Sharing is caring!

রাজশাহী প্রতিনিধি \ রাজশাহীতে মায়ের জমি জালিয়াতির ঘটনায় জাল দলিলে ¯স্বাক্ষরকারী দুই স্বাক্ষীকে খুঁজতে অভিযানে নেমেছে পুলিশ। তবে দলিলে উল্লেখ করা ঠিকানায় ওই দুই ¯স্বাক্ষীকে পাওয়া যাচ্ছে না। পুলিশের ধারণা,  দুই ¯স্বাক্ষীই দলিলে ভূয়া নাম-ঠিকানা দিয়েছে। তাদের বাড়ি রাজশাহীতেই হতে পারে। যাতে কেউ পরিচয় জানতে না পারে, সেজন্য আসল পরিচয় লুকিয়ে মিথ্যা তথ্য দেওয়া হয়েছে। জানা গেছে, গত ১৭ জানুয়ারি ছেলে মোহতাসিম বাবুসহ পাঁচজনের বিরুদ্ধে দণ্ডবিধির ৪৬৭/৪৬৮/৪৭১/৪২০/৬৪ ধারায় মেট্রোপলিটন ম্যাজিষ্ট্রেট রাজপাড়া আমলি আদালতে মামলা দায়ের করেন ভুক্তভোগী মা বেগম আখতার রহমান ওরফে আকতার সুলতানা। অভিযোগে উল্লেখ করা হয়, অজ্ঞাত এক মহিলাকে নিজের মা সাজিয়ে প্রায় আড়াই কোটি টাকার ১৫ দশমিক ২৫ শতাংশ জমি ছেলে মোহতাসিম বাবুর নিজের নামে জাল দলিল করে নেয়। ঐদিনই মেট্রোপলিটন ম্যাজিষ্ট্রেট কুদরত ই খুদা অভিযোগটি আমলে নিয়ে রাজপাড়া থানার ওসিকে মামলা রেকর্ড করার নির্দেশ দেন। মামলার অপর আসামিরা হলো, রাজশাহী সদর সাব-রেজিষ্ট্রার অফিসের দলিল লেখক মিলন হোসেন, দলিল শনাক্তকারী মোহতাসিম বাবুর ছেলে তাসিম মাহমুদ, ¯স্বাক্ষী সোহেল ও আল আমিন। জাল দলিলের ¯স্বাক্ষী সোহেলের বাড়ি ঢাকা জেলার ধামরাই থানার বড়গ্রাম এবং আল আমিনের বাড়ি একই উপজেলার কোর্ট নগর এলাকা উল্লেখ করা হয়েছে। তবে তাদের বিরুদ্ধে মামলা দায়েরের পর পুলিশ তাদের দেওয়া ঠিকানায় গিয়ে তাদের নামে কাউকে পায়নি। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এস.আই তৌহিদ রাজা বলেন, জাল দলিলের দুই স্বাক্ষীর ঠিকানায় গিয়ে এমন নামের কাউকে পাওয়া যায়নি। ধারণা করা হচ্ছে, তারা জালিয়াতি চক্রের সক্রিয় সদস্য। পরিচয় লুকাতে ¯স্বাক্ষীরা ভূয়া নাম-ঠিকানা ব্যবহার করেছে। ¯স্বাক্ষীরা রাজশাহীরই কেউ হতে পারে। এ বিষয়ে তদন্ত করছে পুলিশ। তাদের আসল পরিচয় পাওয়া গেলে মামলার তদন্ত প্রতিবেদন দেয়া সম্ভব হবে। আশা করছি শীঘ্রই আসামীরা ধরাও পড়বে।

আপনার মতামত লিখুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *