Sharing is caring!

গোঁসাইবাড়ী মাদ্রাসার সাবেক সুপার হাবিবুরসহ

১১জনের বিরুদ্ধে মামলা : আদালতের শোকজ

♦ স্টাফ রিপোর্টার

চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার শিবগঞ্জ উপজেলার ধাইনগর ইউনিয়নের গোঁসাইবাড়ী দাখিল মাদ্রাসার দূর্ণীতিবাজ ও অনিয়মের হোতা, অর্থ লুটপাটকারী সাবেক সুপার মো. হাবিবুর রহমানসহ ১১ জনের বিরুদ্ধে শিবগঞ্জ সিনিয়র সহকারী জজ আদালতে মামলা দায়ের হয়েছে। মামলা নম্বর-১৮৯/১৯ অঃ প্রঃ, তারিখ-২৭-১১-২০১৯। ২৭ নভেম্বর হওয়া মামলার শুনানী শেষে সাবেক সুপার মো. হাবিবুর রহমানসহ ১১ জনের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া এবং অস্থায়ী ও অন্তর্বতীকালিন নিষেধাজ্ঞা চেয়ে বাদীগণের আবেদনে আদালত ৫দিনের মধ্যে কারণ দর্শানোর আদেশ দিয়েছেন বলে আদালত ও বাদীর আইনজীবী এ্যাড. সৈয়দ তৌহিদুজ্জামান সুত্রে জানা গেছে। মামলার বাদী সংশ্লিষ্ট মাদ্রাসার জমি দাতা এলাকার পোলাডাঙ্গা গ্রামের মৃত আব্দুল বারির ছেলে মো. সেরাজুল ইসলাম। গোঁসাইবাড়ী গ্রামের অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক মাদ্রাসার স্থাপিত উদ্যোক্তা ও সাবেক বিদ্যোৎসাহী হাজী এসারুদ্দিনের ছেলে মো. মাহাতাবউদ্দিন এবং একই এলাকার সন্তান ও মাদ্রাসার সাবেক অভিভাবক সদস্য মৃত সোলেমান মন্ডলের ছেলে মো. গোলাম মোস্তফা। এই মামলার বিবাদীরা হচ্ছেন, গোঁসাইবাড়ী দাখিল মাদ্রাসার সভাপতি ড. মো. সাদিরুল ইসলাম, মাদ্রাসার সাবেক সুপার মো. হাবিবুর রহমান, মাদ্রাসার সহ-সুপার আব্দুল মতিন, মাদ্রাসা পরিচালনা পর্ষদের সদস্য মো. একরামুল হক, মো. মোশফিকুর রহমান, মো. শামীম আলী, মো. আজিজুর রহমান, মো. তরিকুল ইসলাম, শিক্ষক প্রতিনিধি মো. নাইমুল হক ও মো. মনিরুল ইসলাম, মাদ্রাসার বিদ্যোৎসাহী সদস্য আবু মো. এনামুল হক। এদিকে, শিবগঞ্জ উপজেলার ধাইনগর ইউনিয়নের গোঁসাইবাড়ী দাখিল মাদ্রাসার দূর্ণীতিবাজ ও অনিয়মের হোতা, অর্থ লুটপাটকারী সাবেক সুপার মো. হাবিবুর রহমান বর্তমানে জেলার গোমস্তাপুর উপজেলার বালুগ্রাম আলিম মাদ্রাসায় অধ্যক্ষ পদে নিয়োগ পেয়েছেন বলে খবর পাওয়া গেছে। গত ১৭ নভেম্বর/১৯ বালুগ্রাম আলিম মাদ্রাসায় অধ্যক্ষ পদে নিয়োগ নিলেও এই সুপার মো. হাবিবুর রহমান গোঁসাইবাড়ী দাখিল মাদ্রাসার হিসাব-নিকাশ, তাঁর বিরুদ্ধে হওয়া দূর্ণীতি-অনিয়মের কোন জবাবদীহি না করেই এবং তাঁর পছন্দমত করা পরিচালনা পর্ষদের কাছে পদত্যাগপত্র জমা দিয়েই অন্য প্রতিষ্ঠানে যোগদান করে বহাল তবিয়তে নতুন কর্মস্থলে কাজ করছেন। এতে এলাকাবাসী সংশ্লিষ্ট উর্ধ্বতন শিক্ষা কর্তৃপক্ষের ভাবমূর্তি নিয়ে নানা প্রশ্ন তুলেছেন। উল্লেখ্য, গোঁসাইবাড়ী দাখিল মাদ্রাসার সেই দূর্ণীতি ও অনিয়মের হোতা সুপার (সাবেক) মো. হাবিবুর রহমান গোসাইবাড়ী মাদ্রাসার আর্থিক ক্ষয়ক্ষতি ও লুটপাট করে অন্য মাদ্রাসায় নিয়োগ নিয়ে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে পার পেয়ে যাবেন, এটা সভ্য সমাজে চলতে পারেনা বলে নানা অনিয়ম, দূর্ণীতি, স্বেচ্ছাচারিতা, ঘুষ লেনদেন, জমি বিক্রি, প্রতিষ্ঠানের আর্থিক হিসাব-নিকাস না দেয়া এই সুপারের তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের আবহান জানিয়েছেন গোঁসাইবাড়ী দাখিল মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠাকারীরা, এলাকার শিক্ষানুরাগী ও সাধারণ মানুষ। গত ২২ অক্টোবর ও ৯ নভেম্বর/১৯ এসব দূর্ণীতি-অনিয়মের বিষয় তুলে ধরে গোঁসাইবাড়ী দাখিল মাদ্রাসার দূর্ণীতি ও অনিয়মের হোতা সুপার মো. হাবিবুর রহমানের প্রতিবেদন প্রকাশিত হয় ‘দৈনিক চাঁপাই দর্পণ’ পত্রিকাসহ বিভিন্ন গণমাধ্যমে।

আপনার মতামত লিখুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *