Sharing is caring!

প্রেস বিজ্ঞপ্তি \ রাজশাহী দূর্গাপুর থানার অভ্যন্তরে ব্যবসায়ীকে প্রহারের ঘটনার এক সপ্তাহ অতিবাহিত হলেও দায়ী দূর্গাপুর থানার ওসির বিরুদ্ধে এখন পর্যন্ত কোন শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয় নি। ওসির বিরুদ্ধে তদন্ত রিপোর্ট জমা দেবার পরও রহস্যজনক কারনে রাজশাহী জেলা পুলিশ সুপার নীবর ভ‚মিকা পালন করছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। শনিবার দুপুরে রাজশাহী প্রেসক্লাব মিলনায়তনে এক সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা জানান নির্যাতিত ব্যবসায়ী টুকুলের সহধর্মিনী স্কুল শিক্ষিকা সেলিনা আফরোজ রুনা ও বড়বোন ঝর্ণা বেগম। এসময় তারা আগামী ৭ দিনের মধ্যে অভিযুক্ত ওসির বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানান। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে তারা বলেন, গত ০৬ অক্টোবর শুক্রবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে শালিসের নাম করে দূর্গাপুর থানার ওসি রুহুল আমিন ব্যবসায়ী সানোয়ার হোসেন টুকুলকে থানায় ডেকে নিয়ে আসে। এসময় পুলিশের উপস্থিতিতে দূর্গাপুর পৌর আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক আজাহার উদ্দীন ও তার দলবল ব্যবসায়ী সানোয়ার হোসেন টুকুলকে বেদম প্রহার করে তার হাত ভেঙ্গে দেয়। এসময় দূর্গাপুর থানার ওসি নির্বিকার থাকে। ঘটনাটি জানাজানি হওয়ার পর দূর্গাপুর থানাসহ পুরো রাজশাহী জেলায় তোলপাড় শুরু হয়। পরিস্থিতি সামাল দিতে রাজশাহী জেলা পুলিশ সুপার তাৎক্ষনিক ভাবে সহকারী পুলিশ সুপার পুঠিয়া সার্কেলকে ঘটনাটি তদন্তের নির্দেশ দেন। সহকারী পুলিশ সুপার খন্দকার খালেক বিন নূর ঘটনাটি তদন্ত করে দূর্গাপুর থানার ওসির বিরুদ্ধে গাফলতির প্রমান পান। সহকারী পুলিশ সুপার জানিয়েছেন, আমার তদন্ত কাজ সম্পন্ন করে রাজশাহী জেলা পুলিশ সুপারকে তদন্ত রিপোর্ট জমা দিয়েছি। শাস্তিমূলকব্যবস্থা নেয়ার দায়িত্ব জেলা পুলিশ সুপারের। সংবাদ সম্মেলনে ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, আগামী ৭ দিনের মধ্যে ব্যবস্থা না নেয়া হলে ওসি রুহুল আমীনের বিরুদ্ধে হাইকোটে রিট পিটিশন দাখিল করা হবে। এসময় ভুক্তভোগী টুকুল জানান, ওসি রুহুল আমীন ও তার সাঙ্গপাঙ্গরা অব্যহতভাবে হুমকী দিয়ে যাচ্ছেন। ওসি তাকে মিথ্যা মামলা দিয়ে সায়েস্তা করবেন বলেও হুকমী প্রদান করছেন। এ অবস্থায় টুকুল ও তার পরিবার চরম নিরাপত্তাহীনতার মধ্যে বসবাস করছেন। তিনি তার ও পরিবারের নিরাপত্তা দাবী করেছেন। এব্যাপারে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করা হয়েছে সংবাদ সম্মেলনে।

আপনার মতামত লিখুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *