Sharing is caring!

Chapai Faruk চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি \ চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর উপজেলার ইসলামপুর হায়াতমোড়ের মোঃ সাইদুর রহমানের ছেলে মোঃ ফারুক আহম্মেদ (২৬) এর বিরুদ্ধে প্রতারণার অভিযোগ হয়েছে চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর মডেল থানায়। সাংবাদিক নামধারী এই প্রতারকের বিরুদ্ধে ১ লক্ষ টাকা প্রতারণা এবং পাওনাদারকে উল্টো টাকা না দিয়ে মাদক ও অস্ত্র দিয়ে ফাঁসানোর চেষ্টার অভিযোগটি করেছেন শহরের আলীনগরস্থ মেসার্স জান্নাত সুপার রাইস মিলের ¯^ত্বাধিকারী শহরের শান্তির মোড় মৃধাপাড়ার মৃত মতিউর রহমানের ছেলে মোঃ মাসুদ রানা সুমন (২৯)। অভিযোগে জানা গেছে, প্রতারক ফারুক মেসার্স জান্নাত সুপার রাইস মিলে ম্যানেজারের চাকুরী করতো। চাকরীরত অবস্থায় গরু ব্যবসার কথা বলে মেসার্স জান্নাত সুপার রাইস মিলের ¯^ত্বাধিকারী মোঃ মাসুদ রানা সুমনের কাছ থেকে ৩ লক্ষ টাকা নেয়। টাকা ফেরত দেয়া নিয়ে ফারুকের সাথে মাসুদের সম্পর্কের অবনতি হয়। পরবর্তীতে ২ লক্ষ ফেরত দিলেও এখন পর্যন্ত ১ লক্ষ টাকা ফেরত না দিয়ে মাসুদ রানা সুমনকে তার ব্যবসা প্রতিষ্ঠান এবং বাড়িতে মাদক রেখে আইনশৃক্সখলা বাহিনীর হাতে ধরিয়ে দিয়ে হয়রানীর ষড়যন্ত্র করতে থাকে। কিন্তু অজ্ঞাতভাবে ষড়যন্ত্রের বিষয়টি ফাঁস হয়ে যায়। টাকা চাইতে গেলে এবং ষড়যন্ত্রের কথা ফাঁস হওয়ায় ফারুক ক্ষিপ্ত হয়ে মাসুদকে প্রানণাশের হুমকীসহ বিভিন্নভাবে হুমকী দিতে থাকে বলে জানায় মাসুদ। অবশেষে মাসুদ রানা সুমন চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর মডেল থানায় গত ৩০ জুন লিখিতভাবে অভিযোগ দায়ের করেছেন বলে নিশ্চিত করেছেন সদর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মাজহারুল ইসলাম। প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণে তৎপর রয়েছে থানা পুলিশ বলেও জানিয়েছেন তিনি। সংবাদ সংগ্রহের কাজে কোন সময় দেখতে না পাওয়া গেলেও সাংবাদিক নামধারী প্রতারক বিভিন্ন সময়ে বিভিন্নস্থানে সাংবাদিক পরিচয় দিয়ে মাসোহারা আদায়সহ বিভিন্ন দুস্কৃতিকারীদের মামলা থেকে ছাড়িয়ে নিতে তদ্বিরসহ বিভিন্নস্থানে প্রতারণার অভিযোগ রয়েছে। এখানেই শেষ নয়, প্রতারক ফারুক চাঁপাইনবাবগঞ্জ থেকে প্রকাশিত ‘দৈনিক চাঁপাই দর্পণ’ পত্রিকায় বিজ্ঞাপন নিয়ে ¯^ল্পদিন কাজ করে মোটা অংকের বিজ্ঞাপনের টাকা আত্মসাৎ করে এবং প্রতারণা করে। বর্তমান সময় পর্যন্ত সে টাকা পরিষোধ না করে বিভিন্নস্থানে বিভিন্ন ধরণের প্রতারণামূলক কথা বলে বেড়াচ্ছে বলেও জানা গেছে। পেশাগত দায়িত্ব এড়িয়ে সাংবাদিক নামধারী এই প্রতারকের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়ার দাবি জানিয়েছেন ভুক্তভোগী মাসুদ ও জেলার বিভিন্ন মিডিয়াকর্মীগণ।

আপনার মতামত লিখুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *