Sharing is caring!

ভোলাহাট প্রতিনিধি \ চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার শতভাগ বিদ্যুতায়নের উপজেলায় ভোলাহাটে বিদ্যুতের ঘন ঘন ও দীর্ঘ লোড সেডিং এ অতিষ্ট কৃষকরা। বোরো উৎপাদনের লক্ষমাত্রা অর্জন নিয়ে কৃষকেরা হতাশাগ্রস্থ। কৃষি অফিস সূত্রে জানা গেছে, ভোলাহাট উপজেলায় এ বছর ৫ হাজার ৮’শ ৭৫ হেক্টর জমিতে বোরো আবাদ হয়েছে। গত বছরের চেয়ে ৪’শ হেক্টর এ বছর বেশী বোরো চাষ হয়েছে। এদিকে বরেন্দ্র উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের আওতায় ২১৮টি বিদ্যুৎ চালিত গভীর নলকূপে বোরো চাষ হচ্ছে বলে বিএমডিএ সূত্র জানায়। এছাড়াও ব্যক্তিগত প্রায় ৫০টি বিদ্যুৎ চালিত গভীর নলকূপ রয়েছে। যথাযথ বিদ্যুৎ সরবরাহ না হলে বোরো উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা মারাত্মকভাবে ব্যাহত হওয়ার আশংকা করছেন কৃষকেরা। এ ছাড়া ¯স্বাস্থ্য কমপে¬ক্সে ও প্রানি সম্পদ দপ্তরে বিদ্যুতের কারণে ফ্রিজে রাখা ঔষধ নষ্ট হওয়ার আশংকা রয়েছে। অপরদিকে আগামী ২ এপ্রিল থেকে এইচএসসি পরীক্ষা শুরু। বিদ্যুতের এমন অবস্থায়  লেখাপড়া করতে বাধার মূখে পড়ছেন পরীক্ষার্থীরা। অফিস সময়ে বিদ্যুৎ না থাকায় সমস্যা সৃষ্টি হচ্ছে।  এতে নাগরিক সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন সাধারণ মানুষ। উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা শরিফুল ইসলাম বলেন, পর্যাপ্ত বিদ্যুৎ সরবরাহ না হলে বোরো উৎপাদন লক্ষমাত্রা ব্যাহত হতে পারে। তিনি বোরো চাষের উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের জন্য সংশ্লি¬ষ্ট বিদ্যুৎ বিভাগের উর্ধতন কর্তৃপক্ষের কাছে পর্যাপ্ত বিদ্যুৎ সরবরাহের দাবী করেন। ভোলাহাট পল্ল¬ী বিদ্যুৎ সাব-জোন অফিসের এজিএম সোহেল রানার সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ভোলাহাট উপজেলায় মোট ১০ মেগাওয়াট বিদ্যুতের প্রয়োজন। কিন্তু বর্তমানে আড়াই থেকে ৩ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ সরবরাহ পাওয়া যাচ্ছে। বিষয়টি উর্ধতন কর্তৃপক্ষের কাছে বলেও কিছু লাভ হচ্ছে না বলেও জানান তিনি। বিদ্যুতের এই অবস্থা থেকে বাঁচানোর জোর দাবী জানিয়েছেন ভোলাহাট উপজেলার কৃষক, পরীক্ষার্থীসহ বিভিন্ন পেশাজীবীরা।

আপনার মতামত লিখুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *