃষ্ণচন্দ্রপুর গ্রামের মজিবুর রহমানের ছেলে। পলাতক দু’জন নাধড়া গ্রামের শাহজাহান আলীর ছেলে মো. শাহাদাৎ আলী ও পীরাটন টোকনা গ্রামের কালামের ছেলে সারওয়ার। স্থানীয়রা জানায়, শুক্রবার ভোর রাতে রাণীনগর তেরিচক গ্রাম থেকে ছেড়ে আসা একটি অটোরিক্সা কৃষ্ণচন্দ্রপুর বাজারের পৌছালে অটো চালককে নবীনূর রহমান ও তার সঙ্গীরা অটোরিক্সা ছিনতাইয়ের চেষ্টা করে এবং অটোচালকের মোবাইল ফোন ছিনতাই করে পালিয়ে যায়। ছিনতাইকালে অটো চালক চিৎকারে এগিয়ে আসে এলাকাবাসী। ঘটনাস্থলেই তাকে আটক করা হয়। আটকের পর স্থানীয় আওয়ামীলীগ ও অটোরিক্সা সমিতির নেতাদের খবর দেওয়া হলে বিক্ষুব্ধ জনতা ছিনতাইকারী ছাত্রলীগ নেতা নবীনূরকে গণধোলাই দিয়ে পরিবারের জিম্মায় দেয়। এব্যাপারে শিবগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আশিফ আহসান জানান, উপরোক্ত ঘটনার বিষয়টি জেনেছি এবং জেলা ও কেন্দ্রীয় পর্যায়ের নেতাদের সাথে কথা বলেছি। কারও ব্যক্তিগত অপরাধের দায়ভার কখনও আমাদের প্রাণের সংগঠন গ্রহণ করেনি ও আগামীতেও করবেনা। এক প্রশ্নের জবাবে আশিফ আহসান বলেন, ছিনতাইয়ের অভিযোগে অভিযুক্ত নেতা নবীনূরের বিরুদ্ধে সাংগঠনিকভাবে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে এবং তাকে বহিষ্কার করা হবে। এদিকে, ধাইনগর ইউনিয়নের রাণীনগর তেরিচক গ্রামের অটোরিক্সাচালক মৃত মংলুর মন্ডলের ছেলে বিপ্লব আলী জানান, আমরা জরুরি কাজের জন্য নাচোলের উদ্দেশ্যে বাড়ি থেকে অটোরিক্সা নিয়ে ভোর রাত আনুমানিক ৩টার দিকে বের হই। অটোরিক্সা নিয়ে কৃষ্ণচন্দ্রপুরবাজারে পৌছালে নবীনূর রহমান ও তার আরো ২ সঙ্গী ছাত্রলীগের পরিচয় দিয়ে আমাকে ভয় দেখিয়ে শিবগঞ্জ নিয়ে যেতে যায়। আমি যেতে রাজি না হওয়ায় আমার অটোরিক্সা ছিনতাইয়ের কথা বলে। কিন্ত অটোরিক্সা ছিনতাই করতে না পারায়, তারা আমার মোবাইল ছিনতাই করে পালিয়ে যায়। পরে আমার আত্মীয় ও অটো সমিতির সভাপতিকে সংবাদ দিয়ে রক্ষা পাই। এদিকে, শুক্রবার দুপুরে স্থানীয় আওয়ামীলীগের নেতৃবৃন্দ ও অটো সমিতির নেতারা বিষয়টি মিমাংসা করে দেয়। এসময় উপস্থিত ছিলেন, শিবগঞ্জ উপজেলা অটো সমিতি সহ-সভাপতি মো. সৈবুর রহমান, চককীত্তি ইউনিয়ন আওয়ামীলগের সহ-সভাপতি আশরাফুল ইসলাম, সাবেক সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ইউসুফ আলী, আওয়ামীলীগ নেতা আবুল কালাম আজাদসহ গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন। এদিকে, শুক্রবার ভোরে অটোরিক্সা ছিনতায়ের চেষ্টার অভিযোগে অভিযুক্ত সেই ছাত্রলীগ নেতার ঘটনা তদন্ত আরম্ভ করেছে জেলা ছাত্রলীগ। শুক্রবার রাতেই জেলা ছাত্রলীগ ৪ সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করে। চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের দপ্তর সম্পাদক আজিম হোসেন তরুন স্বাক্ষরিত এ তদন্ত কমিটির সদস্যরা হলেন, জেলা ছাত্রলীগের ২জন সহসভাপতি ইমতিয়াজ মাশরুর কুইক ও কাউসার আলী এবং জেলা ছাত্রলীগের ২জন যুগ্ম সাধারন সম্পাদক মোঃ আব্দুল আওয়াল তুষার ও হাসিব রায়হান ইমন। শনিবার সকালে তদন্ত কমিটির সদস্যরা ঘটনাস্থল চককীত্তির কৃষ্ণচন্দ্রপুর বাজার এলাকা পরিদর্শন করেছেন। তবে, অভিযুক্ত শিবগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগের সহসভাপতি নবীনূর রহমান নিজেকে নির্দোষ দাবী করে আওয়ামীলীগের একটি বিদ্রোহী অংশ তার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করে তাকে ফাঁসাতে এ ধরনের নাটক সাজিয়েছে বলে জানান। অন্যদিকে, শিবগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদক আসিফ আহসান জানান, তদন্ত কমিটি চককীর্ত্তিতে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। যদি ঘটনার সত্যতা প্রমানিত হয় তাহলে, ব্যক্তির অপকর্মের দায়ভার দল নেবেনা। আর তদন্তে ঘটনাটি সাজানো প্রমানিত হলে এর সাথে যারা জড়িত তাদের ব্যাপারে যথাযথ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

আপনার মতামত লিখুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *