Sharing is caring!

অশ্লীল ছবির সাইট বন্ধে স্বস্তি প্রকাশ

দিন দিন ইন্টারনেট যত সহজলভ্য হয়ে উঠছে ততই যেনো বিপদজনক হয়ে উঠছে ইন্টারনেট। ইন্টারনেটের ব্যাপক প্রসারের বদৌলতে অশ্লীল এবং নোংরা ছবির প্রতি আসক্তি ক্রমশই বেড়ে যাচ্ছে। অশ্লীল ছবির আসক্তির কুপ্রভাব পড়তে শুরু করেছে সমাজে।

এরই পরিপ্রেক্ষিতে উক্ত অবস্থা থেকে পরিত্রাণের লক্ষ্যে সকলের জন্য নিরাপদ ইন্টারনেট ব্যবহার নিশ্চিত করতে এবং অশ্লীল ছবির সামাজিক অবক্ষয় থেকে সমাজকে রক্ষা করতে সম্প্রতি কয়েক দফায় ৫ হাজারেরও বেশি অশ্লীল ও নোংরা ছবির সাইট বন্ধ করে দিয়েছে বর্তমান সরকার। ইতোমধ্যে এর ইতিবাচক প্রভাব পড়তে শুরু করেছে সমাজে।

জানা গেছে, অনলাইন দুনিয়ায় দুই কোটির বেশি অশ্লীল ছবির সাইট ও লিংক রয়েছে। ৫ হাজারের বেশি সাইট বন্ধ করায় এরই মধ্যে বাংলাদেশ থেকে এগুলো দেখার হার কমেছে বলে জানা গেছে।

এ বিষয়ে ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার বলেন, ‘এটি চলমান প্রক্রিয়া, আমরা থেমে থাকবো না। আমরা শুধু অশ্লীল ছবির সাইট বন্ধ করিনি, অনলাইনের জুয়ার অনেক সাইটও বন্ধ করেছি। আমরা যেকোনো মূল্যে ইন্টারনেট সেবাকে নিরাপদ রাখতে চাই। শিশুদের জন্য নিরাপদ ইন্টারনেটের কোনও বিকল্প নেই।’ তিনি আরও বলেন, ‘ইন্টারনেট নিরাপদ রাখতে আমরা প্রয়োজনে কঠোর অবস্থানে যাবো।’

অশ্লীল ছবি বন্ধে সরকারের এমন দৃঢ় পদক্ষেপে অভিভাবকদের মনে ফিরছে স্বস্তি। নতুন প্রজন্মকে নোংরামির বিষাক্ত ছোবল থেকে রক্ষা করার এ পদক্ষেপ প্রশংসিত হচ্ছে সবমহলে।

অশ্লীল ছবির সাইট বন্ধের বিষয়ে এক বেসরকারি ব্যাংক কর্মকর্তা  বলেন, ‘আমার ছেলে দশম শ্রেণিতে ইংরেজি ভার্সনে পড়ালেখা করে। ছেলে বড় হচ্ছে। সে মোবাইলও ব্যবহার করে। এখন ইন্টারনেট খুবই সহজলভ্য হওয়ায় উঠতি বয়সী এসব সন্তানদের নিয়ে দুশ্চিন্তা বাড়ে। তাই সরকারের এমন উদ্যোগ আরও আগেই নেয়া উচিত ছিল। তবে দেরিতে হলেও বিষয়টি নজরে এসেছে। ব্যক্তিগতভাবে আমি সরকারকে ধন্যবাদ জানাই।’

রাজধানীর মোহাম্মদপুর এলাকার এক ব্যবসায়ী বলেন, ‘কোনো বাবা-মা’ই আসলে চায় না তার সন্তান বিপথে যাক। কিন্তু বর্তমানে যে যুগ এসেছে, সবার হাতে স্মার্ট ফোন, ইন্টারনেট। প্রতিদিন ইন্টারনেট কেন্দ্রিক যে অশ্লীল ঘটনাগুলো যখন চোখে পড়ে তখন ভয় হয়। মনে হয় আমার ছেলেটা অথবা মেয়েটা এসবের সঙ্গে জড়িয়ে পড়েনি তো! সরকার যে উদ্যোগ নিয়েছে তা সত্যিই প্রশংসার দাবি রাখে। সরকার এমন অভিযান যদি অব্যাহত রাখে তবে দীর্ঘমেয়াদী স্বস্তি পাবে দেশের মানুষ।

‘নিরাপদ ইন্টারনেট’ ক্যাম্পেইনের আওতায় অশ্লীল ও নোংরা ছবির বিরুদ্ধে চলমান অভিযান বন্ধ না করে তা অব্যাহত রাখার পরামর্শ দিয়েছেন অভিভাবকরা।

আপনার মতামত লিখুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *