Sharing is caring!

স্টাফ রিপোর্টার \ চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর উপজেলার সীমান্ত এলাকা চর আলাতুলিতে জঙ্গী আস্তানায় র‌্যাবের টানা ১০ ঘন্টার অভিযানে ৩ জেএমবি সদস্য নিহত হয়েছে। ঘটনাস্থল থেকে অস্ত্র, বোমা ও বোমা তৈরীর সরঞ্জাম উদ্ধার করা হয়েছে। জিজ্ঞাসাবাদের জন্য বাড়ির মালিকসহ ৩ জনকে আটক করা হয়েছে। অভিযান শেষে র‌্যাবের মিডিয়া উইংয়ের পরিচালক মুফতি মাহমুদ প্রেস ব্রিফিং’র মাধ্যমে  জানান, ঢাকায় জঙ্গীদের গ্রেফতারের পর তাদের দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে গত সোমবার দিবাগত রাত ৩টার দিকে চরের একটি বাড়ীতে র‌্যাব-৫ এর একটি দল অভিযান চালায়। অভিযানে জঙ্গীদের আত্মসমর্পণ করতে বলায় তারা কোন প্রকার সাড়া না দিয়ে প্রথমে গুলি ও গ্রেনেড ধরনের কিছুর বিস্ফোরন ঘটায়। জবাবে র‌্যাবও পাল্টা গুলি চালায় ও পুরনায় তাদের আত্মসমর্পণ করার আহবান জানায়। ভোর ৫টার দিকে বাড়ীটিতে বিস্ফোরন ঘটে এবং আগুন লাগে যায়। পরে ঘরে লাগা আগুন নিয়ন্ত্রনে আসে। এ ঘটনার পর থেকে বাড়িটিকে ঘিরে রাখা হয়। মঙ্গলবার সকাল ৮টার দিকে র‌্যাবের বোমা নিস্ক্রিয়কারী দল বাড়ির ভেতরে প্রবেশ করে তিনটি শক্তিশালী বোমা উদ্ধার করে এবং পরে তা নিস্ক্রিয় করে। পরে র‌্যাব সদস্যরা বাড়ির ভেতরে তল্লাসী চালিয়ে ২টি পিস্তল, ৭টি ডেটোলেটর, ১২টি পাওয়ার জেলসহ ৩ জঙ্গীর খন্ডবিখন্ড মৃতদেহ উদ্ধার করে। এঘটনায় মো. পাকুর আলীর ছেলে বাড়ির মালিক রাশিকুল, তার স্ত্রী নাজমা ও রাশিকুলের শ^শুর খোরশেদ আলমকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করা হয়েছে। রাসিকুলের বাড়ি গোদাগাড়ীর চর আষাড়িয়াদহ গ্রামে। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে বাড়ির মালিক জানায়, প্রায় ১ মাস আগে দুই জন ব্যাক্তি পাখি পর্যবেক্ষনের জন্য চরের ভেতরের ওই বাড়িটি ভাড়া নিয়েছিলো। স্থানীয় সুত্র জানায়, গোদাগাড়ীর চর আষাড়িয়াদহ গ্রামের বাসিন্দা রাসিকুল চার বছর আগে চর আলাতুলীর দূর্গম চরে মধ্যচর গ্রামে বাড়ি তৈরী করেন। এরপর থেকে সেখানে স্ত্রী সন্তান নিয়ে বসবাস করতেন রাসিকুল। তারা তাদের জমি দেখাশুনা করতেন। নাটোরসহ বাইরের এলাকা হতে অনেক মানুষের যাওয়া-আসা করতো এই বাড়িতে। বাইরের লোকজনের যাতায়াতে স্থানীয়দের মাঝে সন্দেহ সৃষ্টি হলে স্থানীয়দের তারা জানায়, তারা একটি এনজিওর কাজে এখানে এসেছে এবং চর এলাকার বিদেশী পাখি শিকার করবে তারা। রাজশাহী র‌্যাব-৫-এর অধিনায়ক লে. কর্নেল মাহাবুব আলম এবিষয়ে বলেন, ‘যেহেতু তারা বাড়ির মালিক। তাই তাদের জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করা হয়েছে। তবে তারা জঙ্গিবাদের সঙ্গে সম্পৃক্ত কিনা-সেটি আমরা এখনো নিশ্চিত নয়। তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করে বিষয়টি নিশ্চিত হওয়া যাবে।’ র‌্যাবের ওই কর্মকর্তা আরও বলেন, ‘এই জঙ্গি আস্তানায় কারা যাতায়াত করত, সেটি হয়তো বাড়ির মালিকসহ আটককৃতরা জানেন। এই কারণেই তাদের জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করা হয়েছে। আবার তারা নিজেরাও জঙ্গিবাদের সঙ্গে সম্পৃক্ত কিনা সেটিও খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

আপনার মতামত লিখুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *