Sharing is caring!


ভোলাহাট  প্রতিনিধি \ বেপরোয়া আচরণের কারণে সামাজিক দায়বদ্ধতার জায়গা থেকে এক কিশোরীকে এক বছর পূর্বে একটি মাত্র থাপ্পড় মারায় ধর্ষণ মামলার আসামী হতে হয়েছে বলে মঙ্গলবার ভোলাহাট প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করে এক কিশোরীর বিরুদ্ধে অভিযোগ করেন সমাজসেবক রহমতুল্লাহর প¶ে তার ছোট ভাই ইউনুস আলী। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করে জেলার ভোলাহাট উপজেলার বীরশ্বরপুর গ্রামের ইউসুফ আলী মেম্বরের ভাই ইউনুস আলী জানান, তার ভাই রহমতুল্লাহ সমাজের বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কাজের সাথে জড়িত। তিনি সমাজের বিভিন্ন প্রকার ছোট-খাটো অপরাধ বিষয়ে ঝামেলা মিটিয়ে থাকেন। এরই অংশ হিসেবে বীরেশ্বরপুর গ্রামের মাদক বিক্রেতা মোশিউর রহমান (মুসি)’র ১৪ বছরের কিশোরী মেয়ে উজলেফা বিভিন্ন অপরাধমূলক কাজের সাথে জড়িয়ে বেপরোয়া হয়ে গেলে তার পরিবারের প্রস্তাবে গত বছরের জুন জুলাই মাসের দিকে তাদের বাড়ীতে গিয়ে বিভিন্ন প্রকার কথা-বার্তা বলে অপরাধ থেকে সরে আসার কথা বললে সে উত্তেজিত হয়ে পড়ে। এক পর্যায়ে শাসন করার জন্য একটি থাপ্পড় মারে তাকে। এর দু’দিন পর ঢাকায় চলে যায় এবং ঢাকা থেকে মার্চ/১৭ প্রায় ১০ মাস পর ফিরে আসে বাড়ী। বাড়ী ফিরে তার ফুফুদের বাড়ী থেকে একটি চক্রের যোগসাজসে ভোলাহাট থানায় ধর্ষণ ও তার গর্ভে ৮ মাসের সন্তান তার ভাই রহমতল্লাহ’র বলে মিথ্যা বানোয়াট উদ্দেশ্যমূলক মামলা দায়ের করে আত্মমর্যাদা ¶ুন্ন করে চলেছে। প্রকৃতপ¶ে তার ভাই একজন সমাজ সেবক ব্যক্তি তার মর্যাদা ¶ুন্ন করে অর্থ হাতিয়ে নেয়ার অপচেষ্টায় এ মামলা করা হয়েছে। তিনি দাবী করে পুলিশের উর্ধতন কর্মকর্তার কাছে বিষয়টি যথাযথ তদন্ত করে ডিএনএ পরী¶ার মাধ্যমে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের দাবী করেছেন সংবাদ সম্মেলনে। বর্তমানে তার ভাই সমাজসেবক রহমতুল্লাহ পুলিশ ও সম্মানের ভয়ে আত্মগোপন করে আছেন বলে জানানো হয়। এ সময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, একরামুল হক, শাহাদাত হোসেন, মুখলেসুর রহমান, শহীদুল ইসলামসহ আরো অনেকেই।

আপনার মতামত লিখুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *