Sharing is caring!

শিবগঞ্জ প্রতিনিধি \ চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জ উপজেলার মনাকষা ইউনিয়নের রানীনগরে রবিবার বেলা ১০টার দিকে নির্বাচন পরবর্তী সহিংস হামলার ঘটনা ঘটেছে। একই ওয়ার্ডের বিজয়ী মেম্বার সমর্থকেরা পরাজিত সদস্যের সমর্থকদের উপর হামলা চালায়। এঘটনায় মহিলাসহ ২০ আহত হয়। এ সময় প্রায় ২২টি বাড়ি ও দোকান ভাংচুরের ঘটনা ঘটে। জানা গেছে মনাকষা ইউনিয়নের ওয়ার্ড সদস্য পদে বিজয়ী প্রার্থী শুকুরুদ্দিনের লোকজন ওয়ার্ড সদস্য পরাজিত প্রার্থী নুরুল ইসলাম ও তার সমর্থকদের উপর হামলা, বাড়িঘর ভাঙচুর ও ককটেল বিস্ফোরন ঘটিয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। অপরদিকে, বিজয়ী প্রার্থী ও তার সমর্থকদের দাবী বিজয় মিছিল করার সময় পরাজিত প্রার্থীর সমর্থকরা মিছিলের উপর হামলা করেছে। এ ঘটনায় উভয় পক্ষের প্রায় ২০ জন আহত হয়েছে। আহতদের মধ্যে গুরুতর আহত ৫ জনকে রাজশাহী মেডিকাল কলেজ হাসপাতালে ও ১৫ জনকে শিবগঞ্জ ¯স্বস্থ্য কমপে­ক্ষে ভতি করা হয়েছে। এলকাবাসী ও নুরুল ইসলামের সমর্থকদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, রোববার সকাল ১০টার দিকে বিজয়ী প্রার্থী শুকুরুদ্দিন ও তার সমর্থকরা বিজয় মিজিল করার সময় নুরুলের সমর্থকদের প্রায় ২০টি বাড়িতে ইটপাটকেল মারে ও বাড়ি ঘর ও দোকার ভাংচুর করে। এ সময় প্রায় ২০/২৫টি ককটেল বিস্ফোরিত হয়। ককটেলের আঘাতে নুরুল ইসলামের পক্ষের মিলন (৩০) আব্দুল কাইয়ুম (৩৫) মামুন, শহিদল (৩৫) ও গেদু গুরুতর আহত হয়। আহতদের মধ্যে দুইজনের আঙ্গুল হাত থেকে বিছিন্ন হয়ে গেছে। এসময় আরো প্রায় ১৫জন আহত হয়েছে। আহতদের দুপুরের দিকে শিবগঞ্জ ¯স্বাস্থ্য কমপে­ক্ষে ভর্তি করা হয়েছে। হামলার সময় কয়েকটি বাড়িঘর, দুটি দোকান ও আসবাবপত্র ভাংচুর করে হামলাকারীরা প্রায় দেড় লক্ষ টাকার ক্ষতি করে। মাহবুবের স্ত্রী মাজেদা বেগম, এজাজুলের স্ত্রী ডলি, সৈবুরের স্ত্রী ডলি, সাদকুলের স্ত্রী মানুয়ারা ও আজিজুরের স্ত্রী নাজিরা বেগম জানান হামলার সময় তারা বাধা দিতে গেলে তাদেরকে শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত করে ও অশ­ীল ভাষায় গালিগালাজ ও মারপিট করে। হামলার শিকার মনসুর, রশিদ মাস্টার, সামতুল, তোজেম্মেলসহ প্রায় ২০/২৫জন জানান মিছিল থেকে হামলাকারীদের হাতে বড় বড় কাতা, লাঠি, ইট ও ককটেল দেখতে পেয়েছি। এসময় ওদের মধ্যে কয়েকজন বহিরাগতও ছিল। ঘটনারপর ঘটনাস্থগুলোতে ইটপাটকেল, ককটেলের খোসা দেখতে পাওয়া গেছে। এ ব্যাপারে ক্ষতিগ্রস্থ নুরুল ইসলাম জানান মামলার প্রস্তুতি নেয়া হচ্ছে। তবে নির্বাচনে বিজয়ী চেয়ারম্যান ও স্থানীয় নেতারা মামলা করতে নিষেধ করছেন বলে অভিযোগ করেন। অন্যদিকে বিজয়ী প্রার্থী শুকুরুদ্দিন জানান, সকাল ১০টার দিকে আমার সমর্থকরা আমাকে নিয়ে বিজয় মিছিল বের করলে পরাজিত প্রার্থী নুরুল ইসলামের সমর্থকরা মিছিলের উপর হামলা করে। এসময় মিজানুর, (১৯) রোশদুল(৩৫), সাকিল (১৪) মুক্তিযোদ্ধা সহ ৬/৬জন আহত হয়েছে। তবে এ সংবাদ লেখা পর্যন্ত এলাকায় থমথমে অবস্থা বিরাজ করছিল এবং আবারো হামলার আশংকায় এলাকায় আতঙ্ক বিরাজ করছিল। এ ব্যাপার শিবগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এম.এম ময়নুল ইসলাম ঘটনার সত্যতা ¯^ীকার করে জানান, পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। পরিস্থিতি বর্তমানে শান্ত রয়েছে। অভিযোগ করলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

আপনার মতামত লিখুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *