Sharing is caring!

পাঁকা ইউনিয়ন উপ-নির্বাচন

শিবগঞ্জের পাঁকা ইউনিয়নের ১টি কেন্দ্র

পরিবর্তনের আবেদন

♦ স্টাফ রিপোর্টার

চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার শিবগঞ্জ উপজেলার ১২ নম্বর পাঁকা ইউনিয়নের উপ-নির্বাচনে ৩নম্বর ওয়ার্ডের একটি ভোট কেন্দ্র পরিবর্তনের আবেদন করেছেন একজন চেয়ারম্যান প্রার্থী মোহা. আব্দুল মালেক। কেন্দ্রের পার্শ্ববর্তী এলাকা নদীগর্ভে বিলিন হয়ে যাওয়ায় কেন্দ্রের চত্বরে ভোটারদের স্থান সংকুলান না হওয়া এবং ভোটারদের নানাবিধ সমস্যার কথা চিন্তা করেই এই আবেদন করেছেন তিনি বলেও জানা গেছে। জেলা নির্বাচন অফিসে জমা দেয়া আবেদন সুত্রে জানা গেছে, চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার শিবগঞ্জ উপজেলার ১২ নম্বর পাঁকা ইউনিয়নের উপ-নির্বাচন আগামী ২৯মার্চ/২০। এই নির্বাচনে চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার শিবগঞ্জ উপজেলার ১২ নম্বর পাঁকা ইউনিয়নের উপ-নির্বাচনে ৩নম্বর ওয়ার্ডের পাঁকা নারায়নপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ভোট কেন্দ্রটি পরিবর্তন করে ‘পাঁকা নারায়নপুর পাবলিক উচ্চ বিদ্যালয়’ এ ভোট কেন্দ্র স্থানান্তরের অত্যন্ত জরুরী হয়ে পড়েছে। গত ২১ জানুয়ারী/২০ ও গত ২ মার্চ/২০ জেলা নির্বাচন অফিসারের কাছে জমা দেয়া আবেদনে কারণ হিসেবে আবেদনে উল্লেখ করা হয়, পদ্মা নদীর ভাঙ্গনে পাঁকা নারায়নপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় পার্শ্ববর্তী এলাকা নদী গর্ভে প্রায় চলে যাওয়ার উপক্রম। ফলে শিক্ষার্থীদের জন্য বিদ্যালয়ের চত্বরে আলাদা করে ঘর নির্মান করে শিক্ষার্থীদের পাঠ দানের ব্যবস্থা করা হয়েছে। এতে বিদ্যালয় চত্বরের ফাঁকা জায়গা নেই বললেই চলে। ফলে এই কেন্দ্রের ২৪০৬জন ভোটারের বিদ্যালয় চত্বরে স্বাভাবিকভাবে চলাফেরা করা বা ভোট দিতে নানা সমস্যা সৃষ্টি হবে। এছাড়া এই উপ-নির্বাচনে একই ওয়ার্ডের ২ জন চেয়ারম্যান প্রার্থী হওয়ায় কেন্দ্রটি অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ বলে মনে করছেন সাধারণ ভোটারগণ ও এই উপ-নির্বাচনে অংশ নেয়া চেয়ারম্যান প্রার্থী মোহা. আব্দুল মালেক। আবেদনকারী চেয়ারম্যান প্রার্থী মোহা. আব্দুল মালেক এর দাবী, সুষ্ঠভাবে ভোট গ্রহণ ও স্বাচ্ছন্দে ভোটারদের ভোটে অংশ গ্রহণ এবং নিশ্চিন্তে ভোট প্রদানের জন্য ৩নম্বর ওয়ার্ডের ‘পাঁকা নারায়নপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়’ ভোট কেন্দ্রটি পরিবর্তন করে একই ওয়ার্ডের অন্তর্ভূক্ত ‘পাঁকা নারায়নপুর পাবলিক উচ্চ বিদ্যালয়’ এ ভোট কেন্দ্র স্থানান্তর একান্ত প্রয়োজন। এদিকে, শনিবার দুপুরে পর্যন্ত খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, পদ্মা নদীর ভাঙ্গন অব্যহত থাকার কারণে ‘পাঁকা নারায়নপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়’ এর পার্শ্ববর্তী পাড় পদ্মা নদীতে ভেঙ্গে যেতে যেতে প্রায় ২৪ গজ দূরে অবস্থান করছে। স্থানীয়দের ধারণা, ২৯ মার্চ ভোটের দিনের আগেই ‘পাঁকা নারায়নপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়’ এর ভবনসহ বিদ্যালয়ের সকল স্থাপনা নদী গর্ভে বিলিন হয়ে যেতেও পারে। তাই বিষয়টি বিবেচনায় নিয়ে ৩নম্বর ওয়ার্ডের পাঁকা নারায়নপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ভোট কেন্দ্রটি পরিবর্তন করে ‘পাঁকা নারায়নপুর পাবলিক উচ্চ বিদ্যালয়’ এ ভোট কেন্দ্র স্থানান্তরের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবেন নির্বাচন দপ্তর এমনটায় আশা আবেদনকারী ও স্থানীয় ভোটারা। এব্যাপারে ‘পাঁকা নারায়নপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়’ এর প্রধান শিক্ষক কাজী মোতাহার হোসেন বলেন, ‘পাঁকা নারায়নপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়’ এর ভবন বর্তমানে পদ্মা তীর থেকে ২৬/২৭ মিটার দূরে অবস্থান করছে। পদ্মা ভাঙ্গন অব্যহত রয়েছে। বিদ্যালয় চত্বরে শিক্ষার্থীদের জন্য ঘর নির্মাণ করায় বিদ্যালয় চত্বরে জায়গা একদমই কম। নির্বাচনী কেন্দ্রে ভোটারদের সমস্যা ভেবে নির্বাচন অফিসে কেন্দ্র পরিবর্তণের জন্য আবেদনের বিষয়টি শুনেছি। তবে বিষয়টি নির্বাচন অফিসের ব্যাপার। নির্বাচন অফিস যেটা ভালো বোঝেন। পদ্মা ভাঙ্গনে বিদ্যালয়ের ভবন হুমকির মুখে ভেবেই জেলা প্রাথমিক অফিসে লিখিতভাবে জানানো হয়েছে। বিদ্যালয় স্থানান্তরের জন্য ৮ মার্চ রবিবার স্থানীয়দের নিয়ে আলোচনায় বসার কথা রয়েছে। স্থানান্তরের সিদ্ধান্ত হলে এবং জমি পাওয়া গেলে প্রয়োজনীয় পরবর্তী পদক্ষেপ নেয়া হবে। এব্যাপারে জেলা নির্বাচন অফিসার মো. মোতাওয়াক্কিল রহমান জানান, জেলার শিবগঞ্জ উপজেলার ১২ নম্বর পাঁকা ইউনিয়নের উপ-নির্বাচনে ৩নম্বর ওয়ার্ডের ‘পাঁকা নারায়নপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়’ ভোট কেন্দ্র পরিবর্তন করে একই ওয়ার্ডের অন্তর্ভূক্ত ‘পাঁকা নারায়নপুর পাবলিক উচ্চ বিদ্যালয়’ এ ভোট কেন্দ্র স্থানান্তরের জন্য আবেদন করেছেন। বিষয়টি সরজমিন তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

আপনার মতামত লিখুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *