Sharing is caring!

এম.এস.আই শরীফ ভোলাহাট থেকে \ চাঁপাইনবাবগঞ্জের ভোলাহাটে ‘ভুল্লি দর্জি বিজ্ঞান টেকনিক্যাল ফার্ম’ নামে প্রতিষ্ঠানের দু’একজন সদস্য ঐ নাম ব্যবহার করে উপজেলার হাজার হাজার নারীদের সেলাই মেশিন প্রশিক্ষণের নাম করে তাদের নানা প্রলোভন দেখিয়ে লাখ লাখ টাকা আত্মসাৎ করে এলাকা থেকে উধাও হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। অভিযোগে জানা গেছে, সম্প্রতি (২৩.০৮.২০১৫ ইং) স্বাক্ষরিত ‘ভুল্লি দর্জি বিজ্ঞান টেকনিক্যাল ফার্ম’ নামে প্রতিষ্ঠানের দু’একজন সদস্য উপজেলার বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান স্কুল-কলেজের প্রধানের নিকট তাদের প্রতিষ্ঠানের ‘গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার কর্তৃক রেজিষ্ট্রিকৃত রেজি: নং-পি,এফ-৩২০৫৫/০৮ইং, প্রধান কার্যালয়:২৮/২ তাজমহল রোড, ঢাকা-১২০৭’ এ উদ্ধৃতি দেখিয়ে দরখাস্ত করে প্রায় ১৫/১৬টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের একটি কক্ষ ব্যবহার করে। ভুল্লি দর্জি বিজ্ঞান নামে প্রতিষ্ঠানটি এ দরখাস্তের আলোকে সংশ্লিষ্ট শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রধান তাদের ১টি ঘর ব্যবহার করতে দিলে, তারা এ উপজেলায় হাজার হাজার প্রশিক্ষনার্থী (শুধুমাত্র মহিলা) সদস্য তৈরী করে। ভুল্লি দর্জি বিজ্ঞানের প্রিন্সিপ্যাল ও প্রশিক্ষক তাদের জমায়িত প্রশিক্ষনার্থীদের হ.জ.ব.র.ল করে শিক্ষা দিয়ে প্রায় দু’মাস ধরে লাপাত্তা এবং তারা এলাকা ছেড়ে চম্পট দিয়েছে ও আত্বগোপন করে রয়েছে বলে সংশ্লিষ্ট শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রধানদের নিকট থেকে জানা গেছে। আরো জানা গেছে, ভুল্লি দর্জি বিজ্ঞান কর্তৃপক্ষ এ উপজেলার মহিলাদের মাঝে সেলাই মেশিন শিক্ষা দেয়ার প্রলোভনের নামে এলাকার বিভিন্ন প্রশিক্ষানার্থীদের নিকট ভর্তি ফি বাবদ ১’শ থেকে ২’শ টাকা গ্রহণ করে। এমনকি প্রশিক্ষনার্থীদের সেলাই মেশিন দেয়ার নামে কোন কোন শিক্ষার্থীর কাছে ১/২ হাজার টাকা নিয়েছে বলে অভিযোগ রয়েছে। জানা গেছে, কক্ষ ভাড়া দেয়া শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক প্রধানদের নিকটে যোগাযোগ করা হলে তারা বলেন, আমাদের সাথে ঐ দর্জি বিজ্ঞানের প্রিন্সিপ্যাল ও তার সাথে শামিউল প্রশিক্ষকের সাথে প্রতি প্রশিক্ষনার্থী বাবদ ৪০ থেকে ৫০ টাকা ও বিদ্যুৎ বিলসহ প্রদান শর্তে চুক্তি হয়। ফলে দেখা গেছে, তারা নিজেরাই কাউকে কোন প্রকার সংবাদ বা চলে যাবার কথা না বলেই উধাও হয়েছে এবং দু’এক মাস ধরে তারা লাপাত্তা রয়েছে। এ পর্যন্ত দর্জি বিজ্ঞান নামে ভূয়া প্রতিষ্ঠানটি এ উপজেলার ১৫/১৬টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সাথে প্রতারণা করে লাপাত্তা। এলাকার সাধারণ সহজ-সরল মহিলাদের লাখ লাখ টাকা আত্মসাৎ করে আত্বগোপন করে রয়েছে। এ ব্যাপারে উধাও হওয়া ভূয়া ‘ভুল্লি দর্জি বিজ্ঞান টেকনিক্যাল ফার্ম’র প্রিন্সিপ্যালের সাথে মোবাইল-০১৭২২-৬৯১১৩২ নম্বরে বার বার যোগাযোগ করলেও ফোন রিসিভ করেনি। প্রশিক্ষক শামিউল ইসলাম ওরফে শামিমের-০১৭৫০-৫১৩২২৯ নম্বরে ফোন দিলে শামিম নিজে ফোন রিসিভ না করলেও তার বড় ভাই ফোন রিসিভ করে নানা টালবাহানা দিয়ে বিষয়টি এড়িয়ে যান। এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসার আবুল হায়াত মোঃ রফিকের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, এ ধরণের প্রতিষ্ঠান আমার অগোচরে থাকলেও থাকতে পারে। তবে আমাকে অবিহিত করে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলি ব্যবস্থা গ্রহণ করে, তাহলে কোন প্রকার অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটবে না বলে আমার বিশ্বাস। তিনি এ প্রতিবেদকের উপস্থিতিতে ভুল্লি দর্জি বিজ্ঞান প্রতিষ্ঠানের অধ্যক্ষর নম্বরে ফোন দিলে ফোন বন্ধ পাওয়া যায়। অপর প্রশি¶ক শামিউল ইসলাম ওরফে শামিমের নম্বরে ফোন দিলে তার বড় ভাই বলে শামিম চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলখানায় অবস্থান করছে বলে জানায়।

আপনার মতামত লিখুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *