Sharing is caring!

‘বঙ্গবন্ধুর জন্ম শতবার্ষিকী’
চাঁপাইনবাবগঞ্জে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব ঢাকা ম্যারাথন

♦ স্টাফ রিপোর্টার 

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব ঢাকা ম্যারাথন অনুষ্ঠিত হয়েছে চাঁপাইনবাবগঞ্জে। শনিবার সকালে সাড়ে ৫ হাজার প্রতিযোগী নিয়ে ম্যারাথন প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়।

ম্যারাতন প্রতিযোগিতা জেলা শহরের আ.আ.ম. মেসবাহুল হক বাচ্চু ডাক্তার স্টেডিয়াম থেকে শুরু হয়ে শহরের শান্তিমোড়, বিশ্বরোড, অক্ট্রয় মোড়, মহানন্দা বাস স্ট্যান্ড, আলীনগর রেলগেট, ফায়ার সার্ভিস, উদয়ন মোড়, নিউমার্কেট হয়ে শেষ হয় পুরাতন স্টেডিয়ামে। পরে প্রতিযোগীদের মধ্যে সেরা ১’শ জনকে সনদপত্র ও পুরস্কার প্রদান করা হয়।

এর আগে আ.আ.ম মেসবাহুল হক বাচ্চু ডাক্তার স্টেডিয়ামে ম্যারাতন দৌড়ের উদ্ধোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে এর উদ্বোধন করেন, লিবিয়ায় বাংলাদেশের নবনিযুক্ত রাষ্ট্রদূত মেজর জেনারেল এসএম শামীমুজ্জামান। জেলা প্রশাসক মঞ্জুরুল হাফিজের সভাপতিত্বে উদ্ধোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন, চাঁপাইনবাবগঞ্জ-২ (শিবগঞ্জ) আসনের সংসদ সদস্য ডা. শামিল উদ্দিন আহমেদ শিমুল, সংরক্ষিত মহিলা আসনের সংসদ সদস্য ফেরদৌসী ইসলাম জেসী, পুলিশ সুপার এএইচএম আব্দুর রকিব, চাঁপাইনবাবগঞ্জ পৌরসভার মেয়র মোহাম্মদ নজরুল ইসলাম, বীর মুক্তিযোদ্ধাগণ, জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেটগণ, সেনাবাহিনীর সদস্যগণ, রাজনৈতিক সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের নেতা-কর্মী, বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তা-কর্মচারী।

এসময় আরও উপস্থিত ছিলেন ম্যারাথন প্রতিযোগিতার চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা সমন্বয়ক মেজর মো. সাইদুল ইসলাম, নবাবগঞ্জ সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর ড. শংকর কুমার কুন্ডু, সাবেক অধ্যক্ষ প্রফেসর সুলতানা রাজিয়া, নবাবগঞ্জ সরকারি মহিলা কলেজের অধ্যক্ষ মনোয়ারা খাতুন, বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব রুহুল আমিন, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) একেএম তাজকির-উজ-জামান,

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মাহবুব আলম খান পিপিএম, বীর মুক্তিযোদ্ধাগণ, রাজনৈতিক সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের নেতা-কর্মী, বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তা-কর্মচারী, বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রধান ও শিক্ষার্থীরা। প্রতিযোগিতায় প্রথম হন আনসার সদস্য সেতাউর রহমান, দ্বিতীয় সেনাবাহিনীতে সদ্য যোগদানকৃত সদস্য সদর উপজেলার গোবরাতলা ইউনিয়নের বেহুলা গ্রামের রাইহান উদ্দিন ও তৃতীয় হন শিক্ষার্থী শামীম আলী।

উল্লেখ্য, ম্যারাথন শুরুর সাথে সাথে সকল প্রতিযোগী মোবাইলের ডাটা অন করে অ্যাপসের মাধ্যমে লোকেশান চালু করে প্রতিযোগিতায় অংশ নেয় এবং এভাবেই প্রথম ১০০ জন নির্ধারন করা হয়। ম্যারাথন প্রতিযোগিতায় জেলার বিভিন্ন শিক্ষা-প্রতিষ্ঠান ও দপ্তরের প্রায় সাড়ে ৫ হাজার অংশগ্রহণকারী সকল প্রতিযোগীকে সনদপত্র দেয়া হয়েছে।

আপনার মতামত লিখুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *