Sharing is caring!

shibganj-pic-01শিবগঞ্জ প্রতিনিধি \ চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জ উপজেলা প্রাথমিক শি¶া অফিসার ইউসুফ আলী ভূঁইঞার পূর্বে কয়েকটি নারী কেলেঙ্কারী ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগসহ সর্বশেষ বুধবার এক শি¶িকার সাথে আপত্তিকর অবস্থায় আটকের ঘটনায় শর্তসাপেক্ষে বিয়ের পর চরম উদ্বিগ্ন ও উৎকণ্ঠার মধ্যে পড়েছেন শিবগঞ্জে ২৩৮ সরকারী ও বেসরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শি¶িকা ও অভিভাবকগন। সে সাথে ঐ শিক্ষা কর্মকর্তার নানা অনিয়ম, দূর্নীতি ও নারী কেলেঙ্কারী শিবগঞ্জ উপজেলায় ব্যাপক আলোচিত হওয়ায় এর প্রভাব প্রাথমিক বিদ্যালয়ের কমলমতি ছাত্র-ছাত্রীদের উপর পড়তে পারে বলে আশংকা অভিভাবক ও সংশি¬ষ্টদের। তাই অভিযুক্ত ইউসুফ আলী ভূঁঞাকে জরুরীভাবে বদলীর দাবী শি¶ক-শি¶িকা, অভিভাবক ও এলাকাবাসীর। একটি সূত্র জানায়, শিবগঞ্জ উপজেলা প্রাথমিক শি¶া অফিসার ইউসুফ আলী ভূঁঞা বগুড়া আদমদিঘী উপজেলা শি¶া অফিসার হিসোবে দায়িত্ব পালনকালে নারী কেলেঙ্কারী ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে শাস্তিমূলক বদলী হিসেবে অত্র উপজেলায় প্রেরন করা হয়। এ উপজেলায় আসার পরপরই আগের শিক্ষা কর্মকর্তার দপ্তরী নিয়োগ ও ব্যাঙ্গের ছাতার মতো রাতারাতি গজিয়ে ওঠা ৫২টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের এম,পি,ও ভুক্তকরন নিয়ে শুরু করা দুনীর্তিকে আরো একধাপ এগিয়ে নিতে সহায়তার হাত বাড়িয়ে দেন। পূর্বের শিক্ষা কর্মকর্তার ন্যায় তিনিও লক্ষ লক্ষ টাকার দুনীর্তিতে জড়িয়ে পড়েন। সেসাথে পূর্বের চাকুরি স্থলের শাস্তির কথা ভ‚লে শিবগঞ্জেও জড়িয়ে পড়েন নারী কেলেঙ্কারীতে। এর আগে গত বছর এক নারী কেলেঙ্কারীর ঘটনায় মানবিক কারনে স্থানীয় প্রশাসন গোপনে মিটমাট করে দিলে সে যাত্রায় তিনি বেঁচে যান। সর্বশেষ বুধবার আরো এক শি¶িকার সাথে বিয়ের নামে দীর্ঘদিন থেকে ¯^ামী স্ত্রী হিসেবে থাকতে আরম্ভ করলে স্থানীয়দের কাছে ধরা পড়েন এবং ঘটনার ১৮ ঘন্টা পর শর্তসাপেক্ষে রেজিস্ট্রি করে বিয়ে ও মুচলেকা দিয়ে ছাড়া পান। কিন্তু এ নিয়ে চরম উদ্বিগ্ন ও উৎকণ্ঠার মধ্যে পড়েছেন শিবগঞ্জে ২৩৮ সরকারী ও বেসরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শি¶িকারা। কারন এসব স্কুলের অন্তত ৬০ ভাগই হচ্ছেন শি¶িকা। সব সময়ই সরকারী ও বেসরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শি¶ক-শি¶িকাদের যেতে হয় শি¶া অফিসারের দরবারে। এ¶েত্রে কোন শি¶িকা তার কুনজরে পড়লে হয়তো তাকেও বাধ্য হতে হবে শয্যাসঙ্গিনী হিসাবে থাকতে। আর এতে রাজি না হলে হয়তো হয়রানির শঙ্কাও অনেকেরই। তাই ২৩৮ সরকারী ও বেসরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শি¶িকা ও তাদের ¯^ামী ও অবিভাবকরা চরম উদ্বেগ উৎকণ্ঠার মধ্যে পড়েছেন বলে নাম প্রকাশ না করার শর্তে এ প্রতিবেদককে জানিয়েছেন চাকুরীরত শিক্ষিকাদের অভিভাবকগন। এব্যাপারে কোন ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে কি না এমন প্রশ্নের জবাবে জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আঃ কাদির জানান, বৃহস্পতিবার রাতেই উর্ধ্বতন কর্তৃপ¶কে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেয়ার জন্য লিখিতভাবে ও ফোনে জানানো হয়েছে, আশা করি রবিবারের মধ্যে কি ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে তা জানা যাবে। উল্লেখ্য বুধবার রাতে চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জ উপজেলা প্রাথমিক শি¶া অফিসার ইউসুফ আলী ভূঁঞাকে এক নারীর সাথে আপত্তিকর অবস্থায় আটক করে পুলিশের কাছে বৃহস্পতিবার সকালে সোপর্দের পর বৃহস্পতিবার রাত দেড় টায় মুচলেকা দিয়ে শর্তসাপেক্ষে বিয়ে রেজিস্ট্রি সম্পন্নের পর ইউসুফ আলী ভূঁঞা ও ঐ নারী ছাড়া পেয়েছেন। এ সময় অভিযুক্ত অফিসারের ১ম স্ত্রী জিনাত সুলতানা, মেয়ে ইসরাত জাহান ইভা, ছেলে জাওয়ার আহম্মেদ রানা ও মেয়ে জামাই রফিকুল ইসলাম, অভিযুক্ত মহিলার ভাই সোহেল রানা বৃহস্পতিবার রাতে শিবগঞ্জ থানায় মুচলেকা দেন। মুচলেকা দেয়ার পর নিজ নিজ পরিবারের সদস্যদের কাছে হস্তান্তর করা হয়।

আপনার মতামত লিখুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *