Sharing is caring!

শিবগঞ্জ প্রতিনিধি \ সরকারের আইনকে বৃদ্ধাঙ্গুলী দেখিয়ে চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জে চলছে জাটকা ইলিশ মাছ ধরার মহোৎসব। সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, জেলার শিবগঞ্জ উপজেলার পশ্চিম সীমান্ত মাসুদপুর বিওপির পাশ থেকে মহানন্দা ও পদ্মার মিলনস্থল ওহেদপুর বিওপি পর্যন্ত প্রায় ৬০ কিলোমিটার দৈর্ঘ্য ও ১০ কিলোমিটার প্রস্থ পদ্মা নদীতে শত শত জালে ধরা হচ্ছে জাটকা ইলিশ। সন্ধ্যা থেকে সকাল পর্যন্ত নদীর তীরবর্তী বাড়ির মধ্যে নিম্নে ৫০/৬০ টাকা দরে ও উর্দ্ধে দেড়’শ টাকা কেজি পাইকারী দরে বিক্রি হচ্ছে। জেলেরা প্রতি রাতে প্রায় ২০/২৫ কেজি  ইলিশ মাছ ধরছে বলে এলকাবাসী জানায়। একালাবাসি জানায়, দিবারাত্রি ইলিশ ধরতে ব্যস্ত জেলারা। বৃহস্পতিবার রাতে মাছ বিক্রয় করার সময় ১২/১৩ বছর বয়সের ছেলে রামনাথপুর গ্রামের সুজন, সোহেল, বাবু ও জাহাঙ্গীরসহ অনেকে জানান, আমারা গরীবের ছেলে, নদীর ধারে বাড়ি। পেটের দায়ে এ সময়ে ইলিশ মাছ ধরি। মাছ ধরতে বিজিবি ও পুলিশকে প্রতি রাতে দুটি করে বড় ইলিশ মাছ দিতে হচ্ছে। মনাকষা ইউপি সদস্য সমীর উদ্দিন ও দূর্লভপুর ইউপি সাবেক সদস্য  তোজাম্মেল হক জানান, ১ হতে ২২ অক্টোবর পর্যন্ত ইলিশ মাছ ধরা, বহন করা, কেনাবেচা নিষিদ্ধ থাকলে ব্যাপকহারে ইলিশ মাছ ধরছে। এখানে কারো কিছু করার নেই। মনোহরপুর, বোগলাউড়ি, পাকা, গাইপাড়া, খাকচাপাড়া, বাবুপুর, উজিরপুর, ঠুঠাপাড়া, তারাপুর, শ্যামপুরসহ প্রায় ১৫/২০টি গ্রাম ও নদীর তীর তীর ৩০/৪০ কিলো ঘুরে একই ধরনের চিত্র পাওয়া গেছে। এব্যাপারে উপজেলা সিনিয়র মৎস্য অফিসার বরুণ কুমার মন্ডল জানান, আমার লোকবল সীমিত হওয়ায় কোন জোরালো অভিযান চালাতে পারছি না। তবে প্রতিদিন আমাদের অভিযান অব্যহত রয়েছে। এমনকি কারেন্ট জাল ও জাটকা নিয়ে ধরাও পড়ছে। পুলিশ সুপার ও বিজিবির নিকট সহযোগিতা চেয়ে আবেদন করলেও তারা উপযুক্ত সহযোগিতা করছেন না।

আপনার মতামত লিখুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *