Sharing is caring!

SAM_4373   চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি \ জাতীয় সমাজ সেবা দিবস উপলক্ষে র‌্যালী, আলোচনা সভা ও পুরস্কার বিতরনী অনুষ্ঠান হয়েছে চাঁপাইনবাবগঞ্জে। জেলা প্রশাসন, সমাজ সেবা অধিদপ্তর ও স্থানীয় এনজিও সমূহের আয়োজনে শনিবার দুপুরে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সামনে থেকে একটি বর্ণাঢ্য র‌্যালী বের হয়ে সরকারী শিশু বালিকা পরিবার চত্বরে আলোচনা সভায় মিলিত হয়। র‌্যালীতে নেতৃত্ব দেন জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর কবীর। র‌্যালী শেষে সরকারী শিশু বালিকা পরিবার চত্বরে আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন জেলা প্রশাসক। এসময় আরও বক্তব্য রাখেন সমাজ সেবা অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক রবিউল ইসলাম, অধিদপ্তরের সাবেক উপ-পরিচালক মোস্তাফিজুল হক, সমাজ সেবক আলহাজ্ব শামসুল হক, আবুল কালাম আজাদ, দৃষ্টি প্রতিবন্ধী শাহনাজ পারভীন ও আব্দুল ওয়াহেদসহ অন্যরা। সভা পরিচালনা করেন অধিদপ্তরের শামসুল করিম। এসময় স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ ও বিভিন্ন এনজিও প্রধানগণ উপস্থিত ছিলেন। সভায় বক্তারা এতিম ও প্রতিবন্ধী শিশুদের পাশে দাঁড়িয়ে তাদের শিক্ষাসহ অন্যান্য সুযোগ বৃদ্ধিতে সমাজের SAM_4378বিত্তবানদের এগিয়ে আসার আহবান জানান। সভায় জানানো হয় সরকারীভাবে এতিম শিশুদের জন্য বিভিন্নভাবে সহায়তা করা হচ্ছে, নাম পরিচয় না থাকা অনেক শিশুকে লালন-পালন, বিয়ে, শিক্ষাদান, বিভিন্ন প্রশিক্ষনের ব্যবস্থা এবং এসব শিশুদের স্বাবলম্বী করে তুলতে আন্তরিকভাবে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। কিন্তু সমাজের বিত্তবানরা এসব শিশুদের পাশে দাঁড়ালে আরও সহজ হবে তাদের। ইতিমধ্যেই জেলা প্রশাসন ও সমাজ সেবা অধিদপ্তরের সহায়তায় চাঁপাইনবাবগঞ্জের প্রতিবন্ধী ও এতিম শিশুরা লেখাপড়া শিখে সমাজে অবদান রাখছে। সমাজ সেবা অধিদপ্তরের সহযোগিতা পেয়ে প্রতিবন্ধীরা উচ্চ শিক্ষাও গ্রহণ করছে। আগামী দিনে এসব অসহায় শিশুদের সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে তাদের শিক্ষাসহ অন্যান্য সমস্যা সমাধানের পথ সহজ করতে এগিয়ে আসতে হবে স্থানীয়দের। সভায় দৃষ্টি প্রতিবন্ধী কলেজ পড়–য়া শাহনাজ পারভীন ও আব্দুল ওয়াহেদকে ব্যক্তিগত ও উপস্থিত ব্যক্তিদের দেয়া প্রায় ২২ হাজার টাকার অনুদান তুলে দেন অতিথিগণ। এতিম ও প্রতিবন্ধীদের কথা ব্যক্ত করতে গিয়ে আবেগে আপ্লুত হয়ে পড়েন বক্তারা ও উপস্থিত সভার মানুষগুলো। বিকেলে শেষে সরকারী শিশু বালিকা পরিবারের বিভিন্ন খেলায় বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ, বিভিন্ন স্বেচ্ছাসেবী প্রতিষ্ঠানের সেবামূলক কাজের জন্য ক্রেস্ট প্রদান এবং প্রতিবন্ধীদের হাতে অনুদানের অর্থ তুলে দেয়া হয়। পরে মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান হয়। উল্লেখ্য, সরকারী শিশু বালিকা পরিবারে থাকা শিশুদের আনন্দ দিতে ২দিন ব্যাপী বিভিন্ন খেলাধুলার আয়োজন করা হয়। হেসেখেলে বিভিন্ন ইভেন্টে অংশ গ্রহণ করে শিশু পরিবারের সদস্যরা।

আপনার মতামত লিখুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *