Sharing is caring!

shibganj-pic-04শিবগঞ্জ প্রতিনিধি \ চাঁপাইনবাবগঞ্জ-১ (শিবগঞ্জ) আসনের সংসদ সদস্য, পরিবেশ ও বন মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থানীয় কমিটির সদস্য মো. গোলাম রাব্বানী বলেছেন, বাংলার রাখাল রাজা, ন্যায়ের পথে নির্ভিক জননেতা, হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি, বাংলাদেশের মহান স্থপতি, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্ম না হলে আমরা এই ¯^াধীন দেশ পেতাম না। জাতির জনকের কারণে আমরা এই ¯^াধীন বাংলা পেয়েছি। কিন্তু ১৯৭৫ সালের ১৫ই আগস্ট বাঙালী জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, বঙ্গমাতা মহিয়সী নারী বেগম ফজিলাতুন্নেসা মুজিব, ছেলে শেখ কামাল, শেখ জামাল, শেখ রাসেল, পুত্র বধু সুলতানা কামাল, রোজি জালামসহ পরিবারের সদস্যদের নির্মম হত্যার মধ্যদিয়ে বাঙালি জাতির কলঙ্কজনক অধ্যায় রচিত হয়। সেই শোকের দিন ১৫ আগস্ট। জাতির জনকের হত্যাকান্ডে কলঙ্কিত হয়েছে এই দেশ। সারাদেশে নেমে এসেছে জমকালো রাত। হায়েনাদের হামলায় থমকে দাঁড়িয়ে গেছে এই জাতি। বাঙালি জাতির জীবনের সবচেয়ে বেদনাদায়ক এই আগষ্ট মাস। সোমবার বিকেলে কানসাট পুখুরিয়ায়স্থ শেখ রাসেল মিলনায়তনে উপজেলা শাখা আওয়ামীলীগের আয়োজিত শোক সভার মিলাদ মাহফিলে এসব কথা বলেন। তিনি আরো বলেন, জাতির পিতার হত্যাকান্ডের পর বিভিন্ন সামরিক শাসকেরা জাতির পিতার হত্যাকান্ডের বিচার নিয়ে বিভিন্ন টালবাহানা করেছে। ইনডেমনিটি বিলের মত কালো আইন পাশ করে জাতির পিতা হত্যার বিচারের পথ রুদ্ধ করা হয়েছে। হত্যাকারিদের বিভিন্ন দেশের দূতাবাসে এবং দেশের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে চাকুরি দিয়ে পুরষ্কৃত করেছে। সত্যের চাকা ঘুরতে শুরু করায় মহামান্য আদালতে সুদীর্ঘ ৩৫ বছর পরে এই হত্যকান্ডের রায় ঘোষণা করে। আর ইতিমধ্যে কয়েকজন দেশদ্রোহি, মানবতার ঘাতক দালাল, যুদ্ধাপরাধী, জাতির জনকের হত্যকারিদের ফাঁসির মাধ্যমে রায়ের আংশিক কার্যকর হয়েছে। বঙ্গবন্ধু হত্যকারি এখনো যারা দেশের বাইরে পলাতক রয়েছে সেসব খুনিদের ইন্টারপোলে মাধ্যমে দেশে ফিরিয়ে এনে পররাষ্ট্রমন্ত্রী এবং আইনমন্ত্রীর নিকট ওই সব হত্যাকারিদের বিচারের রায় কার্যকর করার আহবান জানান। এসময় আরো বক্তব্য রাখেন, উপজেলা শাখা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক এ্যাড. আতাউর রহমান, সাংগঠনিক সম্পাদক শামসুর রহমান বাবু, সাধারণ সম্পাদক কারীবুল হক রাজিন, কানসাট ইউনিয়ন শাখার সভাপতি বেনাউল ইসলাম, দাইপুখুরিয়া ইউনিয়ন শাখার সভাপতি আজমল হক বাদশা প্রমূখ। এর আগে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে ফুলের মালা দিয়ে এক মিনিট নিরাবতা পালন করা হয়। এছাড়া শোক দিবস উপলক্ষে উপজেলার ৫২টি আলিয়া মাদ্রাসার অধ্য¶-সুপার, আলেম, ২৮টি হাফেজিয়া ইসলামীয়া মাদ্রাসার শি¶ক ও হাফেজরা কোরআন তেলাওয়াত করেন।

আপনার মতামত লিখুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *