Sharing is caring!

dsc00184-dcd-1 dsc00255চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি \ নির্বাচনের দীর্ঘ ১০ মাস পর বিভিন্ন মামলা জনিত জটিলতার কারণে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের আদেশে মেয়রের পদ থেকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত হওয়ার পর অবশেষে উচ্চ আদালতের নির্দেশে রবিবার সকাল ১০ টার দিকে দায়িত্বভার গ্রহণ করেন চাঁপাইবাবগঞ্জের নির্বাচিত পৌর মেয়র জামায়াত নেতা অধ্যক্ষ নজরুল ইসলাম। দায়িত্ব বুঝিয়ে দেন ভারপ্রাপ্ত মেয়র মো. সাইদুর রহমান। এ সময় উপস্থিত ছিলেন পৌর প্যানেল মেয়র-২ মতিউর রহমান, প্যানেল মেয়র-৩ মোসলেমা বেগম, কাউন্সিলরবৃন্দ, নির্বাহী প্রকৌশলী সাদিকুল ইসলাম, পৌর সচিব মামুনুর রশিদ, প্রধান হিসাবরক্ষন কর্মকর্তা আহসান হাবিবসহ সংশ্লিষ্টরা। এদিকে সকাল থেকেই পৌর ফটকে অবস্থান নেয় সদর থানা পুলিশের একটি দল। মেয়র নজরুল ইসলাম দায়িত্ব গ্রহণের পর বিভিন্ন সেকশন প্রধানদের সাথে পরিচিত হন এবং পৌরসভার বিভিন্ন দাপ্তরিক কর্মকান্ড সম্পর্কে খোঁজ নেন। দায়িত্ব গ্রহণের ২ ঘন্টা পর ২০১৬ সালের ৪০৬ নম্বরের সদর উপজেলার চামাগ্রামের একটি বিষ্ফোরক মামলায় হাজিরা দিতে আদালতে আত্মসমর্পণ করেন তিনি। দুপুরে চাঁপাইনবাবগঞ্জ চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতের ‘ক’ অঞ্চলের বিচারক সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট জুয়েল অধিকারী জামিন নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন। এই মামলায় তাকে হুকুমের আসামী করা হয়েছে বলে জানান পৌরসভার আইনজীবী এ্যাড. আব্দুল ওয়াদুদ। দায়িত্ব গ্রহণের পর তিনি পৌরবাসীর উদ্দেশ্যে মেয়র কক্ষে বক্তব্য রাখেন। তিনি বলেন, মানুষের ভোটের মূল্যায়ন করতে বর্তমান পৌর পরিষদকে সাথে নিয়ে সাধ্যমত কাজ করে যাবেন। চাঁপাইনবাবগঞ্জ পৌরসভার সকল উন্নয়নে স্থানীয় সাংসদের সহযোগিতা নিয়ে এবং সাধারণ নাগরিকদের সমস্যাগুলো চিহ্নিত করে কাজ করবেন। পৌর ট্যাক্স নিয়ে যেসব সমস্যা দেখা দিয়েছে, তা পৌর পরিষদ ও গণ্যমান্য নাগরিকদের নিয়ে আলোচনা ও সমঝোতার ভিত্তিতে সমাধানের আশ্বাস প্রদান করেন। তিনি আরও বলেন, পৌরসভার উন্নয়নের জন্য পৌর নাগরিকদেরও দায়িত্ব রয়েছে। পৌরসভার উন্নয়নের জন্য পৌর কর্তৃপক্ষের অর্থ যোগানের বিষয়টিও ভাবতে হবে নাগরিকদের। তিনি চাঁপাইনবাবগঞ্জ পৌরসভার উন্নয়নে এবং সমস্যাগুলো সমাধানে সকলের আন্তরিক সহযোগিতা কামনা করেন। উল্লেখ্য, ২০১৫ সালের ৩০ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত চাঁপাইনবাবগঞ্জ পৌরসভার নির্বাচনে নির্বাচিত হন জেলা জামায়াতের আমীর অধ্যক্ষ মোঃ নজরুল ইসলাম। পরবর্তীতে তিনি চলতি বছরের ১৩ জানুয়ারী জেলা ও দায়রা জজ ও চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে আত্মসমর্পন করলে আদালত জামিন আবেদন নামুঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন। পরে তিনি উচ্চ আদালতের নির্দেশে প্যারোলে মেয়র হিসেবে শপথ গ্রহণ করেন। তার নামে বিভিন্ন মামলার চার্জশীট আদালতে গৃহীত হওয়ায় স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় তাকে মেয়রের পদ থেকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করে। গত ১৪ মার্চ ১২ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও প্যানেল মেয়র-১ মোঃ সাইদুর রহমানকে ভারপ্রাপ্ত মেয়রের দায়িত্ব দেয়া হয়। পরে নির্বাচিত ও সাময়িক বরখাস্ত হওয়া মেয়র অধ্যক্ষ মো. নজরুল ইসলাম বরখাস্ত আদেশের বিরুদ্ধে হাইকোর্টে রীট মামলা দায়ের করলে হাইকোর্ট বরখাস্ত আদেশ বাতিল করে তাকে ¯^পদে বহালের জন্য স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের সচিবকে নির্দেশ দেন। এর প্রেক্ষিতেই তিনি রবিবার মেয়রের দায়িত্বভার গ্রহণ করেন।

আপনার মতামত লিখুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *