Sharing is caring!

স্টাফ রিপোর্টার \ চাঁপাইনবাবগঞ্জে ১৪ বছরের এক কিশোরীকে অপহরণের পর ধর্ষণ ও ধর্ষণে সহযোগিতার অভিযোগে ধর্ষকসহ ৩ জনকে যাবজ্জীবন কারাদন্ডাদেশ দেয়া হয়েছে। চাঁপাইনবাবগঞ্জের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ মোঃ জিয়াউর রহমান এ রায় প্রদান করেন। বুধবার দুপুরে আসামীদের উপস্থিতিতে এই রায় ঘোষনা করেন বিচারক। এছাড়া প্রত্যেককে ১লক্ষ টাকা করে জরিমানা অনাদায়ে আরও ৩ বছর করে বিনাশ্রম কারাদন্ডের আদেশ দিয়েছেন আদালত। জরিমানার অর্থ ওই কিশোরী (ধর্ষিতা) প্রাপ্ত হবে বলেও রায়ে উল্লেখ করা হয়। দন্ডপ্রাপ্ত আসামীরা হচ্ছে, জেলার শিবগঞ্জ উপজেলার দাইপুকুরিয়া ইউনিয়নের মির্জাপুর গ্রামের মিছু আলীর ছেলে জিয়ারুল ইসলাম (২৮), একই উপজেলার বাটা গ্রামের এসান আলীর ছেলে নজরুল ইসলাম(৪০) ও কাশিয়াবাড়ি খাসপাড়া গ্রামের মৃত.সাজু আলীর ছেলে এজু ওরফে নজু ওরফে নজরুল (৪৯)। মামলার বিবরণ ও অতিরিক্ত পিপি অ্যাডভোকেট আঞ্জুমান আরা জানান, ২০১৩ সালের ২০ আগষ্ট শিবগঞ্জের চন্ডিপুর গ্রামের মাজহারুল ইসলামের কিশোরী কন্যা পাশের কাশিয়াবাড়ি গ্রামে খালুর বাড়ীতে বেড়াতে যায়। খালুর বাড়িতে রাতে ঘুমিয়ে গেলে দিবাগত রাত ১ টার দিকে মাটির ঘরের শিধ কেটে প্রবেশ করে আসামীরা। একপর্যায়ে ওই মেয়েটিকে অপহরণ করে জিয়ারুল ও তার সহযোগীরা। কিশোরীকে গড়পাড়ায় একটি বাড়িতে নিয়ে গিয়ে উপর্যুপরী ধর্ষণ করে। পর দিন সকালে স্থানীয় লোকজন আশংকাজনক অবস্থায় ধর্ষিতা কিশোরীকে বাগান থেকে হাত-পা বাঁধা অবস্থায় উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করে। এ ঘটনায় ধর্ষিতার পিতা বাদী হয়ে শিবগঞ্জ থানায় মোট ৫ জনকে আসামী করে একটি মামলা দায়ের করেন। (মামলা নং- ৫৬, শিবগঞ্জ থানা, তাং-২৫-০৮-১৩,জিআর নং ৩৫৭/২০১৩,নারী ও শিশু মামলা নং ৩০/২০১৩)। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা শিবগঞ্জ থানার এসআই আবুল কালাম আজাদ একই সালের ২১ নভেম্বর ২  আসামীকে অব্যাহতি দিয়ে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন। ৭ জন সাক্ষির সাক্ষ্য প্রদান ও দীর্ঘ শুনানীর শেষে বিচারক আসামী জিয়ারুল ইসলাম, নজরুল ইসলাম ও এজু ওরফে নজুকে যাবজ্জীবন কারাদন্ড, প্রত্যোককে একলাখ টাকা করে জরিমানা এবং অনাদায়ে আরো ৩ বছরের কারাদন্ডের রায় প্রদান করেন। আসামী পক্ষে ছিলেন অ্যাড. নুরুল ইসলাম সেন্টু।

আপনার মতামত লিখুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *