Sharing is caring!

30চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি \ চাঁপাইনবাবগঞ্জের রহনপুর পৌরসভার প্যানেল মেয়র মোস্তাফিজুর রহমান জেম এর বিরুদ্ধে রহনপুর স্টেশন হঠাৎপাড়া এলাকার রেজাউল করিমের মেয়ে মোসাঃ চাঁদনী বেগম নামের এক নারীর শীলনতাহানীর অভিযোগে আদালতে হওয়া মামলার আসামী গ্রেফতার ও শাস্তির দাবিতে সংবাদ সম্মেলন করেছে মামলার বাদি চাঁদনী বেগম। রবিবার রাতে চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা প্রেসক্লাবে এই সংবাদ সম্মেলন করে চাঁদনী বেগম ও তার পরিবার। এসময় চাঁদনীর অভিভাবক ফুফু মোসাঃ শরিফা বেগম ও আত্মীয় নাজমা বেগম উপস্থিত ছিলেন। সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা প্রেসক্লাবের বিভিন্ন মিডিয়াকর্মীগণ। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে চাঁদনী বেগম বলেন, রহনপুর পৌরসভার প্যানেল মেয়র মোস্তাফিজুর রহমান জেম একজন দুঃচরিত্র, নারী লোভী, মদখোর ও ফেন্সিডিল ব্যবসায়ী। মোস্তাফিজুর রহমান জেম বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন লোভ লালসা দেখিয়ে প্রেম ভালোবাসার ভান করে যৌন মিলনের চেষ্টা করে। তার এই কু-প্রস্তাব ঘুণাভরে প্রত্যাখ্যান করলে আমার ক্ষতি করার জন্য বিভিন্ন ষড়যন্ত্র ও প্রাণে মেরে ফেলার হুমকী দিয়ে ভয়ভীতি দেখায়। তার প্রস্তাবে রাজি না হলে এ্যাডিস মারারও হুমকী দেয় জেম। আমার জীবনের নিরাপত্তার কথা ভেবে আমার ফুফু শরিফা বেগমের বাড়িতে থেকে লেখাপড়া করতে থাকি। এঅবস্থায় গত ০৩/০৫/২০১৬ইং তারিখ ফুফু শরিফা বেগম শারিরিক অসুস্থতার কারণে রহনপুর সরকারি উপজেলা ¯^াস্থ্য কেন্দ্রে ভর্তি থাকার সুযোগে নারী লোভী মোস্তাফিজুর রহমান জেম আনুমানিক রাত পৌনে ১১টার দিকে অস্ত্র-সস্ত্রসহ জোরপূর্বক বাড়িতে প্রবেশ করে। অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে বিবস্ত্র করে ধর্ষণ করার চেষ্টা করে। এসময় আমার চিৎকারে আশপাশের লোকজন ছুটে আসলে জেম পালিয়ে যায়। আমি অসহায় গরীব পরিবারের মেয়ে হওয়ায় গোমস্তাপুর থানায় এবিষয়ে মামলা দায়েরের জন্য গেলে থানায় মামলা গ্রহণ না করে আদালতে মামলা করার পরামর্শ দেয় পুলিশ। অবশেষে বিজ্ঞ নারী ও শিশু নির্যাতন দমণ ট্রাইব্যুনাল(১) আদালতে গত ২২/০৫/১৬ইং তারিখ মামলা দায়ের করি। মামলা নম্বর ২৪, জি.আর নং-১৪১/১৬(গোমস্তাপুর)। এঘটনায় স্থানীয়সহ বিভিন্ন পত্রিকায় সংবাদ প্রকশিতও হয়। বিজ্ঞ আদালত মামলাটি গোমস্তাপুর থানায় তদন্তের জন্য প্রেরনও করে। মামলার পর আসামী মোস্তাফিজুর রহমান জেম ও তার সন্ত্রাসী বাহিনীর লোকজন আমাকে এবং আমার পরিবারের লোকজনকে মামলা তুলে নেয়ার জন্য বিভিন্নভাবে হুমকী দেয়া অব্যাহত রেখেছে এবং তার অপরাধ ধামাচাপা দিতে আমার এবং আমার পরিবারের সম্পর্কে বিভিন্ন মিথ্যা অপবাদ দিয়ে প্রচারণা চালাচ্ছে। চাঁদনী আরো বলেন, অজ্ঞাত কারণে অপরাধ করেও মামলার আসামী ধর্ষণ চেষ্টাকারী মোস্তাফিজুর রহমান জেম প্রকাশ্যে ঘুরে বেড়ালেও পুলিশ কোন ব্যবস্থা নিচ্ছে না। ফলে আমার এবং আমার পরিবারের লোকজন আতংকিত অবস্থায় দিনাতিপাত করছি। সংবাদ সম্মেলনে আরও বলা হয়, ইতিপূর্বের সে অবৈধ সম্পর্কের মাধ্যমে কয়েকজন মেয়ের ¯^র্বনাশ করে ¯^ামী ছাড়া করে জীবন নষ্ট করেছে। দুঃচরিত্র, নারী লোভী, মদখোর ও ফেন্সিডিল ব্যবসায়ী মোস্তাফিজুর রহমান জেম এর বিরুদ্ধে কঠোর আইনী ব্যবস্থা নিয়ে চাঁদনী ও তার পরিবারের নিরাপত্তার জোর দাবি জানানো হয় সংবাদ সম্মেলনে।

আপনার মতামত লিখুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *