Sharing is caring!

রাজশাহী প্রতিনিধি \ ২০১৫ সালের প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষায় ফলাফল জালিয়াতির অভিযোগে দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) দায়ের করা মামলায় অবশেষে রাজশাহীর গোদাগাড়ী থানা শিক্ষা কর্মকর্তা রাখী চক্রবর্তীকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। দুদক এর সমšি^ত জেলা কার্যালয় রাজশাহীর উপ-সহকারী পরিচালক তরুণ কান্তি ঘোষ বাদী হয়ে গত ২১ আগস্ট রাজশাহী নগরীর রাজপাড়া থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। এ মামলায় গত রোববার আদালতে হাজির হয়ে জামিনের আবেদন করলে রাজশাহী মহানগর দায়রা জজ আদালতের বিচারক আকতার উল আলম রাখী চক্রবর্তীর জামিন নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন। মামলায় রাজশাহী জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা (বর্তমানে চট্টগ্রাম জেলায় সংযুক্ত) আবুল কাশেম, সাবেক বোয়ালিয়া থানা শিক্ষা কর্মকর্তা রাখী চক্রবর্তী (বর্তমান গোদাগাড়ী) ও বোয়ালিয়া থানা শিক্ষা কার্যালয়ের অফিস সহকারী কাম কম্পিউটার অপারেটর সোনিয়া রওশনকে আসামি করা হয়। মামলা দায়েরের দিনই জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আবুল কাশেমকে গ্রেপ্তার করা হয়। গত ১১ সেপ্টেম্বর আবুল কাশেম জামিনে মুক্তি পান। কিন্তু রাখী চক্রবর্তীকে গ্রেপ্তার করা হয়নি। মামলা দায়েরের দুইদিন পরই থানা শিক্ষা কর্মকর্তা রাখী চক্রবর্তী উচ্চ আদালত থেকে আগাম জামীন নেন। চাকুরি বিধি অনুযায়ী কোনো কর্মচারী গ্রেপ্তারের পর বা আত্মসমর্পনের পর জামিনে মুক্তি লাভ করলেও বরখাস্ত হিসেবে বিবেচিত হয়। সেই হিসেবে এর আগেই রাখী চক্রবর্তীর সাময়িক বরখাস্ত করার কথা ছিল। উচ্চ আদালত থেকে জামিন নেওয়ার দীর্ঘ প্রায় দেড় মাস পরে রাখী চক্রবর্তীকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়।

আপনার মতামত লিখুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *