Sharing is caring!

চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা শহর, উপজেলা ও মফ¯^ল এলাকাগুলোতে কারণে-অকারণে বিদ্যুতের ঘন ঘন লোড সেডিং বন্ধ করার জোর দাবি জানিয়েছেন ভুক্তভোগীরা ও বিশিষ্ট জনেরা। চাঁপাইনবাবগঞ্জ শহরের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ অফিস-আদালত এবং বিশেষ করে বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেক্ট্রনিক মিডিয়া সাংবাদিকগণ কাজ করেন। বিদ্যুতের কারণে প্রায়শই সমস্যায় পড়ছেন গণমাধ্যম কর্মীরা। চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা থেকে বর্তমানে ৪টি দৈনিক পত্রিকা প্রকাশিত হয়। বিদ্যুতের লোড সেডিং এর কারণে পত্রিকা অফিসের কম্পিউটার সমস্যাসহ বিভিন্ন সমস্যায় পড়তে হচ্ছে প্রায়শই। কিছুক্ষন পর পর বিদ্যুৎ চলে যাওয়ায় কম্পিউটার ও অন্যান্য যন্ত্রাংশের চরম সমস্যার সৃষ্টি হচ্ছে। বার বার গুনতে হচ্ছে অর্থ। সরকারের দেয়া বিদ্যুৎ উৎপাদনের তথ্য মোতাবেক কোন লোড সেডিং হওয়ার কথা নয়। কারণ প্রয়োজনের তুলনায় বেশী বা সমপরিমান বিদ্যুৎ উৎপাদন হচ্ছে দেশে। তারপরও বিদ্যুতের লোড সেডিং। এনিয়ে জনমনে নানা প্রশ্ন দেখা দিচ্ছে। বিদ্যুৎ বিভাগের এক শ্রেণীর অসাধু কর্মকর্তা-কর্মচারীরা সরকারের ভাবমুর্তি ক্ষুন্ন করার জন্যই এভাবে লোডসেডিং দিয়ে সমস্যা সৃষ্টি করছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। হঠাৎ করেই সময় নেই, যখন, তখনই লোড সেডিং এর নামে বিদ্যুৎ নেই। বিদ্যুৎ অফিসে যোগাযোগ করলে, কখনও ঢাকা থেকে, কখনও গ্রীডের দোহায়, কখনো লাইনের সমস্যাসহ বিভিন্ন সমস্যার দোহায় দিয়ে বিদ্যুৎ বন্ধ রাখার কথা জানানো হয়। আর মফ¯^ল এলাকাতে তো কোন কথায় নেই। প্রতিদিনই ঘন্টার পর ঘন্টা লোড সেডিং। যখন মন চায়, তখনই লোড সেডিং। প্রচন্ড ভ্যাপসা গরমে যখন শিশুরা লেখাপড়া করার সময়, ঠিক সন্ধ্যা বা একটু রাত হলেই বিদ্যুৎ নেই। দিনের মধ্যে অন্তত ৪ থেকে ৫ বার লোড সেডিং দেয়া হচ্ছে মফ¯^ল এলাকায়। এভাবে লোড সেডিং হওয়ায় চরম ¶তি হচ্ছে কোমলমতি ছোট ছোট শিশুসহ বড়দেরও। এমনকি ঠিক আজানের সময়, নামাজের সময়, বিদ্যুতের লোড সেডিং দেয়া হয়ে থাকে। বিষয়গুলোর সঠিক তদন্ত ¯^াপে¶ে সমস্যাগুলোর সমাধান করতে এগিয়ে আসবেন কর্তৃপ¶ এমনটায় আশা করছেন চাঁপাইনবাবগঞ্জের সচতেন মহল।

আপনার মতামত লিখুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *