Sharing is caring!

বাগমারায় ৩ ভুয়া ম্যাজিষ্ট্রেট আটক

রাজশাহীর বাগমারায় বিস্কুট ফ্যাক্টরিতে চাঁদাবাজীর সময় ভুয়া ৩ ম্যাজিষ্ট্রেটকে আটক করে পুলিশে দিয়েছে এলাকার জনগন। বাগমারা থানার পুলিশ জনগনের হাত থেকে ভুয়া ম্যাজিষ্ট্রেটদের উদ্ধার করে থানায় নিয়ে গেছে। ওই ঘটনার পর থেকে এলাকার লোকজনের মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। জনগণের কাছে ম্যাজিষ্ট্রেট হিসেবে নিজেদের পরিচয় দিলেও পুলিশের কাছে তারা নিজেদের সংবাদ কর্মী বলে জানিয়েছেন। আটককৃতরা হলেন, দৈনিক রাজশাহীর আলো পত্রিকার সাংবাদিক আব্দুল জব্বার (৪৮), দৈনিক বজ্র সময় পত্রিকার সাংবাদিক রাশেদুল হক রাশেদ (৩৫), দৈনিক মাতৃজগত পত্রিকার সাংবাদিক লিয়াকত আলী (৩৮) আটককৃতদের থানায় জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে বলে বাগমারা থানার পুলিশ জানিয়েছেন। খোঁজ নিয়ে জানা যায়, আজ সোমবার দুপুরে উপজেলার মোহনগঞ্জ বাজারে আব্দুর রউফ নামের এক ব্যবসায়ীর বিস্কুট ফ্যাক্টরীতে উপরোক্ত ব্যক্তিগন নিজেদের ভ্রাম্যমান আদালতের ম্যাজিষ্ট্রেট পরিচয় দিয়ে পাঁচ হাজার টাকা চাঁদা দাবী করেন। ফ্যাক্টরীর মালিক তাদেরকে দুই হাজার টাকা, বিস্কুট কেক ও সিগারেট দিয়ে বিদায় করে দেন। তাদের আচরনে সন্দেহের সৃষ্টি হলে এলাকার লোকজন ছুটিতে আসা স্থানীয় এক জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেটকে বিষয়টি অবহিত করেন। জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট ঘটনারস্থলে পৌঁছে তাদের গাড়ী থামিয়ে চ্যালেন্স করে। ম্যাজিষ্টেটের কাছে নিজেদের সংবাদ কর্মী বলে পরিচয় দিলে সন্দেহের সৃষ্টি হয়। জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রট হুমায়ন কবির বিষয়টি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জাকিউল ইসলাম ও বাগমারা থানার ওসি আতাউর রহমানকে অবহিত করেন। ওসি আতাউর রহমান সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে তাদেরকে আটক করে থানায় নিয়ে আসেন। আটককৃতরা নিজেদের সাংবাদিক বলে পরিচয় দিলেও রাজশাহীর সংবাদ কর্মীরা তাদের চিনেন না বলে জানিয়েছেন। রাজশাহী সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি কাজী শাহেদ, সাংবাদিক সংস্থার সভাপতি রফিকুল ইসলাম, সাধারন সম্পাদক তরিকুল ইসলাম, দৈনিক আমাদের রাজশাহীর সম্পাদক অধ্যাপক আফজাল হোসেন, সোনার দেশের সম্পাদক হাসান মিল্লাত, অনলাইন নিউজ পোর্টাল পদ্মাটাইমস টোয়েন্টিফোর ডটকমের সম্পাদক বদরুল হাসান লিটন জানান, রাজশাহীতে ওই ধরনের কোন সাংবাদিক আছে বলে আমাদের জানা নেই। তারা ওই সকল সংবাদ কর্মীর বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়ার দাবি জানিয়েছেন। এই সংবাদ লেখা পর্যন্ত আটকৃতদের থানায় জিজ্ঞাবাদ চলছে বলে জানা গেছে। এ ব্যাপারে যোগাযোগ করা হলে বাগমারা থানার ওসি আতাউর রহমান বলেন, জনগন আটক করে পুলিশকে অবহিত করলে পুলিশ তাদেরকে থানায় নিয়ে আসে। বর্তমানে তাদের বিরুদ্ধে খোঁজখবর ও জিজ্ঞাবাদ চলছে বলে তিনি জানিয়েছেন।

আপনার মতামত লিখুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *