Sharing is caring!

জেলা পুলিশকে অভিভাবক ও প্রার্থীদের কৃতজ্ঞতা

নিজ মেধা ও যোগ্যতায় চাঁপাইনবাবগঞ্জে

৪৪ জনের পুলিশে চাকুরি

♦ স্টাফ রিপোর্টার

কোন আর্থিক লেনদেন বা কারো সুপারিশ ছাড়াই সম্পূর্ণ নিজ মেধা ও যোগ্যতায় চাঁপাইনবাবগঞ্জে পুলিশ কনস্টেবলে চাকুরী হয়েছে মোট ৪৪ জনের। এর মধ্যে ২২ জন নারী ও ২২ জন পুরুষ। সকল পরীক্ষায় পুরুষদের মধ্যে প্রথম হয়েছে একজন নির্মাণ শ্রমিকের সন্তান এবং নারীদের মধ্যে প্রথম হয়েছে জেলার একজন কাঁসা ব্যবসায়ীর মেয়ে। মঙ্গলবার বিকেলে চাঁপাইনবাবগঞ্জ পুলিশ লাইন্সে এক সংবাদ সম্মেলনে গত ২৬ জুন অনুষ্ঠিত জেলায় পুলিশ কনস্টেবল নিয়োগ পরীক্ষার ফলাফল ঘোষণা কালে এসব তথ্য উপস্থাপন করেন, পুলিশ সুপার টি.এম মোজাহিদুল ইসলাম বিপিএম-পিপিএম। এসময় উপস্থিত ছিলেন, চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মাহবুব আলম খান পিপিএম, রাজশাহী জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সুমন দেব ও নওগাঁ জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আশরাফুল ইসলাম। চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলায় ৪৪জন পুলিশ কনস্টেবলের নিয়োগ পরীক্ষার ফলাফল ঘোষণা করেন, রাজশাহী জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সুমন দেব। ফলাফল ঘোষণাকালে তিনি চাঁপাইনবাবগঞ্জ পুলিশ সুপার টি.এম মোজাহিদুল ইসলাম বিপিএম-পিপিএম এর নিয়োগ পরীক্ষায় স্বচ্ছতা, নিরপেক্ষতা ও সততার ভূয়সী প্রশংসা করেন। স্বচ্ছতা, নিরপেক্ষতা ও সততার ভিত্তিতে পুলিশ কনস্টেবল নিয়োগ পরীক্ষা সম্পন্ন করা এবং সাধারণ পরিবারের সন্তানরা চাকুরীতে চুড়ান্ত হওয়ায় আন্তরিক অভিনন্দন ও কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন অভিভাবক ও জেলার বিভিন্ন স্তরের সাধারণ মানুষ। নানা চ্যালেঞ্জ মোবাবেলা করে স্বচ্ছতা, নিরপেক্ষতা ও সততার ভিত্তিতে পুলিশ কনস্টেবল নিয়োগ পরীক্ষা সম্পন্ন করায় জেলা পুলিশকে ‘দর্পণ’ পরিবারের পক্ষ থেকে আন্তরিক অভিনন্দন ও ধন্যবাদ জানিয়েছেন ‘দৈনিক চাঁপাই দর্পণ’ এর সম্পাদক ও ‘দর্পণ’ অনলাইন টিভি’র ব্যবস্থাপনা পরিচালক আশরাফুল ইসলাম রঞ্জু। এসময় পুলিশ সুপার টি.এম মোজাহিদুল ইসলাম বিপিএম-পিপিএম বলেন, কোন আর্থিক লেনদেন বা কারো সুপারিশ ছাড়াই সম্পূর্ণ নিজ মেধা ও যোগ্যতায় চাঁপাইনবাবগঞ্জে পুলিশ কনস্টেবলে চাকুরী হয়েছে মোট ৪৪ জনের। এর মধ্যে ২২ জন নারী ও ২২ জন পুরুষ। অপেক্ষমান তালিকায় রয়েছেন ১০ জন। সকল পরীক্ষায় পুরুষদের মধ্যে প্রথম হয়েছেন জেলা একজন নির্মাণ শ্রমিকের সন্তান এবং নারীদের মধ্যে প্রথম হয়েছেন একজন কাঁসা ব্যবসায়ীর মেয়ে। প্রাথমিক চুড়ান্ত ফলাফলে মুক্তিযোদ্ধা কোটায় ২ জন নারী, অপেক্ষমান ৩ জন। মোট চুড়ান্ত নারী ২২ জন, অপেক্ষমান ৩ জন। উপজাতী কোটায় চুড়ান্ত ১জন, অপেক্ষমান ১ জন। পুলিশ পোষ্য কোটায় চুড়ান্ত ২ জন, অপেক্ষমান ১ জন। মুক্তিযোদ্ধা পুরুষ কোটায় চুড়ান্ত ৭ জন, অপেক্ষমান ৩ জন। সাধারণ পুরুষ কোটায় চুড়ান্ত ১২ জন, অপেক্ষমান ২ জন। মোট চুড়ান্ত ৪৪ জন, অপেক্ষমান ১০জন। তিনি বলেন, ৪৪ জন পুলিশ কনস্টেবল নিয়োগ পরীক্ষায় চুড়ান্ত প্রার্থীদের মধ্যে ১১টি পরিবারের সন্তানদের মেডিকেল পরীক্ষার জন্য যে ৩ হাজার টাকা খরচ হবে, সেটা দেয়ারও স্বচ্ছলতা নেই। তাই এই ১১ জনের মেডিকেল খরচের টাকা চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে খরচেরও সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। তিনি বলেন, গত পুলিশ কনস্টেবল নিয়োগ পরীক্ষায় স্বচ্ছতার ভিত্ততে সম্পূর্ণ মেধা, যোগ্যতায় ১’শ ১৭জনকে চাকুরী দেয়া হয়েছিলো। তিনি আরও বলেন কোন অভিভাবক কোথাও কোন আর্থিক লেনদেন করেন নি। ইতোমধ্যেই টাকা নিয়ে চাকুরী দেয়ার প্রতারণার অভিযোগে ২জনকে গ্রেফতারও করা হয়েছে। উল্লেখ্য, মাত্র ১০৩ টাকা খরচ করে ২৬ জুন বুধবার জেলা পুলিশ লাইনস্ মাঠে পুলিশের কনস্টেবল পদে নিয়োগ পরীক্ষায় পুলিশের কনস্টেবল পদে নিয়োগ দেয়া হবে চাঁপাইনবাবগঞ্জে, এমন প্রতিশ্রæতি দিয়েছিলেন চাঁপাইনবাবগঞ্জের পুলিশ সুপার টি.এম মোজহিদুল ইসলাম বিপিএম-পিপিএম। স্বচ্ছতা ও জবাবদীহিতা নিশ্চিত করার লক্ষে, দুর্নীতিমুক্ত বাংলাদেশ ও চাঁপাইনবাবগঞ্জ গড়ার লক্ষ্য নিয়ে এবং নানা গুঞ্জনের দিকে কান না দিতে, চাঁপাইনবাবগঞ্জে ২৬ জুন পুলিশ নিয়োগ পরীক্ষায় স্বচ্ছতার ভিত্তিতে উত্তীর্ণ প্রার্থীদের কনস্টেবল পদে নিয়োগ দেয়ার প্রতিশ্রæতি ব্যক্ত করেছিলেন জেলার জঙ্গী-সন্ত্রাস, মাদক, ইভটিজিং নির্মূল, নারী নির্যাতন প্রতিরোধসহ বিভিন্ন কাজে প্রশংসা পাওয়ার যোগ্যতা অর্জনকারী চাঁপাইনবাবগঞ্জের পুলিশ সুপার টি.এম মোজহিদুল ইসলাম বিপিএম-পিপিএম। দেয়া প্রতিশ্রæতি মোতাবেক পুলিশের কনস্টেবল পদে নিয়োগ পরীক্ষা সম্পন্নও করেছেন তিনি। এজন্য আবারও প্রশংসা পাওয়ার দাবীদার হলেন জেলার পুলিশ সুপার টি.এম মোজহিদুল ইসলাম বিপিএম-পিপিএম। 

আপনার মতামত লিখুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *