Sharing is caring!

দর্পণ ডেক্স \ রাজশাহী জেলা মোটর শ্রমিক ইউনিয়নের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের ২৩নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মো. মাহাতাব হোসেন চৌধুরীর বিরুদ্ধে ইউনিয়নের কোটি কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগ উঠেছে।
এছাড়া নানা অনিয়ম, স্বেচ্ছাচারিতা, দুর্ণীতি, শ্রমিকদের মারপিট আর অর্থ লুটপাটের মাধ্যমে রাজশাহীর পরিবহণ সেক্টরে ত্রাসের রাজত্ব সৃষ্টি করেছেন বলেও অভিযোগ উঠে এসেছে। স¤প্রতি শ্রমিক ইউনিয়ন সদস্যদের পক্ষ থেকে লিখিত আকারে এসব অভিযোগ দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক), র‌্যাব-৫ এর অধিনায়ক বরাবর, রাজশাহী মহানগর পুলিশ কমিশনার ও রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের মেয়র বরাবর পাঠিয়েছেন। তবে মাহাতাব চৌধুরী এসব অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। তিনি উল্টো কামাল হোসেন রবিসহ সংশ্লিষ্ট অনেকের বিরুদ্ধে অর্থ আত্মসাৎ ও লুটপাটের অভিযোগ তুলেছেন।
রাজশাহী মোটর শ্রমিকদের লিখিত অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, সাধারণ কর্মচারিদের অর্থায়নে শিরোইল বাস টার্মিনালের পূর্ব পার্শ্বে নির্মিত চার কোটি টাকা মূল্যের দ্বিতল ভবন মাহাতাব হোসেন চৌধুরী স্বেচ্ছাচারিতার মাধ্যমে মাত্র এক কোটি টাকায় বিক্রি করে দেন। এই টাকার মধ্যে মাত্র ৩০ লাখ টাকা ইউনিয়নের একাউন্টে জমা দেন। বাকি ৭০ লাখ টাকার কোনো হিসাব দাখিল করেনি।
মাহাতাবের বিরুদ্ধে ইউনিয়নের শ্রমিকদের মারপিট, পরবর্তীতে মামলা হলে বাদিকে নানা হুমকি-ধমকি দিয়ে মামলা তুলে নিতে বাধ্য করারও অভিযোগ রয়েছে। শ্রমিক ইউনিয়নের উন্নতিকল্পের কথা বলে এই নেতা মাসের পর মাস জুয়া, সার্কাস আর যাত্রাপালার আয়োজন করেছিল। যেখান থেকে প্রতিদিন অবৈধভাবে ১০/১৫ লাখ টাকা উপার্জন করে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন।
অভিযোগে উল্লেখ করা হয়, জীবনে পরিবহণের কাজকর্ম না করে মোটর শ্রমিক ইউনিয়নের সদস্য পদ বাগিয়ে নিয়ে শিরোইল বাস টার্মিনালের অভ্যন্তরে এমন কোনো অপকর্ম নাই যা শ্রমিক নেতা নামধারী মাহাতাব করেন নাই। সড়ক পরিবহণ শ্রমিকদের বিভিন্ন উন্নয়নমূলক সহযোগিতা যেমন-কোনো সদস্যের মৃত্যুর পর তার পরিবারকে আর্থিক অনুদান, কন্যাদ্বায়গ্রস্থ শ্রমিকদের আর্থিক অনুদান, শ্রমিকের ছেলেদের আর্থিক অনুদান, চিকিৎসা ও অন্যান্য বিষয়ে আর্থিক অনুদান শ্রদানের জন্য রশিদমূলে রাজশাহী অঞ্চলে চলাচলকৃত সড়ক পরিবহণ শ্রমিকদের নিকট হতে প্রতিদিন আর্থিক সাহায্য উত্তোলণ করা হয়। গঠনতন্ত্র ও ইউনিয়নের সিদ্ধান্ত মোতাবেক এসব টাকা জমা দেয়ার কথা থাকলেও তিনি ঠিকমত জমা দেননি। ক্ষমতার প্রভাব খাটিয়ে মাহাতাব চৌধুরী রাজশাহী মোটর শ্রমিক ইউনিয়নকে আর্থিকভাবে চরম ক্ষতিগ্রস্থ করেছে।
অভিযোগে আরও উল্লেখ করা হয়, অবৈধভাবে উপার্জন করা এসব টাকা দিয়ে মহানগরীর টিকাপাড়া মহল্লায় ৫ কোটি টাকা ব্যয়ে ৬ তলাবিশিষ্ট বিলাসবহুল একটি বাড়ি নির্মাণ করেছেন। আনুমানিক ৩ কোটি টাকা দিয়ে শাবন্তী পরিবহণ নামে কিনেছেন ৬টি বাস ও ৬৫ লাখ টাকা দিয়ে কিনেছেন কালো রংয়ের টয়েটো হিনো কার। কেউ এসব অনিয়ম ও দূর্ণীতির প্রতিবাদ করলে মাহাতাব তার ওপর হামলা, অত্যাচার ও নির্যাতন চালাতো। তার এই অনিয়ম ও র্দুর্নীতির কারণে মাহাতাব চৌধুরীকে বর্তমান ক্ষমতাসীন দলের রাজনৈতিক সকল পদ হতে অপসারণ করা হয়েছে। সবমিলিয়ে মাহাতাবের বিরুদ্ধে ১ কোটি ৮১ লাখ টাকা গড়মিল দেখা গেছে, যা যুগ্ম শ্রম পরিচালকের দপ্তরকে অবহিত করা হয়েছে।
তবে মাহাতাব হোসেন চৌধুরী এসব অভিযোগের সবগুলোই মিথ্যা বলে দাবি করেছেন বরং উল্টো তিনি বলেন, ‘আমার বিরুদ্ধে যে অভিযোগ আনা হয়েছে তার একটিরও প্রমাণ কেউ দিতে পারবে না।’ তিনি বলেন, ‘মোটর শ্রমিক ইউনিয়নের ৪০ শতাংশ টাকা ট্রাক থেকে উঠতো। হিসাব করে দেখা গেছে, শ্রমিক নেতা কামাল হোসেন রবি, মোমিন ও নজুর কাছে ৩ কোটি টাকা রয়েছে। সেই টাকা তারা এখনো জমা দেয়নি।
প্রতিটি কার্ড বিক্রি করেছে ১৭ হাজার টাকা করে। সেই হিসেবে ৯ শত কার্ডের টাকা জমা হয়নি। মোটর শ্রমিক ইউনিয়নের মেডিক্যালের এক কোটি টাকা এখনো রবির কাছে আছে। রবির বিরুদ্ধে মেলার নামে অবৈধভাবে জুয়া ও নারী নাচানোর অভিযোগও করেন তিনি।’
তিনি বলেন, ‘খারাপ মানুষকে কেউ ভোট দেয়। আমি দুইবার কাউন্সিলর হয়েছি, শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক হয়েছি।’

আপনার মতামত লিখুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *