Sharing is caring!

চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি \ চাঁপাইনবাবগঞ্জের সদর থানা ও পৌর বিএনপির দ্বি-বার্ষিকী সম্মেলনকে অবৈধ দাবি করে এবং অনুষ্ঠিত সম্মেলনের প্রতিবাদ জানিয়ে সংবাদ সম্মেলন করেছে জেলা বিএনপি। রোববার দুপুরে শহরের শান্তিমোড়ে অবস্থিত হোটেল আল নাহিদের সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য রাখেন জেলা শাখা বিএনপির সভাপতি এ্যাড. মোঃ রফিকুল ইসলাম টিপু। এসময় উপস্থিত ছিলেন বিএনপি নেতা ও হোটেল আল নাহিদের মালিক রফিকুল ইসলাম, মোবারকপুর ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান ও জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি মোবিনুর রহমান (মবিন মিঞা), জেলা শাখা যুবদলের সভাপতি ওবাইয়েদ পাঠান সহ অন্যরা। সংবাদ সম্মেলনের লিখিত বক্তব্যে বিএনপির সভাপতি এ্যাড. মোঃ রফিকুল ইসলাম টিপু বলেন, গত শনিবার শহরের সন্ধ্যা কমিউনিটি সেন্টারে একটি অবৈধ সম্মেলন হয়েছে। কেন্দ্রের অনুমোদিত জেলা বিএনপির কমিটিকে উপেক্ষা করে সদর উপজেলা ও পৌর বিএনপির সম্মেলন করেছে একটি স্বার্থন্বষী ও সুবিধাবাদি মহল। গঠনতন্ত্র অমান্য করে অবৈধ এ সম্মেলন আয়োজন করে বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব হারুনুর রশিদ। জেলা বিএনপিকে অবহিত না করে এ সম্মেলনে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব এ্যাড. রুহুল কবির রিজভীর উপস্থিতি ছিল আপত্তিকর, দুঃখজনক ও অনাকাক্সিখত বলে দাবি করেন জেলা বিএনপির সভাপতি রফিকুল ইসলাম টিপু। তিনি লিখিত বক্তব্যে আরো বলেন, আমরা এ সম্মেলন আয়োজকদের গঠনতন্ত্র অনুযায়ী প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানাচ্ছি জননেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার কাছে। অবৈধ এ সম্মেলনে প্রধান অতিথি এ্যাড. রুহুল কবির রিজভী আহমেদ ও হারুনুর রশিদের স্বজনপ্রীতি জেলা বিএনপিতে নতুন বিতর্কের জন্ম দিয়েছে। জেলা বিএনপিকে অবমূল্যয়ন করে সম্মেলন জাতীয়তাবাদী দল বিএনপির গঠনতন্ত্রের সাথে সম্পূর্ণ সাংঘর্ষিক। লিখিত বক্তব্যে বিএনপির সভাপতি মোঃ রফিকুল ইসলাম টিপু দাবি করেন, এক সময়ের জনপ্রিয় দল বিএনপি সাংগঠনিক গতিশীলতা হাতিয়ে অস্তিত্ব সংকটে পড়েছিল। দলটির ঐতিহ্য পুণরুদ্ধারের লক্ষ্যে বিএনপির চেয়ারপার্সন দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার সমন্বয়ের ভিক্তিতে বর্তমান জেলা কমিটি ঘোষণা করেন। জেলা বিএনপির কমিটির গঠনের পর থেকে বিভিন্নভাবে বিষোদাগার করে চলছে সদর আসনের সাবেক সংসদ সদস্য হারুনুর রশিদ ও তার সহধর্মিনী সৈয়দা আশিফা আশরাফি পাপিয়া। সাংগঠনিক ভাবে অস্তিত্বহীত দম্পতি হারুন-পাপিয়া চাঁপাইনবাবগঞ্জে দীর্ঘদিন থেকে একক আধিপত্য বিস্তারের প্রবণতা থেকেই অবৈধ সম্মেলেন আয়োজন করেন। এ অনাকাক্সিখত ঘটনার তীব্র নিন্দা ও দেশনেত্রী খালেদা জিয়ার হস্তক্ষেপের দাবি করা হয় সংবাদ সম্মেলন থেকে। এছাড়াও অনুষ্ঠিত সদর থানা ও পৌর বিএনপির দ্বি-বার্ষিকী সম্মেলন আয়োজনের প্রতিবাদ ও উপস্থিতি সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব এ্যাড. রুহুল কবির রিজভী আহমেদকেও অবহিত করার জন্য জেলা বিএনপির সভাপতির নেতৃত্বে  সভাস্থলে যেতে চাইলে নেতাকর্মীদের উপর অতকিত হামলা চালায় বলে দাবি করেন বিএনপির এই নেতা। এসময় জেলার বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেক্ট্রনিক মিডিয়া কর্মীরা উপস্থিত ছিলেন। উল্লেখ্য, গত শনিবার বেলা ১১ টার দিকে শহরের সন্ধ্যা কমিউনিটি সেন্টারে সদর থানা ও পৌর বিএনপির সম্মেলন চলাকালে একই এলাকায় জেলা বিএনপির একাংশের নেতা-কর্মীরা বিক্ষোভ করে সমাবেশ করার চেষ্টা করলে সংঘর্ষ শুরু হয়। এসময় ইট-পাটকেল ও ককটেল ছুড়ে বিদ্রোহী গ্রæপের লোকজন। পরে পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ আনে। তবে কোন অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি।

আপনার মতামত লিখুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *