Sharing is caring!

‘চাঁপাই দর্পণ’ এ সংবাদ প্রকাশ : টাকা ফিরিয়ে পেল

শাহনেয়ামতুল্লাহ কলেজের হাজার হাজার শিক্ষার্থী

♦ স্টাফ রিপোর্টার 

চাঁপাইনবাবগঞ্জের শাহনেয়ামতুল্লাহ কলেজের বর্তমান ও প্রাক্তন অধিকাংশ শিক্ষার্থীর কাছ থেকে জোরপূর্বক ও বাধ্যতামূলকভাবে আদায় করা ৪০ বছর পূর্তির নামে আদায় করা টাকা ফেরত পাচ্ছে কলেজের হাজার হাজার শিক্ষার্থী। আর এই টাকা ফেরত পেয়ে উচ্ছসিত ও আনন্দিত শিক্ষার্থীরা। চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা থেকে প্রকাশিত ‘দৈনিক চাঁপাই দর্পণ’সহ বিভিন্ন গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশের জের ধরে জেলা প্রশাসক ও শাহনেয়ামতুল্লাহ কলেজের পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি এ জেড এম নূরুল হকের সরাসরি হস্তক্ষেপে বাধ্যতামূলক ৪০ বছর পূর্তির এই টাকা ফিরিয়ে পেতে শুরু করেছেন শাহনেয়ামতুল্লাহ কলেজের শিক্ষার্থীরা। মঙ্গলবার সকালে শাহনেয়ামতুল্লাহ কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ মো. শরিফুল ইসলাম কলেজের শিক্ষক মিলনায়তনে ৪০ বছর পূর্তির নামে আদায়কৃত টাকা কলেজের শিক্ষার্থীদের হাতে তুলে দিয়ে বিতরণ কার্যক্রম শুরু করেন। এসময় শাহনেয়ামতুল্লাহ কলেজের স্টাফ কাউন্সিলের সেক্রেটারী মাহফুজুল হাসান ডন, ব্যবস্থাপনা বিভাগের প্রভাষক মো. নূরুল ইসলাম উপস্থিত ছিলেন। টাকা বিতরণ কার্যক্রমে কলেজের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা সহযোগিতা করেন। কলেজ পরিচালনা পর্ষদের সিদ্ধান্ত মোতাবেক এবং জেলা প্রশাসক ও কলেজ পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি জেলা প্রশাসক মহোদয়ের নির্দেশে পর্যায়ক্রমে ৪০ বছর পূর্তির জন্য দেয়া ২ হাজার ৮’শ শিক্ষার্থীকে টাকা ফেরত দেয়ার কাজ সম্পন্ন করা হবে বলে জানিয়েছেন শাহনেয়ামতুল্লাহ কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ মো. শরিফুল ইসলাম। উল্লেখ্য, ২০১৮ সালের ১৮ই ডিসেম্বর এইচ.এস.সি পরীক্ষার ফরম পূরণে অতিরিক্ত অর্থ আদায় এবং এবছর ১২ মার্চ শাহনেয়ামতুল্লাহ কলেজের ৪০ বছর পূর্তির নামে বর্তমান শিক্ষার্থীদের ৬’শ ও প্রাক্তন শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে ৮’শ টাকা আদায় করে অর্থ লুটপাটসহ বিভিন্ন অনিয়মের চিত্র তুলে ধরে সংবাদ প্রকাশিত হয় ‘দৈনিক চাঁপাই দর্পণ’ পত্রিকায়। প্রায় ২ হাজার ৭৯৯ জন শিক্ষার্থীর কাছ থেকে প্রায় ২০ লক্ষ টাকা আদায় করা হয়। প্রেক্ষিতে তাৎক্ষনিক জেলা প্রশাসক ও শাহনেয়ামতুল্লাহ কলেজ পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি অবৈধভাবে ৪০ বছর পূর্তি বাতিল এবং আদায় করা টাকা ফেরতের নির্দেশ দেন জেলা প্রশাসক এ জেড এম নূরুল হক। জেলা প্রশাসকের যুগান্তকারী এই পদক্ষেপ গ্রহণের জন্য কৃতজ্ঞতা, অভিনন্দন ও সুধাবাদ জানিয়েছেন জেলার হাজারও শিক্ষার্থীর পরিবার, শিক্ষানুরাগী ও সচেতন মহল। এছাড়া, শাহনেয়ামতুল্লাহ কলেজের বিভিন্ন অনিয়ম ও দূর্ণীতির সংবাদ প্রকাশিত হওয়ার পর সকল অনিয়মের তদন্ত চালানো হচ্ছে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে। শাহনেয়ামতুল্লাহ কলেজের বিভিন্ন অনিয়ম দূর করে একটি স্বচ্ছ ও দূর্ণতিমুক্ত কলেজ গড়তে বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণ করেছেন জেলা প্রশাসক ও শাহনেয়ামতুল্লাহ কলেজের সভাপতি এ জেড এম নূরুল হক।

আপনার মতামত লিখুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *