Sharing is caring!


স্টাফ রিপোর্টার \ মহিলা বিচারপ্রার্থীদের সুবিধার্থে চাঁপাইনবাবগঞ্জ চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালত ভবনে মহিলা বিশ্রামাগার ও ফিডিং রুমের ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। চাঁপাইনবাবগঞ্জ চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট মোহাঃ আদীব আলীর ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় এবং উদ্যোগে এই মহিলা বিশ্রামাগার ও ফিডিং রুমের ব্যবস্থা নেয়া হয় বলে জানা গেছে আদালত সুত্রে। ২০১৭ সালের ২ মার্চ চাঁপাইনবাবগঞ্জ চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতের নবনির্মিত ভবন উদ্বোধন করা হয়। ভবনে বিভিন্ন দপ্তরের জন্য নির্ধারিত রুম বা স্থান থাকলেও মহিলাদের জন্য নির্ধারিত কোন রুম বা স্থান ছিলনা। বিচারপ্রার্থী মহিলাদের অনেক সময়ই আদালতের বারান্দায় দীর্ঘসময় ধরে দাঁড়িয়ে থাকতে হয়, অনেক মায়েরা শিশু সন্তানদের স্তনপান করানোর জন্য সমস্যায় পড়েন। এসব সমস্যার কথা মাথায় নিয়েই এই মহোৎ উদ্যোগ। চাঁপাইনবাবগঞ্জ চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতের নিচ তলায় পূর্ব দিকের ১০১ নম্বর রুমে এই মসজিদ ও ফিডিং স্থানের বরাদ্দ দেয়া হয়েছে সম্প্রতি। এই রুমের পার্শ্বে মহিলাদের জন্য ওজুখানা ও ৪টি টয়লেট এবং ওয়াসরুমেরও ব্যবস্থা রয়েছে। মহিলারা সেখানে পর্দার মধেই নামাজ আদায়ও করতে পারবেন। প্রতিদিন আদালত চলাকালিন সময়ে প্রায় শতাধিক মহিলা আসেন চাঁপাইনবাবগঞ্জ চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে। এসব মহিলাদের সন্তানদের স্তন্যপানসহ বিভিন্ন সমস্যায় পড়তে হতো। এই উদ্যোগের ফলে মহিলাদের অনেক সমস্যার সমাধান হয়েছে। আদালতে মায়েদের সাথে আসা শিশু সন্তানরা অনেকটায় আরাম আয়েশে থাকার ব্যবস্থা হয়েছে। অনেকটায় ¯^স্তি ফিরে এসেছে মায়েদের মনে। এই উদ্যোগের জন্য চাঁপাইনবাবগঞ্জ চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতের বিচারকদের আন্তরিক ধন্যবাদও জানিয়েছেন মহিলা বিচারপ্রার্থী ও মায়েরা। এই নির্ধারিত রুম এলাকায় যেন কোন পুরুষ প্রবেশ করতে না পারে সেজন্য তদারকি ও মহিলাদের সেবা দেয়ার জন্য আদালতের একজন মহিলা অফিস সহায়ক অফিস চলাকালিন সময়ে সর্বক্ষন দায়িত্বে নিয়োজিত রয়েছেন। মা ও সন্তানদের বিশ্রামের জন্য মানবিক দিক বিবেচনা করে এই প্রথম মহিলাদের জন্য নিধারিত রুমের বা স্থানের এই ব্যবস্থা নেয়ায় আন্তরিক কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন বিচারপ্রার্থী মহিলা ও মায়েরা। এবিষয়ে চাঁপাইনবাবগঞ্জ চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট মোহাঃ আদীব আলী বলেন, আর আগে আদালতে মহিলাদের বিশ্রাম, শিশুদের খাওয়ানো, মহিলাদের সাথে আসা অন্য মহিলাদের সমস্যা বা মহিলাদের জন্য আলাদাভাবে বিশ্রামের কোন ব্যবস্থা ছিল না। এই প্রথম মহিলা বিচারপ্রার্থীদের সেবা দেয়ার কথা চিন্তা করে এই সিদ্ধান্ত নিয়েছি। মা বোনদের সমস্যা সমাধানের জন্য একটি মানবিক উদ্যোগ। এই সেবা নিশ্চিত করার জন্য সকলের সহযোগিতাও কামনা করেন তিনি।

আপনার মতামত লিখুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *