Sharing is caring!


ভোলাহাট প্রতিনিধি \ ভোলাহাটে চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা পরিষদের জমি দখল করে অবৈধভাবে স্থাপনা নিমার্ণের অভিযোগ উঠেছে। আর এই অবৈধ স্থাপনা নির্মাণ করছেন চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা পরিষদের ১নং ওয়ার্ড (ভোলাহাট, গোহালবাড়ী ও দলদলী ইউনিয়ন) সদস্য ও ¶মতাসীন দলের উপজেলা শাখার কোষাধ্য¶ পিয়ার জাহান। ¶মতা পেতে না পেতেই ক্ষমতার অপব্যবহার করায় অনেকেই ক্ষুদ্ধ ও বিষ্মিতও। জানা গেছে, ২৮ ডিসেম্বর/১৬ নিবার্চনে বিজয়ী হয়ে ¶মতা পাকাপোক্ত হতে না হতেই ভোলাহাট উপজেলা পরিষদের দ¶িণ গেট সংলগ্ন প্রানিসম্পদ বিভাগের প্রাচীরের পাশে জেলা পরিষদের গোপিনাথপুর মৌজার ৫০৫ নং দাগের ১৮১২ শতাংশ জমির মধ্যে ৩ শতাংশ জমি দখলে নিয়ে ২য় তলা ভবন তৈরীর কাজ করেছেন এ জেলা পরিষদ সদস্য পিয়ার জাহান। কিন্তু প্রকৃতপ¶ে ৫১৫ নং দাগের রাস্তার ৩ শতাংশ জায়গাতে ভবন তৈরী হচ্ছে বলে জানা যায়। অর্থ উপার্জনের লক্ষ্যেই এই অবৈধ স্থাপনা নির্মাণ (দোকান ঘর) বলে স্থানীয়দের ধারণা। এদিকে স্থানীয় ¶মতাসীন দলের নেতাকর্মী সমর্থক ও সচেতনমহল নাম প্রকাশ না করার শর্তে ¶োভ প্রকাশ করে বলেন, পিয়ার জাহান ¶মতাসীন দলের উপজেলা শাখার কোষাধ্য¶ ও জেলা পরিষদের সদস্য হওয়ায় দাপটের সাথে দলীয় শৃংখলা ভঙ্গ ও সরকারী জমি দখলে পেতে উঠেছেন। ফলে দলের ভাবমূর্তি নষ্ট করে চলেছেন বলেও অভিযোগ উঠেছে। শুধূ তাই নয়, ভোলাহাট মেডিকেল মোড়ে সরকারী জমি দখলে নিয়ে মোনা লিসা হোটেল তৈরী করেছেন। জেলা পরিষদের জমি দখল করে স্থাপনাটি কি ভাবে তৈরী করছেন এমন প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, জেলা পরিষদের আলোচনায় অফিস করার কথা উঠলে জেলা পরিষদের জমি চিহ্নিত করে অফিস করার সিদ্ধান্ত হয়। অপর এক প্রশ্নে তিনি বলেন, লিখিতভাবে জেলা পরিষদের কোন সিদ্ধান্ত হয়নি বলেও তিনি ¯^ীকার করেন। তবে কোন বৈধ অনুমোদন নাই এবং তার নিজ অর্থায়নে স্থাপনা নিমার্ণ করছেন বলে ¯^ীকার করেন। এব্যাপারে জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আলহাজ্ব মঈনুদ্দীন মন্ডল জানান, জেলা পরিষদের জমি কাউকে লীজ বা কোন প্রকার স্থাপনা নির্মাণের অনুমতি দেয়া হয়নি। যদি পিয়ার জাহান জেলা পরিষদের জমি দখলে নিয়ে অবৈধভাবে স্থাপনা নির্মাণ করে থাকে, তবে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। উল্লেখ্য, পিয়ার জাহান জেলা পরিষদের যে জমিতে স্থাপনা তৈরী করছেন, সেখানে ইতিপূর্বে উপজেলার জনৈক ব্যক্তি অবৈধভাবে স্থাপনা নির্মাণ করলে, তৎকালীন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করে তাকে জেলহাজতে প্রেরণ করেন। এছাড়া একই জায়গায় এলজিইডি অফিসের ৯০ হাজার টাকা বরাদ্ধ দিয়ে এলাকার ¯^ার্থে গরু জবাই কসাই খানা তৈরীর জন্য ঠিকাদার নিয়োগের কাজ সম্পন্ন হলেও এখনও কাজ শুরু করতে পারেনি ঠিকাদার।

আপনার মতামত লিখুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *