Sharing is caring!

চাঁপাইনবাবগঞ্জে বিজিবি সদস্যের-পুলিশ পরিচয়ে প্রতারণা ॥ আটক প্রতারক

♦টুটুল রবিউল, চাঁপাইনবাবগঞ্জ

জনতার হাতে আটক পুলিশ পরিচয় দেয়া এক প্রতারক বিজিবি সদস্যকে উদ্ধার করে ৫৩ বিজিবি’র হাতে তুলে দিয়েছে সদর মডেল থানা পুলিশ। মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ১০ টার দিকে ওই প্রতারক পুলিশ পরিচয় দেয়া বিজিবি সদস্যকে ব্যবসায়ীদের সহায়তায় আটক করে এক দোকানদার। পরে সদর মডেল থানায় খবর দিলে তাকে উদ্ধার করে নিয়ে যায় পুলিশ। আটক ব্যক্তি জানায়, সে ফরিদপুর জেলার বোয়ালমারি উপজেলার মাগুরা গ্রামের দিদারুল্লাহ’র ছেলে মোহম্মাদ হোসেন (৩১)। সে ৫৩ বিজিবি সদস্য বলে জানায় সদর থানার ওসি মোঃ মোজাফফর হোসেন। চাঁপাইনবাবগঞ্জ শহরের শিবতলা মোড়ের ডিজিটাল অটো রিক্সা হাউসের মালিক মোঃ ইসারুল হক জানান, সকালে সে তার দোকানে দু’টি নতুন ব্যাটারী বিক্রি করতে আসে। গতকাল সোমবার সে তার দোকানে পুলিশ পরিচয় দিয়ে ব্যাটারী কিনতে আসলে তাকে বাকীতে ব্যাটারী দেয়নি ইসারুল। আজকে সে ব্যাটারী বিক্রি করতে আসলে তার সন্দেহ হয়। এর আগেও সে বিভিন্ন দোকান হতে এভাবে প্রতারণা করে পণ্য নিয়ে এসেছে এরকম অভিযোগ শুনেছে ইসারুল। সেই সুত্রে তাকে আটকিয়ে থানা পুলিশকে খবর দিলে, থানা পুলিশ ও বিজিবি তাকে নিয়ে যায়। সদর মডেল থানায় গিয়ে দেখা যায়, প্রতারনার শিকার ব্যবসায়ীরা থানায় হাজির।

সেখানেই কথা হয়-মহারাজপুর মেলার মোড়ের সাইকেল দোকানদার আশরাফের সাথে। তিনি জানান, খবর পেয়ে তিনি থানায় এসেছেন। এই প্রতারক ২৭ মার্চ পুলিশ পরিচয় দিয়ে তার নিকট হতে তিনটি সাইকেল বাকীতে নেয়। যার মুল্য ২২ হাজার টাকা। পরে তার মোবাইল বন্ধ পেলে থানায় একটি জিডি করে।

আজকে বিজিবি অফিসার তার নাম ও মোবাইল নং নিয়ে বললো, আমার টাকা দেয়া হবে। তার সাথে যোগাযোগ করার জন্য একটি মোবাইল নং দিয়েছেন। এরকম প্রায় ৭-৮ জন ব্যবসায়ীকে থানায় দেখা যায়। যাদের নিকট হতে ভিন্ন ভিন্ন পরিচয়ে ওই বিজিবি সদস্য প্রতারনা করে বাকীতে মালামাল নিয়ে এসে আর যোগাযোগ করেনি। এমনকি তার দেয়া মোবাইল নম্বরটিও বন্ধ ছিল। সদর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ মোজাফফর হোসেন বলেন, খবর পেয়ে জনতার রোশ থেকে ওই বিজিবি সদস্যকে উদ্ধার করা হয়। পরবর্তীতে অভিযোগকারীদের সাথে ৫৩ বিজিবি সদস্যরা দফারফা করে তাকে নিয়ে যায়। এবিষয়ে ৫৩ বিজিবি অধিনায়ক লেঃ কর্ণেল মোঃ সুরুজ মিয়া বলেন, সে আমাদের ৫৩ বিজিবি’র সদস্য। সে যে কাজ করেছে, তা অপরাধ। তার বিরুদ্ধে বাহিনীর নিয়ম অনুযায়ী প্রশাসনিক ব্যবস্থা গ্রহণ শুরু করেছি। তার দ্বারা যারা প্রতারিত হয়েছেন, তাদের প্রাপ্য পাওনা পরিশোধ করারও ব্যবস্থা নিয়েছি।

আপনার মতামত লিখুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *