Sharing is caring!

কমিউনিটি ক্লিনিককে আরো স্বাস্থ্যবান্ধব

করতে উদ্যোগ গ্রহণ 

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার যোগোপযোগী চিন্তার ফসল  কমিউনিটি ক্লিনিক দেশে গ্রাম পর্যায়ে স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে। ‘শেখ হাসিনার অবদান কমিউনিটি ক্লিনিক বাঁচায় প্রাণ’ স্লোগানকে সামনে রেখে সারা দেশের কমিউনিটি ক্লিনিকগুলো দরিদ্র ও সুবিধাবঞ্চিত গ্রামীণ মানুষকে সমন্বিত স্বাস্থ্যসেবা, পরিবার-পরিকল্পনা সেবা ও পুষ্টিসেবা দিয়ে যাচ্ছে।  স্বাস্থ্য সহকারীরা তাঁদের দক্ষতা ও অভিজ্ঞতার আলোকে কমিউনিটি ক্লিনিকে সেবা প্রদান করছেন। তাঁরা দেশের তৃণমূল পর্যায়ে দরিদ্র মানুষের কাছে স্বাস্থ্যসেবা পৌঁছে দিচ্ছেন। এবার দেশের কমিউনিটি ক্লিনিকগুলোকে আরো স্বাস্থ্যবান্ধব এবং সেবার মান বাড়াতে কার্যকরী উদ্যোগ গ্রহণ করেছে বর্তমান সরকার।

কমিউনিটি বেজড হেলথ কেয়ার (সিবিএইচসি) অপারেশন প্ল্যানে কমিউনিটি ক্লিনিককেন্দ্রিক বেশ কিছু নতুন উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। কার্যক্রম শুরু করেছে ‘কমিউনিটি ক্লিনিক স্বাস্থ্য সহায়তা ট্রাস্ট’। এই ট্রাস্টে কমিউনিটি হেলথ প্রোভাইডরদের (সিএইচসিপি) কর্মজীবন নিশ্চিত করা হয়েছে। হেলথ প্রোভাইডররা দেশে প্রচলিত অন্যান্য সংবিধিবদ্ধ সংস্থায় কর্মরত কর্মচারীদের ন্যায় তাদের স্থায়ীকরণ, বেতন বৃদ্ধি, পদোন্নতির সুযোগ, গ্র্যাচুইটি ও অবসরভাতাসহ অন্যান্য সুযোগ সুবিধা প্রাপ্য হবেন। এতে কর্মচারীদের মধ্যে কর্মজীবনের অনিশ্চয়তা নিয়ে বিদ্যমান অসন্তোষ দূর হবে। আর নতুন পরিকল্পনায় কার্যক্রমসমূহের মধ্যে রয়েছে জনবল বৃদ্ধি, নতুন কমিউনিটি ক্লিনিক নির্মাণ ও জরাজীর্ণ সিসি মেরামত করা। জনগণের কার্যকর অংশগ্রহণ নিশ্চিতকরণ, কার্যকর রেফারেল ব্যবস্থা নিশ্চিতকরণ, কমিউনিটি ক্লিনিকের টেকসই প্রাতিষ্ঠানিকীকরণ ও উপজেলা স্বাস্থ্য ব্যবস্থা জোরদার করা হবে। এছাড়াও দেশের সব কমিউনিটি ক্লিনিকে অন্তঃসত্ত্বা মহিলাদের জন্য ‘স্বাভাবিক ডেলিভারি ব্যবস্থা সম্প্রসারণ করতে যাচ্ছে সরকার। বর্তমানে নতুন আঙ্গিকে তিন কক্ষের (স্বাভাবিক প্রসবকক্ষসহ) কমিউনিটি ক্লিনিক নির্মিত হচ্ছে। পরে ক্লিনিক নতুন মডেল অনুযায়ী নির্মিত হবে।

কমিউনিটি ক্লিনিকের বিভিন্ন কার্যক্রম, অগ্রগতি ও ভবিষ্যত পরিকল্পনা নিয়ে স্বাস্থ্য, জনসংখ্যা ও পুষ্টি খাত উন্নয়ন কর্মসূচীর আওতায় কমিউনিটি বেজড হেলথ কেয়ার (সিবিএইচসি) অপারেশন প্ল্যানের লাইন ডিরেক্টর ডাঃ আবুল হাশেম খান জানান, বর্তমানে কমিউনিটি ক্লিনিক কার্যক্রম পরিচালনার লক্ষ্যে চতুর্থ স্বাস্থ্য, জনসংখ্যা ও পুষ্টি খাত কর্মসূচীতে কমিউনিটি বেজড হেলথ কেয়ার (সিবিএইচসি) অপারেশনাল প্ল্যান অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। বিদ্যমান কিছু সমস্যা সমাধানে চতুর্থ স্বাস্থ্য, জনসংখ্যা ও পুষ্টিখাত সেক্টর উন্নয়ন কর্মসূচীর আওতায় সিবিএইচসি অপারেশন প্ল্যানে কমিউনিটি ক্লিনিককেন্দ্রিক বিভিন্ন কার্যক্রম অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে।

ডাঃ আবুল হাশেম খান আরো  জানান, বর্তমানে প্রতিদিন প্রতিটি কমিউনিটি ক্লিনিকে গড়ে ৩৮ জন সেবাগ্রহীতা আসছেন। প্রাথমিক স্বাস্থ্যসেবার পাশাপাশি কিছু কমিউনিটি ক্লিনিকে গর্ভবতী মায়েদের স্বাভাবিক ডেলিভারি হচ্ছে। এ পর্যন্ত প্রায় ৩০ হাজারের বেশি স্বাভাবিক ডেলিভারি হয়েছে।

প্রাথমিক স্বাস্থ্যসেবায় বিশ্বের মডেল হয়ে দাঁড়িয়েছে বাংলাদেশের কমিউনিটি হেলথ কেয়ার প্রকল্প। ক্লিনিকের সুফল ভোগ করছে সাধারণ মানুষ। বাড়ির পাশেই বিনামূল্যে মিলছে স্বাস্থ্যসেবা। কমিউনিটি ক্লিনিক বর্তমানে দেশের স্বাস্থ্যসেবার অবিচ্ছেদ্য অংশ হয়ে দাঁড়িয়েছে। এটি জনগণ ও সরকারের যৌথ উদ্যোগে বাস্তবায়িত একটি কার্যক্রম। কমিউনিটি ক্লিনিকের সেবা কার্যক্রম আরও গতিশীল, মানসম্মত ও স্থায়িত্ব সুনিশ্চিতের লক্ষ্যেই মূলত ‘কমিউনিটি ক্লিনিক স্বাস্থ্য সহায়তা ট্রাস্ট ’ গঠন করা হয়েছে।

আপনার মতামত লিখুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *