Sharing is caring!

গোমস্তাপুরে চাঁদা না দেয়ায় সরকারী কাজ বন্ধ করেছে

ইউপি সদস্যসহ বখাটেরা

♦ স্টাফ রিপোর্টার 

চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার গোমস্তাপুর উপজেলার রাধানগর ইউনিয়নের বেলডাঙ্গা এলাকায় ইউপি সদস্য মো. সবুর ও স্থানীয় একটি অবৈধ ক্লাবের সদস্যরা চাঁদা না দেয়ায় সরকারী কাজ বন্ধ করে দিয়েছে ইউপি সদস্যসহ বখাটেরা। ঠিকাদারের মিস্ত্রি ও লেবারদের ভয়ভীতি ও নানাভাবে হুমকী অব্যহত রেখেছে ওই সদস্য ও বখাটেরা। এঘটনায় কাজের ঠিকাদার মো. বাবুল হোসেন গোমস্তাপুর থানায় একটি লিখিত অভিযোগও করেছেন। ঠিকাদারের লিখিত অভিযোগে জানা গেছে, চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার গোমস্তাপুর উপজেলার রাধানগর ইউনিয়নের বেলডাঙ্গা এলাকায় “গ্রামীন মাটির রাস্তাসমূহ টেকসই করণের লক্ষে হেরিং বোন বন্ড (এইচবিবি) করণ” শীর্ষক প্রকল্পের ‘যাতাহারা বাজার রাধানগর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় পাকা রাস্তা হতে বেলডাঙ্গা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় পর্যন্ত এইচবিবি করণ’ সরকারী কাজটি গত ১০ জানুয়ারী শুরু করা হয়। কাজটি প্রায় শেষ পর্যায়ে। গত ৫ মার্চ বৃহস্পতিবার গোমস্তাপুর উপজেলার রাধানগর ইউনিয়নের ৮নম্বর ইউপি সদস্য মো. সবুর এর নির্দেশনায় এলাকার বখাটে অবৈধ ক্লাবের নাম করে মো. আব্দুল লতিবের ছেলে নাজমুল হোসেন (৩২), আব্দুস সাত্তারের ছেলে তশিকুল ইসলাম (৩৫), সাইফুল ইসলামের ছেলে মো. সেলিম (২৮) ও আব্দুল খালেকের ছেলে মনিরুল ইসলাম (৩৬)সহ কয়েকজন বখাটে প্রথমেই ক্লাবের জন্য চাঁদা দাবী করে। অবৈধ ক্লাবে টাকা না দিলে কাজ বন্ধ করে দেয়ার হুমকী দেয় তারা। বুধবার দিবাগত রাতে (০১৭২৩-৬৯৮৭০৩ এবং ০১৭৬৮-৩৭৯৯২৯ মোবাইল নম্বর) থেকে ঠিকাদারকে হুমকী দেয়, সকালের মধ্যে ১ লক্ষ টাকা চাঁদা না দিলে কাজ বন্ধ করে দেয়া হবে। সকালে চাহিদামত চাঁদা না দেয়ায় কাজ বন্ধ করে দেয় বখাটেরা। মিস্ত্রিকে বখাটেরা হুমকি দিয়ে আসে, ‘কাজ করতে আসলে, কোন মিস্ত্রি-লেবার দের স্বুস্থভাবে ঘুরে যেতে দেয়া হবে না’। বর্তমানে এই সরকারী কাজ বন্ধ রয়েছে। স্থানীয় অন্যান্য জনপ্রতিনিধিরাও বখাটেদের নিয়ন্ত্রণ করতে পারেন নি। কোনভাবেই কাজ শুরু করতে দিচ্ছে না ওই বখাটেরা। গোমস্তাপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, পিআইওসহ সংশ্লিষ্ট দপ্তরে বিষয়টি জানানো হলেও এখন পর্যন্ত কোন সমাধা হয়নি। ঠিকাদার বাবুল হোসেন আরও জানাই, ইউপি সদস্য সবুর প্রায় পুরো কাজই দেখেশুনে করিয়ে নিয়েছেন, সবুর মেম্বার ২ দফায় ১০ হাজার টাকাও নিয়েছেন। সিডিউলের বাইরেও কিছু কাজ করিয়ে নিয়েছেন ওই সদস্য। তারপরও আরও মোটা অংকের টাকা নেয়ার জন্য এলাকার বখাটেদের দিয়ে সরকারী কাজ বন্ধ করেছে এবং আমার সাথে কৌশল করছে, যেন আমি বাধ্য হয়ে তাঁর চাহিদামত চাঁদা দিয়ে কাজ শেষ করে আসি। এবিষয়ে সংশ্লিষ্ট ওয়ার্ড সদস্য মো. সবুর জানান, সরকারী কাজ বন্ধের বিষয়ে আমার জানা নেই। এলাকার কয়েকজন একাজ করেছে। আমি ঠিকাদারের কাছ থেকে টাকা নিই নি বা চাইও নি। কাজের ভাল মন্দ দেখার দায়িত্ব সংশ্লিষ্ট দপ্তরের। কোন সাধারন মানুষ সরকারী কাজ বন্ধ করার এখতিয়ার রাখে না। বখাটেদের দিয়ে কাজ বন্ধ করে ঠিকাদারের কাছ থেকে কৌশলে টাকা আদায়ের অভিযোগে তিনি বলেন, কাজ বন্ধ বা টাকা আদায়ের বিষয়ের সাথে কোনভাবেই আমি জড়িত নই। এব্যাপারে গোমস্তাপুর থানার অফিসার ইনচার্জ মো. জসিম উদ্দিন জানান, গোমস্তাপুর উপজেলার রাধানগর ইউনিয়নের বেলডাঙ্গা এলাকায় ঠিকাদারের কাজে স্থানীয়দের বাঁধা দেয়ার বিষয়ে একটি লিখিত অভিযোগ পাওয়া গেছে। তদন্ত করে ঘটনার সত্যতা পাওয়া গেলে অবশ্যই ব্যবস্থা নেয়া হবে।

আপনার মতামত লিখুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *