Sharing is caring!

Photos-02চাঁপাইনবাবগঞ্জ সংবাদদাতা \ ফরমালিনের মিথ্যা অযুহাতে অন্যায়ভাবে চাঁপাইনবাবগঞ্জসহ এ অঞ্চলের আমচাষী ও আম ব্যবসায়ীদেরকে ষড়যন্ত্র করে আর্থিকভাবে মারাত্মক ক্ষতিগ্রস্থ করা হয়েছে। একইভাবে এ মৌসুমে আমচাষী এবং আম ব্যবসায়ীদের আম বাজারজাত করনের সময় বেঁধে দেওয়ার ফলে আমচাষী ও আম ব্যবসায়ীগন মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছেন। সোমবার সকালে এগ্রো প্রডাক্ট বিজনেস প্রমোশন কাউন্সিল, বাণিজ্য মন্ত্রণালয় এর সার্বিক সহযোগিতায়, বাংলাদেশ ম্যাংগো প্রডিউসার মার্চেন্টস এ্যাসোসিয়েশন এর উদ্যোগে দিনব্যাপী “আম ও আমজাত পণ্যের রপ্তানীর সুযোগ বৃদ্ধি” বিষয়ক কর্মশালায় এসব কথা বলেন চেম্বার সভাপতি মোঃ আব্দুল ওয়াহেদ। বাংলাদেশ ম্যাংগো প্রডিউসার মার্চেন্টস এ্যাসোসিয়েশন এর চাঁপাইনবাবগঞ্জ শাখার সভাপতি মোঃ মনিরুল ইসলামের সভাপতিত্বে কর্মশালায় প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন চাঁপাইনবাবগঞ্জ চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাষ্ট্রির সভাপতি জনাব মোঃ আব্দুল ওয়াহেদ। বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন চেম্বারের সিনিয়র সহ-সভাপতি মোঃ রাসিদুল হাসান ও সহ-সভাপতি আলহাজ্ব মোঃ আব্দুল হান্নান হানু, কর্মশালায় আরো উপস্থিত ছিলেন জেলার বিশিষ্ট আম বিশেষজ্ঞগন এবং ৬০ জন আম উৎপাদনকারী ও আম ব্যবসায়ী। প্রধান অতিথি আব্দুল ওয়াহেদ বলেন, ফলের রাজা আম আর আমের রাজধানী চাঁপাইনবাবগঞ্জ বলে খ্যাত। দেশে যে পরিমান আম উৎপাদিত হয় তার সিংহ ভাগই চাঁপাইনবাবগঞ্জ-রাজশাহী অঞ্চলের এবং সবচেয়ে সুস্বাদু ও মিষ্টি আম এ অঞ্চলে উৎপাদিত হয়ে থাকে। গতবছর ফরমালিনের মিথ্যা অযুহাতে অন্যায়ভাবে চাঁপাইনবাবগঞ্জসহ এ অঞ্চলের আমচাষী ও আম ব্যবসায়ীদেরকে ষড়যন্ত্র করে মারাত্মকভাবে আর্থিক ক্ষতিগ্রস্থ করা হয়েছে। একইভাবে এ মৌসুমে আমচাষী এবং আম ব্যবসায়ীদের আম ভাঙ্গা ও বাজারজাত করনের সময় বেঁধে দেওয়ার ফলে আমচাষী ও আম ব্যবসায়ীগন মারাত্মকভাবে আর্থিক ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। এবছর প্রথম থেকেই দুর্যোগপূর্ণ আবহওয়া ও শিলাবৃষ্টির কারনে প্রচুর পরিমান আম নষ্ট হয়েছে। তার পরেও বিভিন্ন বাধা ও আবহাওয়াগত কারনে আমের সঠিক মূল্য থেকে ব্যবসায়ীরা বঞ্চিত হচ্ছে। গত কয়েক বছরের তুলনায় এবার আমের দাম প্রায় অর্ধেক। এই কারনে আম চাষী ও ব্যবসায়ীরা আর্থিক ক্ষতির কারনে পথে বসার উপক্রম হয়েছে। আমরা যতই সভা সেমিনার করিনা কেন, এই ধরনের ঘটনা নিয়মিত ঘটতে থাকলে আমচাষী ও ব্যবসায়ীরা এ ব্যবসা ও উৎপাদন থেকে মুখ ফিরিয়ে নিবে। তখন বিদেশ থেকে আম আমদানী করে দেশের চাহিদা মেটাতে হবে। চেম্বার সভাপতি আরও বলেন এ ধরনের ষড়যন্ত্র ও অবিচার বন্ধ না করলে জেলাবাসীসহ অত্র অঞ্চলের আমচাষী ও ব্যবসায়ীদের নিয়ে বৃহত্তর আন্দোলন গড়ে তোলা হবে। তিনি বলেন, আমাদের এ অঞ্চলের কোন আমচাষী আমে ফরমালিন বা কোন প্রকার ক্ষতিকর কেমিক্যাল ব্যবহার করেনা। যদি কেহ করে থাকে, প্রশাসন তার বিরুদ্ধে যথাযথ আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করতে পারবেন। চেম্বার সভাপতি মোঃ আব্দুল ওয়াহেদ বলেন, আমচাষী ও ব্যবসায়ীদের চলতি বছর ক্ষতির পরিমান প্রায় ৫’শত কোটি টাকা। তিনি আমচাষী ও ব্যবসায়ীদের ব্যবসা পরিচালনা করার জন্য বিনা সুদে ৩ বছর মেয়াদী ঋণ দেওয়ার দাবী জানান।

আপনার মতামত লিখুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *