Sharing is caring!

003নওগাঁ প্রতিনিধি \ নওগাঁর রাণীনগর থানা পুলিশ উপজেলার মিরাট ইউনিয়নের চরকানাই গ্রামে অভিযান চালিয়ে এক নববধূকে নিয়ে পালিয়ে যাওয়া মামলায় শি¶ক ওসমান গণি (৪৫) ও তার প্রাক্তন ছাত্রী নববধূ সুইটিকে (১৮) গ্রেফতার করেছে। শি¶ক ওসমান গণি উপজেলার সিম্বা গ্রামের নবীর উদ্দিনের ছেলে, পালশা-কৃষ্ণপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের শরীর চর্চা শি¶ক এবং ২ মেয়ের জনক এবং সুইটি বিলকৃষ্ণপুর গ্রামের ফেরদৌস হোসেনের মেয়ে ও রাণীনগর মহিলা কলেজের প্রথম বর্ষের ছাত্রী। রাণীনগর থানার ওসি আব্দুল লতিফ খান জানান, সুইটি ২০১৫ সালে পালশা-কৃষ্ণপুর উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এসএসসি পাশ করে। সেখানে অধ্যয়নের সময় শি¶ক ওসমান গণি তার সাথে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তোলে। গত ৮ জুলাই সুইটিকে তার অভিভাবকেরা করজগ্রামের এমদাদুল হকের ছেলে সদ্য দুবাই ফেরত সাইদুর রহমানের সাথে বিয়ে দেন। বিয়ের ২৬ দিনের মাথায় গত ২ আগষ্ট শি¶ক ওসমান গণি সুইটিকে ভাগিয়ে নিয়ে যান। বর সাইদুর রহমানের চাচা বাদী হয়ে এব্যাপারে ওসমান গণি ও সুইটিকে আসামী করে ৭ আগষ্ট রাণীনগর থানায় একটি মামলা দায়ের করলে থানা পুলিশ সোমবার দিবাগত রাতে তাদেরকে গ্রেফতার করে। মঙ্গলবার দুপুরে তাদেরকে নওগাঁ কোর্টে চালান দেয়া হলে আদালত তাদেরকে জেল হাজাতে পাঠানোর আদেশ দেন। সাইদুর রহমান জানান, সুইটি পারলারে যাবার নাম করে নগদ ৩ লাখ টাকা ও ৪ ভরি ওজনের সোনার গহনা চুরি করে পালিয়ে যায়। পালশা-কৃষ্ণপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শি¶ক খোরশেদ আলম জানান, ঘটনার পর এলাকাবাসী এব্যাপারে বি¶োভ প্রদর্শন করে ওসমান গণিকে বরখাস্তের দাবী জানিয়ে তার কাছে স্মারকলিপি দেন। মঙ্গলবার দুপুরে স্কুল পরিচালনা কমিটি ও অভিভাবক সমিতির জরুরি যৌথ সভায় তাকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়।

আপনার মতামত লিখুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *