Sharing is caring!

রহনপুরে সাংবাদিক পরিচয়ে চাঁদাবাজির

অভিযোগে আটক ৪

♦ গোমস্তাপুর প্রতিনিধি

চাঁপাইনবাবগঞ্জের গোমস্তাপুর উপজেলার রহনপুরে একটি বেকারিতে সাংবাদিক পরিচয় দিয়ে চাঁদা দাবি করায় ৪ জনকে আটক করেছে গোমস্তাপুর পুলিশ। বুধবার রাতে রহনপুর রেল ষ্টেশন এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। রহনপুর পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ আব্দুল মালেক জানান, অনলাইন টিভি ‘আশা’র প্রতিনিধি চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর উপজেলার মহারাজপুর হিন্দু পাড়ার আমিনুল ইসলামের ছেলে সেলিম উদ্দিন (৩০), অনলাইন দৈনিক ‘আলোকিত চাঁপাইনবাবগঞ্জ’ এর প্রতিনিধি আতাহার গ্রামের আক্তার হোসেনের ছেলে নুরুন্নবী (২৫), অনলাইন বিএফ টিভি ও মাদারল্যান্ড নিউজ এর প্রতিনিধি চাঁপাইনবাবগঞ্জ পৌর এলাকার বড় ইন্দারা মোড় কাঁঠাল বাগিচার মৃত খলিলুর রহমান ছেলে আব্দুর রাজ্জাক (৩৫) ও তাদের সহযোগী চাঁপাইনবাবগঞ্জ নিমতলা ফকিরপাড়ার মৃত আব্দুল্লাহ হারুনের ছেলে সৈয়দ মাহবুব হোসেন (৩৫) গত বুধবার সন্ধ্যায় রহনপুর রেল ষ্টেশন এলাকার আয়েশা বেকারীতে উপস্থিত হয়ে সাংবাদিক পরিচয় দিয়ে ভয়ভীতি প্রদর্শন করে। এসময় বেকারীর মালিক দুরুল হোদার কাছে ৩০ হাজার টাকা দাবী করে। টাকা না দেওয়া হলে ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে বেকারী সিলগালা করে দেওয়ার হুমকি দেয় তারা। পরে বেকারী মালিক বিষয়টি পুলিশকে অবহিত করলে পুলিশ তাদের আটক করে। এঘটনায় বেকারী মালিক বাদী হয়ে গোমস্তাপুর থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন। বৃহস্পতিবার বিকেলে আটককৃতদের জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে বলে গোমস্তাপুর থানার অফিসার ইনচার্জ মো. জসিম উদ্দিন জানান। তিনি আরো জানান, অনলাইন টিভি আশার প্রতিনিধি চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর উপজেলার মহারাজপুর হিন্দু পাড়ার আমিনুল ইসলামের ছেলে সেলিম উদ্দিন (৩০) এর বিরুদ্ধে সদর থানায় একাধিক মামলা রয়েছে বলে তিনি জানান। উল্লেখ্য, চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর উপজেলার মহারাজপুর হিন্দু পাড়ার আমিনুল ইসলামের ছেলে সেলিম উদ্দিন ও অনলাইন দৈনিক ‘আলোকিত চাঁপাইনবাবগঞ্জ’ এর প্রতিনিধি আতাহার গ্রামের আক্তার হোসেনের ছেলে নুরুন্নবী কয়েকদিন আগে শহরের মালোপাড়ায় একটি বিয়ে বাড়িতে গিয়ে সাংবাদিক পরিচয়ে ভয়ভীতি দেখায় এবং টাকা দাবী করে। সেখানে সদর উপজেলার মহারাজপুর হিন্দু পাড়ার আমিনুল ইসলামের ছেলে সেলিম উদ্দিন নিজেকে চাঁপাইনবাবগঞ্জ থেকে প্রকাশিত স্বানমধন্য দৈনিক ‘দৈনিক চাঁপাই দর্পণ’ পত্রিকার প্রতিনিধি বলে পরিচয় দিয়ে প্রতারণা করার চেষ্টা করে। বিয়ে বাড়ির আত্মীয়রা ও পার্শ্ববর্তী লোকজন তাৎক্ষনিক ‘দৈনিক চাঁপাই দর্পণ’ পত্রিকার সম্পাদক আশরাফুল ইসলাম রঞ্জুকে মোবাইল ফোনে সেলিমের পরিচয় জানতে চায়। সেলিম ‘দৈনিক চাঁপাই দর্পণ’ পত্রিকার কেউ নয়, প্রতারণা করছে, জানতে পেরে তাকে আটকানোর চেষ্টা করলে কৌশলে সেখান থেকে পালিয়ে আসে সেলিম ও নুরুন্নবী। পরে একাজের জন্য মোবাইল ফোনে সম্পাদকের কাছে ক্ষমা চাই সেলিম এবং পরবর্তীতে এধরণের কোন কাজ করবে না বলেও অঙ্গীকার করে।

আপনার মতামত লিখুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *