Sharing is caring!

SAM_3617SAM_3612চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি \ ভূমি মন্ত্রণালয়ের অধীন জাতীয় ভূমি জোনিং প্রকল্পের আওতায় ভূমি জোনিং বিষয়ে দিনব্যাপী কর্মশালা হয়েছে চাঁপাইনবাবগঞ্জে। সোমবার সকালে জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে কর্মশালায় প্রধান অতিথি ছিলেন জাতীয় ভূমি জোনিং প্রকল্পের পরিচালক অতিরিক্ত সচিব মোঃ কফিল উদ্দিন। জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর কবীরের সভাপতিত্বে কর্মশালায় জেলার বিভিন্নস্তরের জমির বিবরণ তুলে ধরেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজ¯^) মাকসুদা বেগম সিদ্দিকা। জেলা প্রশাসনের আয়োজনে কর্মশালায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন চাঁপাইনবাবগঞ্জ সরকারি মহিলা কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর নজরুল ইসলাম, নবাবগঞ্জ সরকারি কলেজের উপাধ্যক্ষ প্রফেসর মোঃ ইব্রাহীম, নাচোল উপজেলা চেয়ারম্যান আব্দুল কাদের ও ভোলাহাট উপজেলা চেয়ারম্যান আনোয়ারুল ইসলাম, সড়ক ও জনপথের নির্বাহী প্রকৌশলী সুনীতি চাকমা, জেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা মমতাজ মহল, জেলা মৎস্য কর্মকর্তা একরামুল ইসলাম, জেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা কৃষিবিদ আব্দুল মান্নান, সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মির্জা শাকিলা দিল হাছিনসহ অন্যরা। কর্মশালায় কৃষি জমি সুরক্ষা, ভূমির পরিমিত ও পরিকল্পিত ব্যবহার এবং ভূমি আইনের যথাযথ প্রয়োগের উপর গুরুত্বারোপ করা হয়। কর্মশালায় বলা ভূমি সংরক্ষন আইন থাকার পরও আইনের প্রয়োগ না থাকায় জমির মালিকরা যত্রতত্র ভবন নির্মান ও শিল্প প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলছে কৃষি জমির উপর। ফলে দিন দিন আমাদের দেশে কৃষিসহ আবাদী জমি কমে যাচ্ছে। এঅবস্থা চলতে থাকলে ২০৫০ সালের মধ্যে মাথাপিছু আবাদী জমির পরিমান অর্ধেকে নেমে আসবে। যেখানে সেখানে অপিরকল্পিতভাবে ইট ভাটা গড়ে উঠছে, গড়ে উঠছে বিভিন্ন কল-কারখানা। চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলায় মোট জমির পরিমান ৪ লক্ষ ২০ হাজার ৬’শ ৯৭ একর। এর মধ্যে আবাদী জমির পরিমান ৩ লক্ষ ২১ হাজার ১’শ ৯১ একর। অপরিকল্পিতবাবে কৃষি জমিতে চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলায় আমের বাগান গড়ে উঠছে। এভাবে চলতে থাকলে একদিন চাঁপাইনবাবগঞ্জের কৃষি জমি থাকবে না। পরিবেশ পড়বে হুমকীর মুখে। একটি মহল নদী থেকে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন এবং নদী ভরাট করে স্থাপনা গড়ে তুলছে। ফলে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হচ্ছে। বিশেষ করে কৃষি আবাদী জমিতে অপরিকল্পিক ভবন বা কল-কারখানা গড়ে উঠতে না পারে সেজন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ এবং জেলা, উপজেলা ও ইউনিয়ন পর্যায়ে সচেতনতামূলক প্রচারণা চালিয়ে ও আইনের সুষ্ঠু প্রয়োগের মাধ্যমে কৃষি জমি সুরক্ষায় সরকারসহ সকলকে এগিয়ে আসার আহবান জানান বক্তারা। এসময় সাংবাদিক, জেলা তথ্য অফিসার ওয়াহেদুজ্জামান (জুয়েল), ডিবি ওসি হামিদুর রশিদ, জেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা সামস ই তাবরিজ, জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার দিলরুবা বেগম, জেলা যুব উন্নয়ন কর্মকর্তা নহির উদ্দিন, জেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মোখলেশুর রহমান, টিআইবি’র চাঁপাইনবাবগঞ্জ এরিয়া ম্যানেজার সফিকুল ইসলাম, বিভিন্ন সরকারি প্রতিষ্ঠানের প্রধান, বেসরকারী প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা এবং ভূমি জোনিং প্রকল্পের কর্মকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন।

আপনার মতামত লিখুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *