Sharing is caring!

৫ সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন-ম্যানেজার অবরুদ্ধ
রাজাবাড়ীহাট ভেড়া খামারে অর্ধশত ভেড়ার
মৃত্যুর অযুহাতে বিক্রির অভিযোগ
godagari photo-1গোদাগাড়ী  প্রতিনিধি \ রাজশাহীর রাজাবাড়ীহাট ডেমনষ্ট্রেশন সরকারী ভেড়া খামারে ম্যানেজারের বিরুদ্ধে ভেড়া মৃত্যুর অযুহাতে প্রায় ৩২ টি ভেড়া বিক্রি করে দেড় লক্ষাধীক টাকা আত্মসাতের অভিযোগ উঠেছে। গত বুধবার এলাকার জনসাধারন খামারে গিয়ে ম্যানাজার ফাহাদ আব্দুল্লাহ আল রাজীকে সকাল ১১টার সময় ৩০ মিনিট অবরুদ্ধ করে রাখে। পরে ছাগল উন্নয়ন খামারের প্রানী সম্পদ কর্মকর্তা ডাঃ সিরাজুল ইসলাম পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রন করে ক্ষুদ্ধ জনতার হাত থেকে তাকে রক্ষা করেন। গত অক্টোবর মাসে ম্যানেজারের দায়িত্বে অবহেলার কারনে ৬টি ভেড়ার মৃত্যু হলেও ম্যানেজার ফাহাদ আব্দুল্লাহ আল রাজী বিষয়টি উদ্ধোর্তন কর্তৃপক্ষকে না জানিয়ে মৃত ভেড়া গুলোকে গোপনে মাটিতে পুতে ফেলেন। তার পর থেকে খামারের প্রায় ১৫টি ভেড়ার মৃত্যু হলেও ম্যানেজার ভেড়া মৃত্যু রোধে কোন ব্যবস্থা না নিয়ে বিষয়টি গোপন রাখেন। এছাড়াও, কয়েকজন আস্তাভাজন কর্মচারীকে সাথে নিয়ে গোপনে খামারের ৩২টি ভেড়া প্রতিটি ৫ হাজার টাকা দরে রাতের অন্ধকারে বিক্রি করে দিয়েছেন বলে নাম প্রকাশে অনিইচ্ছুক কয়েকজন কর্মচারী বলেন। তারা আরো বলেন রাতের অন্ধকারে একটি হলুদ রং এর হিউম্যান হলার গাড়ী এসে খামারের মধ্যে দাড়ালে ম্যানেজার সেড থেকে ৩২টি ভেড়া এনে তুলে দিতে বলেন। আমরা ম্যানাজারের নির্দেশে ভেড়াগুলো তুলে দিই। তারা বলেন, আমরা কর্মচারী চাকুরীর ভয়ে প্রতিবাদ করতে পারিনি। ম্যানেজার যা বলেছে তাই করেছি। হিউম্যান হলার গাড়ীতে করে বিক্রি ভেড়া গুলো চলে যায়। ভেড়ার মৃত্যু ও বিক্রির ঘটনাটি জানা জানি হয়ে গেলে ভেড়া খামারের ম্যানেজার ভেড়া বিক্রির বিষয়টিকে ধামাচাপা দিতে ভেড়ার মৃত্যু হয়েছে বলে কাগজে কলমে দেখানোর চেষ্টা করেন। রাজাবাড়ীহাট আঞ্চলিক খামারের উপ-পরিচালক ডাঃ গোলাম কাদির বিষয়টি জানতে পারেন। তার জানার পর গত সোমবার তিনি খামারে গিয়ে উপস্থিত হন এবং বিষয়টি তদন্ত করার জন্য ৫ সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করেন। ভেড়া স্টকের ও খাদ্য রেজিষ্টার ক্লোজ করেন। গত বুধবার দুপুরে ভেড়া খামারে গিয়ে ম্যানেজার ফাহাদ আব্দুল্লাহ আল রাজীর সাথে কথা বললে তিনি ১০-১২ টি ভেড়া দুর্বলতার কারনে মৃত্যুর কথা স্বীকার করে বিক্রির বিষয়টি তিনি অস্বীকার করেন। ভেড়া মৃত্যুর বিষয়ে ময়না তদন্ত রির্পোটের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি তা দেখাতে পারেননি। তার কাছে বগুড়া খামার থেকে কয়টি ভেড়া আনা হয়েছে তার চিঠি বা চালান দেখতে চাইলে তিনি তা না দেখানোর জন্য কৌশল হিসাবে বলেন তদন্ত কমিটি নিয়ে গেছে। রাজাবাড়ীহাট আঞ্চলিক খামারের উপ-পরিচালক ডাঃ গোলাম কাদির বলেন, বিষয়টি জানার পর ভেড়া খামার পরিদর্শনে গিয়ে ৫ সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। তদন্তের পর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

আপনার মতামত লিখুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *