Sharing is caring!

`খাদ্য উৎপাদনে বাংলাদেশ এখন বিশ্বের বিস্ময়`

খাদ্য উৎপাদনে নীরব বিপ্লব বাংলাদেশকে বিশ্বমঞ্চে ঈর্ষণীয় পর্যায়ে উন্নীত করেছে। কৃষিজমি কমতে থাকা, জনসংখ্যা বৃদ্ধিসহ জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে বন্যা, খরা, লবণাক্ততা ও বৈরী প্রকৃতিতেও খাদ্যশস্য উৎপাদনে বাংলাদেশ এখন বিশ্বে উদাহরণ।

জাতিসংঘের খাদ্য ও কৃষি সংস্থার (এফএও) তথ্যানুযায়ী, সবজি ও মাছ উৎপাদনে বাংলাদেশ এখন বিশ্বে তৃতীয়। ধান ও আলু উৎপাদনে যথাক্রমে চতুর্থ ও সপ্তম অবস্থানে রয়েছে বাংলাদেশ। এছাড়া বন্যা, খরা, লবণাক্ততা ও দুর্যোগসহিষ্ণু শস্যের জাত উদ্ভাবনেও শীর্ষে বাংলাদেশের নাম। স্বাধীনতার পর থেকে বাংলাদেশে ধানের উৎপাদন তিন গুণেরও বেশি, গম দ্বিগুণ, সবজি পাঁচ গুণ এবং ভুট্টার উৎপাদন বেড়েছে দশ গুণ।
দুই যুগ আগেও দেশের অর্ধেক এলাকায় একটি ও বাকি এলাকায় দুটি ফসল হতো। বর্তমানে দেশে বছরে গড়ে দুটি ফসল হচ্ছে। সরকারের যুগোপযোগী পরিকল্পনা, পরিশ্রমী কৃষক এবং মেধাবী কৃষিবিজ্ঞানী ও সম্প্রসারণবিদদের যৌথ প্রয়াসেই এ সাফল্য। আর এভাবেই প্রধান খাদ্যশস্যের উৎপাদন বাড়ানোর ক্ষেত্রে বিশ্বের শীর্ষস্থানীয় দেশের তালিকায় উঠে এসেছে বাংলাদেশ।

খাদ্য উৎপাদনে বাংলাদেশের সাফল্যকে বিশ্বের জন্য অনুকরণীয় উল্লেখ করে অর্থনীতিবিদ বিশেষজ্ঞগণ জানান, বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংস্থার গবেষণা পর্যালোচনা করলে এটা স্পষ্ট যে, বাংলাদেশ এখন খাদ্য উৎপাদনে বিশ্বের জন্য উদাহরণ।

বিশেষজ্ঞগণ আরো জানান, বাংলাদেশে কৃষির প্রচুর সম্ভাবনা রয়ে গেছে। সেসব সম্ভাবনা ব্যবহার করা প্রয়োজন। কৃষিকে আধুনিকায়ন করতে হবে। একরপ্রতি উৎপাদন আরও বাড়াতে হবে। ব্যবহার করতে হবে উন্নত প্রযুক্তি। শুধু কৃষি উৎপাদন বাড়ানোর উদ্যোগ নিলেই চলবে না, কৃষিপণ্যের ন্যায্য দাম নিশ্চিত করতে হবে। কৃষককে ভর্তুকিসহ উন্নত সার ও বীজের নিশ্চয়তা দিতে হবে। এজন্য প্রয়োজন দেশে কৃষিভিত্তিক শিল্পের ওপর জোর দেয়া।

প্রাকৃতিক উৎসের মাছে বাংলাদেশ বিশ্বে তৃতীয় : প্রাকৃতিক উৎস থেকে মাছ উৎপাদনে বাংলাদেশ বর্তমানে বিশ্বে তৃতীয়। জাতিসংঘের খাদ্য ও কৃষিবিষয়ক সংস্থা এফএও প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে। চীন ও ভারত যথাক্রমে এক ও দুই নম্বর অবস্থানে আছে। দুই বছর আগে প্রাকৃতিক উৎসের মাছ উৎপাদনে বাংলাদেশের অবস্থান ছিল পঞ্চম। দ্য স্টেট অব ফিশ অ্যান্ড অ্যাকুয়াকালচার-২০১৮ শীর্ষক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে। এতে দেখা যায়, চাষের ও প্রাকৃতিক উৎসের মাছ মিলিয়ে বাংলাদেশের অবস্থান এখন চতুর্থ। চার বছর ধরে বাংলাদেশ এ অবস্থানটি ধরে রেখেছে। আর শুধু চাষের মাছের হিসাবে বাংলাদেশ পঞ্চম অবস্থানে রয়েছে।

সবজি উৎপাদনে তৃতীয় : দেশে রীতিমতো সবজি বিপ্লব ঘটে গেছে গত এক যুগে। জাতিসংঘের কৃষি ও খাদ্য সংস্থার তথ্যমতে, সবজি উৎপাদনে বাংলাদেশ এখন বিশ্বে তৃতীয়। এক সময় দেশের মধ্য ও উত্তরাঞ্চল এবং দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের যশোরেই কেবল সবজির চাষ হতো। এখন দেশের প্রায় সব এলাকায় সারা বছরই সবজির চাষ হচ্ছে।

ধান উৎপাদনে বিশ্বে চতুর্থ : আমন, আউশ ও বোরো মৌসুমে ধানের বাম্পার ফলনে বছরে প্রায় সাড়ে তিন কোটি টন উৎপাদনের রেকর্ড গড়েছে বাংলাদেশ। বিশ্বে গড় উৎপাদনশীলতা প্রায় তিন টন। আর বাংলাদেশে তা ৪ দশমিক ১৫ টন। এফএও’র তথ্য অনুযায়ী, ২০১৮ সালে বাংলাদেশে প্রায় ৩ কোটি ৫৩ লাখ টন ধান উৎপাদন হয়েছে, যা বিশ্বে চতুর্থ।

আলু উৎপাদন বিশ্বে সপ্তম : এক দশক আগেও দেশে আলুর উৎপাদন ছিল অর্ধ লাখ টনের নিচে। এখন তা প্রায় এক কোটি টনের কাছাকাছি। এ সাফল্য বাংলাদেশকে এনে দিয়েছে আলু উৎপাদনকারী শীর্ষ দশ দেশের কাতারে। স্বীকৃতিটি দিয়েছে জাতিসংঘের খাদ্য ও কৃষি সংস্থা (এফএও)। সংস্থাটির তথ্য অনুয়ায়ী, ৮৩ লাখ টন আলু উৎপাদন নিয়ে বাংলাদেশ বিশ্বে সপ্তম স্থানে অবস্থান করছে।

আপনার মতামত লিখুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *