Sharing is caring!

নওগাঁ প্রতিনিধি \ নওগাঁয় যৌতুকের দাবিতে বিয়ের মাত্র দুই মাসের মাথায় ¯^ামীর পরিবারের অমানষিক নির্যাতনের শিকার হাবিবা খাতুন নামে এক গৃহবধূ মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ে দীর্ঘ আট মাস পর মারা গেছেন। মঙ্গলবার সকাল সাড়ে আটটার দিকে নওগাঁ সদরের কালীতলা মহল্লার গৃহশি¶ক হাফিজুর রহমানের বাড়িতে মারা যান। এ ঘটনায় থানায় একটি মামলা দায়ের করা হলে ¯^ামী একই মহল¬ার শ্বশুর শামসুজ্জোহা খান বিদ্যুৎ ও ¯^ামী তামভি হাসান অভিকে গ্রেপ্তার করা হয়। তবে তার শ্বাশুড়িকে আজও গ্রেপ্তার করতে পারেনি পুলিশ। জানা গেছে, নওগাঁ সদরের কালীতলা মহল্লার গৃহশি¶ক হাফিজুর রহমানে এর মেধাবী মেয়ে হাবিবা খাতুন। হাবিবা নওগাঁ সরকারি বালিকা বিদ্যালয়ের এসএসসি পরী¶ার্থী ছিলেন। পরী¶ার ৬ মাস আগে ভালোবেসে একই এলাকার মহল্লার শামসুজ্জোহা খান বিদ্যুতের ছেলে তামভি হাসান অভির বিয়ে করে। বিয়ের কিছুদিন পর থেকেই বাবার বাড়ী থেকে ২ লাখ টাকা নিয়ে আসতে বলা হয় হাবিবাকে। কিন্তু হাবিবার গৃহশি¶ক হাফিজুর রহমানের প¶ে তা দেওয়া কোনভাবেই সম্ভব ছিল না। গত বছর ৩০ নভেম্বর হাবিবাকে যৌতুকের দাবিতে মারপিট করে অভির ও তার পরিবার। তাদের মারপিটে হাবিবার মাথা ও পিঠে ¶তের সৃষ্টি হয়েছে। খাবার দেওয়া হয় নাক দিয়ে, আর কোন কথাও বলতে পারেনি হাবিবা। এরপর থেকে নিথর দেহ পড়ে থাকে বিছানায়। এমতাবস্থায় মঙ্গলবার সকালে তার মৃত্যু হয়। নওগাঁ সদর মডেল থানার ওসি তরিকুল ইসলাম ঘটনার সত্যতা ¯^ীকার করে বলেন, সংবাদ পেয়ে নিহতের মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। মামলার অন্য আসামীকে গ্রেফতারের জোর প্রচেষ্টা চলছে।

আপনার মতামত লিখুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *