Sharing is caring!

চাঁপাইনবাবগঞ্জের বীর মুক্তিযোদ্ধা আ. রহমান গুরুত্বর অসুস্থ ॥ অর্থাভাবে হচ্ছেনা সঠিক চিকিৎসা

♦ স্টাফ রিপোর্টার

চাঁপাইনবাবগঞ্জের বীর মুক্তিযোদ্ধা সাবেক সদর উপজেলা কমান্ডার আব্দুর রহমানের শারিরিক অবস্থা গুরুত্বর। তিনি বেশ কিছুদিন থেকেই গুরুত্বর অসুস্থ হয়ে নানা রোগে ভুগছেন। অসুস্থ হলেও অর্থাভাবে করাতে পারছেন না সঠিকভাবে চিকিৎসা। বাংলার এই বীর সন্তানের এমন অবস্থায় কেউ খোঁজ রাখেন না বলে দুঃখ এবং আক্ষেপের সুরে কথা বললেন বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুর রহমান ও তাঁর সাথীরা। জীবন বাঁচাতে উন্নত চিকিৎসা প্রয়োজন। সেটাও হচ্ছে না। চিকিৎসার অভাবে এই সূর্য সন্তানের জীবন প্রদীপ নিভে যাওয়ার আশংকা করছেন সহপাঠি মুক্তিযোদ্ধাগণ। রণাঙ্গনের সাহসী মুক্তি যোদ্ধা যৌবনের সোনালী সময়ে স্বাধীনতার জন্য জীবনবাজি রেখে যুদ্ধ করে এনে দিয়েছেন দেশের জন্য লাল সবুজের পতাকা। দেশ স্বাধীনের পরেও মুক্তি যোদ্ধাদের সংগঠিত করে সামাজিক ও মুক্তি যোদ্ধাদের বিভিন্ন সমস্যায় এগিয়ে গিয়েছেন সব সময় এ বীর মুক্তিযোদ্ধা। কিন্তু আজ তাঁরই খবর নেবার যেন কেউ নেই।জানা গেছে, কিডনির সমস্যা নিয়ে অসুস্থ বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুর রহমান (টুরু)। বিছানায় শুয়ে মৃত্যুর প্রহর গুনছেন এ বীর যোদ্ধা। চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর উপজেলার মুক্তিযোদ্ধা সাবেক এ কমান্ডার গত জুলাই মাসে কিডনির পাথর অপারেশন করেন সেবা ক্লিনিকে। অপারেশনের পর থেকে প্রায় ১ মাস যাবৎ বিছানায় পড়ে আছেন। সাহায্য-সহযোগিতা দূরে থাক, দেখাটাও করেনা কেউ বলে আক্ষেপ করেন এ বীর মুক্তিযোদ্ধা। খবর নেয় না কেউ। প্রয়োজন উন্নত চিকিৎসার। আরেক বীর মুক্তিযোদ্ধা প্রবীন সাংবাদিক তসলিম উদ্দিন জানান, সরকার, স্থানীয় প্রশাসন ও মুক্তিযোদ্ধা পরিবারকে এগিয়ে আসতে হবে বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুর রহমানের উন্নত চিকিৎসার জন্য। অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক মহারাজপুরের বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. জহুরুল ইসলাম জানান, ১৯৭১ এ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ডাকে মহান মুক্তিযুদ্ধে দেশকে স্বাধীন করতে সকলে যুদ্ধে ঝাপিয়ে পড়েছিলাম। বহু প্রাণের বিনিময়ে অর্জিত আজকের বাংলাদেশ। তিনি আরও জানান, দেশের মুক্তিযোদ্ধাগণ অর্থাভাবে বিনা চিকিৎসায় যেন মারা না যায়, সে লক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা জরুরী। মুক্তিযোদ্ধাদের কোন অবস্থাতেই অবহেলা করা চলবে না। বীর মুক্তিযোদ্ধা সাবেক উপজেলা এ কমান্ডারের যথাযথ চিকিৎসার ব্যবস্থা নিতে এগিয়ে আসবেন সরকার ও সমাজের বিত্তবানগণ এমনটাই আশা করছেন সাথী বীর মুক্তিযোদ্ধাগণ ও সচেতন মহল।

আপনার মতামত লিখুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *