Sharing is caring!

চাঁপাইনবাবগঞ্জে ৭ দিনব্যাপী বৃক্ষ মেলার উদ্বোধন

♦ স্টাফ রিপোর্টার 

৭ দিনব্যাপী বৃক্ষ মেলার উদ্বোধন করা হয়েছে চাঁপাইনবাবগঞ্জে। সোমবার বিকেলে চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা স্টেডিয়ামে এই মেলার উদ্বোধন করেন চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার সংরক্ষিত মহিলা সংসদ সদস্য ফেরদৌসী ইসলাম জেসী। “পরিকল্পিত ফল চাষ, যোগাবে পুষ্টি সম্মত খাবার” প্রতিপাদ্যে জেলা প্রশাসন, কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর ও বন বিভাগ’র যৌথ আয়োজনে বৃক্ষ মেলা উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক তাজকির উজ জামান। বিশেষ অতিথি ছিলেন পুলিশ সুপার টি.এম মোজাহিদুল ইসলাম বিপিএম, কৃষি স¤প্রসারণ অধিদপ্তর রাজশাহী অঞ্চলের অতিরিক্ত পরিচালক দেব দুলাল ঢালী, কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের চাঁপাইনবাবগঞ্জ কার্যালয়ের উপ-পরিচালক আলহাজ্ব মঞ্জুরুল হুদা, সামাজিক বন বিভাগ রাজশাহী অঞ্চলের সহকারী বন কর্মকর্তা মো. মেহেদীজ্জামান। বক্তব্য রাখেন, চাঁপাইনবাবগঞ্জ হর্টিকালচার সেন্টারের উপ-পরিচালক ড. মো. সাইফুর রহমানসহ অন্যান্যরা। বৃক্ষমেলার প্রবন্ধ উপস্থাপনা করেন, চাঁপাইনবাবগঞ্জ আঞ্চলিক উদ্যানতত্ব গবেষণা কেন্দ্রের মুখ্য বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. মো. শফিকুল ইসলাম। উদ্বোধনী অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন সদর উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা সলেহ্ আকরাম। এসময় উপস্থিত ছিলেন, নবাবগঞ্জ সরকারি কলেজের বাংলা বিভাগের বিভাগীয় প্রধান প্রফেসর ড. মাজহারুল ইসলাম তরু, জেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব রুহুল আমিন, জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব আব্দুস সামাদ, নবাব অটো রাইস মিলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও বিশিষ্ট ব্যবসায়ী আলহাজ্ব মো. আকবর হোসেন, জেলা তথ্য কর্মকর্তা মো. ওয়াহিদুজ্জামান, সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অধ্যাপক মোখলেশুর রহমান, যুবলীগ নেতা মেসবাহুল সাকের জ্যোতি, চাঁপাইনবাবগঞ্জ চেম্বারের পরিচালক মো. শহিদুল ইসলামসহ কৃষক, কৃষি সম্প্রসারণ ও বন বিভাগের কর্মকর্তাবৃন্দসহ বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা। শুরুতে ফিতা কেটে মেলার উদ্বোধন করেন, অতিথিবৃন্দ। এরপর উদ্বোধন শেষে মেলার প্রতিটি স্টল পরিদর্শন করেন প্রধান অতিথিসহ অন্যান্য অতিথিরা এবং পরিদর্শন শেষে আলোচনা সভা হয়। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ফেরদৌসী ইসলাম জেসী বলেন, গাছ আমাদের পরম বন্ধু। বেঁচে থাকার জন্য যে অক্সিজেন প্রয়োজন তা আমরা গাছ থেকেই পেয়ে থাকি। বেশি বেশি গাছ লাগানোর কোন বিকল্প নেই। তাই একটি গাছ কাটলে, দুটি লাগাতে হবে। বৃক্ষরোপনের কোন বিকল্প নেই উল্লেখ করে তিনি আরো বলেন, আমাদের ভবিষৎ প্রজন্মকে সুন্দরভাবে বাঁচতে দিতে হলে, বৃক্ষনিধন না করে আরো বেশি করে বৃক্ষরোপন করা ছাড়া উপায় নেই। এসময় অভিভাবকদের উদ্দেশ্যে সন্তানদেরকে মেলায় ঘুরতে নিয়ে আসার অনুরোধ জানান তিনি। বিশেষ অতিথির বক্তব্যে পুলিশ সুপার টিএম মোজাহিদুল ইসলাম বিপিএম-পিপিএম বলেন, সুন্দর ও পরিবশেবান্ধব বাংলাদেশ বির্নিমানে সবাইকে কাজ করতে হবে। ছোটদের গাছ চেনার লাগানোর জন্য আগ্রহী করে তুলতে হবে। আমরা সবাই মিলে যদি চেষ্টা করলে সন্তানদের উজ্জল ভবিষ্যতের জন্য গ্রীন বাংলাদেশ উপহার দিতে পারবো । আমরা সবাই মিলে যদি কাজ করি তাহলে সুন্দর একচি সবুজ বাংলাদেশ পাব। উল্লেখ্য, মেলায় কৃষি সম্প্রসারণসহ জেলার বিভিন্ন কৃষি প্রতিষ্ঠান, নার্সারী মিলে ২৪টি স্টল রয়েছে। প্রতিটি স্টলে ছিল ফলদ, বনজ, ঔষধি, বিভিন্ন প্রকার ফলসহ কৃষি যন্ত্রপাতি। আলোচনা সভা শেষে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের গাছের চারা বিতরণ করা হয়। সন্ধ্যায় মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান হয়।

আপনার মতামত লিখুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *