Sharing is caring!

মুক্তিযোদ্ধাদের সুবিধা ও যুদ্ধাপরাধীদের

বিচারের কথা নেই বিএনপির ইশতেহারে

নিউজ ডেস্ক: একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের জন্য ১৯টি বিশেষ প্রতিশ্রুতি উল্লেখ করে বিএনপি পৃথক ইশতেহার ঘোষণা করেছে। ইশতেহারে বিডিআর হত্যাকাণ্ডের বিচার, বড় বড় প্রকল্পের দুর্নীতির বিচারসহ নানা বিষয় উল্লেখ করলেও ‘যুদ্ধাপরাধীর বিচার’বিষয়ে কোন কিছু উল্লেখ করেনি বিএনপি। এমনকি নির্বাচন পরবর্তী সময়ে মুক্তিযোদ্ধাদের সুযোগ-সুবিধা বিষয়ে ইশতেহারে কোন অঙ্গীকারের কথা উল্লেখ করেনি দলটি।১৮ ডিসেম্বর রাজধানী গুলশানের লেকশোর হোটেলে বেগম খালেদা জিয়ার পক্ষে ইশতেহার ঘোষণা করেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর৷ এসময় সাংবাদিকরা দেশের স্বাধীনতায় অবদান রাখা মুক্তিযোদ্ধা এবং হুমকিস্বরূপ যুদ্ধাপরাধীদের বিষয়ে ইশতেহারে কোন কথা উল্লেখ নেই কেন- তা জানতে চাইলে ফখরুল এ বিষয়ে কোন সদুত্তর দিতে পারেননি। তিনি কৌশলে প্রশ্নটি এড়িয়ে গিয়ে বলেছেন, এসব বিষয়ে চলমান সব কিছুতে বলা আছে।

তবে নির্বাচনকেন্দ্রিক প্রদত্ত ইশতেহারে ১৯ প্রতিশ্রুতি ঘেঁটে দেখা গেছে, মুক্তিযোদ্ধাদের সুযোগ-সুবিধা ও যুদ্ধাপরাধীদের বিচার সংক্রান্ত কোন অঙ্গীকার এ ইশতেহারে নেই।

এদিকে বিএনপির নির্বাচনী ইশতেহারে যুদ্ধাপরাধীদের বিচার ও মুক্তিযোদ্ধাদের সুযোগ সুবিধার কথা কৌশলে এড়িয়ে যাওয়াকে সহজ করে দেখছেন না রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা। তারা বলছেন, জামায়াতে ইসলামীর কথা বিবেচনা রেখেই বিএনপি এই কৌশল অবলম্বন করেছে।

এ প্রসঙ্গে একজন রাজনৈতিক বিশ্লেষক বলেন, বাংলাদেশে যখন যুদ্ধাপরাধীদের বিচার শুরু হয় তখন রাজনৈতিক মহল এ নিয়ে সারা দিলেও বিএনপি ছিলো নীরব। তবে এ নিয়ে তাদের গোপন প্রতিক্রিয়া সবারই জানা। যেহেতু জামায়াতে ইসলামীকে ছাড়া বিএনপি বিশেষ কিছু কল্পনাও করতে পারে না সুতরাং তারা জামায়াত বিরোধী অবস্থান কখনোই নেবে না। তার ফলশ্রুতিতে জামায়াতকে খুশি করতে এবং জোটের স্থিতিশীলতা বজায় রাখতে বিএনপি এই কৌশল করেছে বলে আমার মনে হয়। এছাড়া সেই জামায়াতকে খুশি করতেও একই কৌশলের বশবর্তী হয়ে মুক্তিযোদ্ধাদের সুযোগ-সুবিধা বিষয়েও কোন কথা উল্লেখ করেনি দলটি।

আপনার মতামত লিখুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *