Sharing is caring!

মহান বিজয় দিবসের শপথ হোক তরুণ প্রজন্মকে মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস জানিয়ে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উদ্বুদ্ধ করার। আজকের তরুণরাই জাতির ভবিষ্যত। কাজেই তাদের মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস পৌছে দিতে সমাজের সকল শ্রেণী-পেশার মানুষকে এগিয়ে আসতে হবে। বিভিন্ন সভা-সেমিনার, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে, জেলার মুক্তিযোদ্ধাদের নিয়ে মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন সংঘটিত ঘটনাবলী জানানোর মাধ্যমে উদ্বুদ্ধ করতে হবে। বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন ভাবে তরুণ প্রজন্মকে মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস বিকৃত করে তাদের মেধাকে ধোলায় করা হচ্ছে। মুক্তিযুদ্ধের বিরোধী শক্তি এখনও বিভিন্নভাবে ষড়যন্ত্র করেই চলেছে। তাই এদের হাত থেকে রক্ষায় সকলকে এগিয়ে এসে সঠিক ইতিহাস বুঝিয়ে স্বাধীনতা পক্ষের শক্তিতে পরিনত করার আহবান জানিয়েছেন জেলার অভিজ্ঞ মহল। মহান বিজয় দিবস পালন করার পর মুক্তিযুদ্ধ সংশ্লিষ্ট দিনুগুলো ছাড়া অন্য কোন সময়ে সাধারণঃ মুক্তিযুদ্ধের বিষয়ে তেমন অনুষ্ঠানের উদ্যোগ নেয়া হয় না। মুক্তিযুদ্ধের বিষয়গুলো জানার জন্য বিশেষ দিন ছাড়াও মুক্তিযুদ্ধের প্রামান্য চিত্র প্রদর্শণের উদ্যোগও নেয়া প্রয়োজন। যে সকল অনুষ্ঠান হয়, সেগুলোও জেলা শহর বা উপজেলা সদর এলাকায়। প্রত্যন্ত অঞ্চলেও এসব মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা দরকার। মফস্বল এলাকার মানুষগুলো এসব থেকে বঞ্চিত প্রায়। আর বিরোধীশক্তি ওইসব মফস্বল এলাকাকেই বেছে নিয়ে মানুষের মেধাকে কাজে লাগায়। মুক্তিযুদ্ধের বিষয়গুলো মফস্বল এলাকাতে পৌছে দেয়ার জন্য প্রত্যন্ত অঞ্চলের দিকে নজর দেয়ার আহবান জানিয়েছেন জেলার সেচতন মহল। উল্লেখ্য, সারাদেশের মত চাঁপাইনবাবগঞ্জের প্রশাসনসহ সাধারণ মানুষ বিনম্র শ্রদ্ধায় স্মরণ করে বীর শহীদ মুক্তিযোদ্ধাদের নানা আয়োজনের মধ্য দিয়ে।

আপনার মতামত লিখুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *