Sharing is caring!

বাবা-মায়ের কবরের পাশে চিরনিদ্রায় শায়িত গাইবান্ধার এমপি ডা. ইউনুস

♦ গাইবান্ধা প্রতিনিধি 

গাইবান্ধা-৩ (সাদুল্যাপুর-পলাশবাড়ী) আসনের আ.লীগের এমপি ডা. ইউনুস আলী সরকারকে পারিবারিক কবরস্থানে তার বাবা-মায়ের পাশে দাফন করা হয়েছে। ২৯ ডিসেম্বর রবিবার বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে সাদুল্যাপুরের ভাতগ্রাম স্কুল এন্ড কলেজ মাঠে চতুর্থ দফা জানাজা শেষে তার দাফন কাজ সম্পন্ন হয়। এরআগে, সকাল ১০টায় সংসদ ভবণের দক্ষিণ প্লাজায় ডা. ইউনুস আলীর তৃতীয় জানাজা হয়। রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পক্ষে শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয় ইউনুস আলীকে। এছাড়া কেন্দ্রীয় নেতারাও ইউনুস আলীকে শেষ শ্রদ্ধা জানান। ঢাকা থেকে হেলিকপ্টারযোগে ইউনুস আলীর লাশ আনা হয় রংপুর সেনানিবাসে। পরে লাশ নেয়া হয় রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে। সেখানে বাদ জোহর তৃতীয় জানাজা শেষে মরদেহ নেয়া হয় নিজ গ্রামের বাড়ি সাদুল্যাপুরের ভাতগ্রামে। এসময় স্থানীয় প্রশাসন, দলীয় নেতাকর্মী, বিভিন্ন শ্রেণি পেশা ছাড়াও সর্বস্তরের মানুষ ইউনুস আলীকে শেষ শ্রদ্ধা জানান। ইউনুস আলীকে একনজর দেখতে ভাতগ্রাম এলাকায় মানুষের ঢল নামে। বাদ আসর সেখানে ইউনুস আলীর শেষ জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। ইউনুস আলীর জানাজায় বিভিন্ন এলাকা থেকে আসা দলীয় নেতাকর্মীসহ সর্বস্তরের বিপুলসংখ্যক মানুষ অংশ নেন। জানাজায় ইমামতি করেন পাকুড়িয়া জামে মসজিদের ইমাম আলহাজ নুরুল আলম কাশেমি । জানাজার নামাজের পূর্বে ইউনুস আলীর স্মৃতি চারণ করেন দলীয় নেতাকর্মীসহ স্বজনরা। জানাজা শেষে ইউনুস আলীকে পারিবারিক কবরস্থানে বাবা-মায়ের পাশে দাফন করা হয়। উল্লেখ্য, গত ২৭ ডিসেম্বর (শুক্রবার) সকালে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন এমপি ডা. ইউনুস আলী সরকার। ৬৭ বছরের ডা. ইউনুস আলী সরকার দীর্ঘদিন ধরে ফুসফুসের ক্যান্সারসহ বিভিন্ন রোগে ভুগছিলেন। ওইদিন বাদ জুম্মা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় চত্তরে ইউনুস আলীর প্রথম জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। ডা. ইউনুস আলী সরকার গাইবান্ধা-৩ (সাদুল্যাপুর-পলাশবাড়ী) আসনে আ.লীগের নৌকা প্রতিকে দশম ও একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে এমপি নির্বাচিত হন। এরআগে, স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে অষ্টম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে প্রতিদ্বন্ধীতা করেন ইউনুস আলী। পেশায় চিকিৎসক ডা. ইউনুস আলী ঢাকার মেট্রোপলিটন মেডিকেল সেন্টারে (এনেসথিওলজিল্ট) খন্ডকালীন চিকিৎসক ছিলেন। তিনি স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয় সর্ম্পকিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য, বাংলাদেশ মেডিকেল এ্যাসোসিয়েশনের (বিএমএ) যুগ্ন মহাসচিব ছিলেন। ইউনুস আলী সরকার রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের দুইবার ছাত্র সংসদের ভিপির দায়িত্বও পালন করেন। এছাড়া সাদুল্যাপুর উপজেলা আ.লীগের সভাপতিও ছিলেন তিনি। ১৯৫৩ সালের ১৫ জুন সাদুল্যাপুর উপজেলার ভাতগ্রাম ইউনিয়নের ভাতগ্রামে জন্মগ্রহণ করেন ডা. ইউনুস আলী সরকার। ৬৭ বছর বয়সে মারা যাওয়া ইউনুস আলীর স্ত্রী জলি বিশ্বাস বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল কলেজ বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রভাষক। তার দুই ছেলের মধ্যে বড় ছেলে ড. ফয়সাল ইউনুস সরকার (পাভেল) জেনেটিক্স ডিগ্রী অর্জনের পর অষ্ট্রেলিয়ার ক্যানর্বাতেই কর্মরত। ছোট ছেলে পিয়াস স¤প্রতি এমবিএ সম্পন্ন করেছেন।

আপনার মতামত লিখুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *