Sharing is caring!

শিবগঞ্জে আওয়ামীলীগের দলীয় কোন্দল

চরমে : নির্বাচনী প্রচারণায় বিরূপ প্রভাব

♦ স্টাফ রিপোর্টার

চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার ৩টি সংসদীয় আসনে নির্বাচনী প্রচারণায় সকল প্রার্থীরা ব্যস্ত থাকলেও চাঁপাইনবাবগঞ্জ-১ (শিবগঞ্জ) আসনে স্থানীয় আওয়ামীলীগের নেতা-কর্মীদের মধ্যে দলীয় কোন্দল চরম আকার ধারণ করায় নির্বাচনী প্রচারণায় বিরূপ প্রভাব পড়ছে বলে একাধিক নেতা-কর্মীর কাছ থেকে খবর পাওয়া গেছে। ফলে আগামী নির্বাচনে আওয়ামীলীগের নৌকা প্রতিকের প্রার্থী ডা. সামিল উদ্দিন আহমেদ শিমুল এর নির্বাচনী প্রচারণায় অংশ নিচ্ছেন না অনেক ত্যাগী নেতা-কর্মীরা। আর এসুযোগ কাজে লাগিয়ে প্রচারণায় এগিয়ে যাচ্ছে ধানের শীষের প্রচারণা ও সমর্থন। এজন্য নেতা-কর্মীরা দায়ি করছেন দলের সাবেক আওয়ামীলীগ নেতা, সাবেক ও বর্তমান সংসদ সদস্যদের মদদপুষ্টদের আধিপত্য বিস্তার ও একগুয়েমীকে। আগামী ৩০ ডিসেম্বর একাদশ জাতীয় সংসদের নির্বাচনের দিন ঘনিয়ে আসলেও মাঠে নেই উপজেলা আওয়ামীলীগের শীর্ষ পর্যায়ের নেতারা। একাদশ জাতীয় সংসদের নির্বাচনে আওয়ামীলীগের প্রার্থীর নিজস্ব ও দলের বেশকিছু নেতা-কর্মীদের নিয়ে প্রচারনা চালিয়ে গেলেও তেমন একটা সুবিধা করে উঠতে পারছেন না ভোটের মাঠে বলেও দলীয় এক সুত্রে জানা গেছে। তবে এই অভিযোগ বা কোন্দলের বিষয়টি আমলে নিতে চাননি একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশ নেয়া আওয়ামীলীগের নৌকা প্রতিকের প্রার্থী ডা. সামিল উদ্দিন আহমেদ শিমুল। জানা গেছে, আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন বাকী মাত্র ৮দিন। জেলায় আওয়ামীলীগের প্রচার অভিযান জোরালোভাবে চললেও চাঁপাইনববাবগঞ্জ-১ (শিবগঞ্জ) আসনে আওয়ামীলীগ ও এর আংগ সংগঠনের মধ্যে চরম দ্ব›দ্ব থাকায় নির্বাচনী মাঠ এখনো অনেকটা নিরব। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক শিবগঞ্জ উপজেলা আওয়ামীলীগের বেশ কিছু নেতা-কর্মী জানিয়েছেন, শিবগঞ্জে আওয়ামীলীগের মধ্যে লবিং-গ্রæপিং নতুন কোন ঘটনা নয়, তবে এবছর যে এটা প্রকট আকার ধারণ করেছে, তা নির্বাচনী মাঠেই অনেকটা স্পষ্ট বলে অভিযোগ উঠেছে। এবারের নির্বাচনে এই আসন থেকে আওয়ামীগের দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশী ছিলেন মুলতঃ ৪জন। এর মধ্যে জেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ডাক্তার সামিল উদ্দিন আহমেদ শিমুল নৌকা প্রতীক পাওয়ার পর থেকে অন্যান্য নেতারা নির্বাচনী মাঠে নামেননি এবং কোনভাবে সহযোগিতাও করছেন না বলে জানা গেছে। আর এ সুযোগ কাজে লাগাচ্ছে বিরোধী প্রার্থী বিএনপির প্রার্থী। সরজমিনে উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নের প্রত্যন্তঞ্চলে ঘুরে আওয়ামীলীগ সমর্থিত ভোটারদের সাথে কথা বলে যে চিত্র পাওয়া গেছে। এটি দলের জন্য খুব হতাশাজনক। এদিকে, নির্বাচন উপলক্ষে উপজেলা, ইউনিয়ন ও ওয়ার্ড পর্যায়ে যে নির্বাচন পরিচালনা কমিটিগুলো গঠন হয়েছে, তাতে স্পষ্ট লবিং-গ্রæপিং এর নমুনা ফুটে উঠেছে। নির্বাচন পরিচালনা কমিটি গঠনে উপজেলার একজন প্রভাবশালী নেতার ইঙ্গিতেই কমিটি গঠন হওয়ায় নিরপেক্ষ অনেক কর্মী কোনঠাসা হয়ে পড়েছে বলেও গুঞ্জন উঠেছে। ফলে নির্বাচনী বিষয়ে নানা সমস্যার কথা তুলে ধরতে পারছে না। সমস্যার কথা তুলে ধরলেও তা আমলেই নেয়া হচ্ছেনা বলেও নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক অনেকেরই অভিযোগ। এছাড়া ইউনিয়ন ও ওয়ার্ড পর্যায়ের নির্বাচনী কমিটিগুলো উপজেলায় দুইজন প্রভাবশালী ব্যাক্তির লোকজন স্থান পাওয়ায় উভয় গ্রæপ একে অপরকে কোনঠাসা করার ষড়যন্ত্রে লিপ্ত রয়েছে। ফলে নির্বাচনী প্রচারনা কাজে যথেষ্ট বিঘœ ঘটছে। সরজমিনে দেখা গেছে, কিছু সুবিধাভোগী লোক সকাল ও রাতে প্রার্থীর বাড়িতে ভিড় করে বিভিন্ন ভিত্তিহীন অভিযোগ তুলে ধরে প্রার্থীর মন কাড়ার চেষ্টা করছেন। বিভিন্ন এলাকার আওয়ামীলীগ সমর্থিত নিবেদিত কর্মীদের সাথে কথা বলে উপজেলার যে চিত্র পাওয়া গেছে, তাতে আরো স্পষ্ট হয়ে উঠেছে যে ২০১৬ সালে ইউপি নির্বাচনে দলীয় ও বিদ্রোহী প্রার্থীদের নিয়ে যে ষড়যন্ত্র হয়েছিল, সেগুলো এখনো বিদ্যমান। উপজেলার ১৫টি ইউনিয়নেই যারা বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছিল, তখনকার দ্বন্দ্বের জের ধরে তাদেরকে এখনো ঐসময়ের দলীয় প্রার্থীরা পুরোপুরি নির্বাচনে অংশ গ্রহণ থেকে দূরে রাখার চেষ্টায় ব্যস্ত রয়েছেন। এদিকে, আওয়ামীলীগের মনোয়ন প্রত্যাশী ৩ নেতা বর্তমান সংসদ সদস্য ও তার সহযোগীরা, সাবেক বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী ব্রি. অব. এনামুল হক ও ইঞ্জিনিয়ার মাহাতাব উদ্দীনের সহযোগিরা ভরপুর নির্বাচনের সময়ও প্রচারণার মাঠে নেই বলে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে। দলীয় সভানেত্রী ও জননেত্রী শেখ হাসিনা ভবিষ্যত সতর্ক বাণীর মাধ্যমে উদারতার সাহিত ক্ষমা সুন্দর দৃষ্টিতে দেখে দলীয় নেতা-কর্মীদের সকল ভেদাভেদ ভুলে ঐক্যবদ্ধভাবে দলীয় কাজ করার নির্দেশ দিয়েছেন। নেত্রীর নির্দেশ মত দলীয় কাজ করার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি আমরা ত্যাগী নেতা কর্মীরা। কিন্তু কিছু স্বর্থন্বেসী নেতারা তাদের বিরোধীতাকারী কর্মীদের নির্বাচনী কাজে যোগ দিতে বাধা দিচ্ছে। ফলে দলীয় ও প্রার্থীর ক্ষতির চেষ্টা করা হচ্ছে। বিভিন্ন সূত্রে জানা গেছে, বর্তমানে আওয়ামীলীগ সমর্থিত কর্মীদের কার্যকলাপ ও রীতিনীতি অনুযায়ী শিবগঞ্জ থানা আওয়ামীলীগের মধ্যে ৬টি গ্রুপ। শুধু তাই নয় ইউনিয়ন ও ওয়ার্ড পর্যায়ে দুটি করে গ্রুপ রয়েছে। এছাড়াও আওয়ামীলীগের অংগ সংগঠনের মধ্যেও একই চিত্র লক্ষ্য করা গেছে। যুবলীগ, ছাত্রলীগ, কৃষকলীগ, স্বেচ্ছাসেবকলীগসহ বিভিন্ন অংগ সংগঠনগুলোতে নির্বাচিত নেতা ও অনির্বাচিত নেতাদের মধ্যে বড় ধরনের দ্ব›দ্ব লক্ষ্য করা গেছে। সুষ্ঠু পরিবেশের অভাবে নির্বাচনী প্রচারে অংশ গ্রহণ করতে পারছেন না এসব নেতা-কর্মীরা। উল্লেখ্য, শিবগঞ্জে আওয়ামীলীগের অর্ন্তদ্বন্দ্বের কারনে স্বাধীনতা উত্তরকালে ১৯৮৬, ১৯৯১, ১৯৯৬, ২০০১ সংসদ নির্বাচনে এবং সবশেষে ২০০৯ সালে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামীলীগের ভরাডুবির অন্যতম কারণ লবিং গ্রæপিং। যদিও ২০০৮ সালে সংসদ নির্বাচনে সাবেক বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী ব্রি. অব. এনামুল হক দলীয় নেতাকর্মীদের একত্র করে নির্বাচিত হয়েছিলেন এবং ২০১৪ সালে গোলাম রাব্বানী অপ্রতিদ্ব›িদ্বভাবে নির্বাচিত হয়েছিলেন। ২০১৪ সালে উপজেলা পরিষদের নির্বাচনে জামায়াত বিএনপির নিকট শোচনীয় পরাজয় হয়েছিল আওয়ামীলীগের প্রার্থীর। শিবগঞ্জ আওয়ামীলীগের এহেন কার্যকলাপে হতাশাগ্রস্থ নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন প্রবীন আওয়ামীলীগ নেতা প্রতিবেদককে জানান, সন্ত্রাস, জঙ্গি, মাদক, অস্ত্র, নাশকতা ও সা¤প্রদায়িক রোধে গত ১০ বছরের আওয়ামীলীগের শাসনামলে সরকারের সফলতা ও উন্নয়নের চিত্র ধরতে জননেত্রী শেখ হাসিনা ও কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ মিডিয়ামুখী। কিন্তু শিবগঞ্জের আওয়ামীলীগ মিডিয়া বিমুখ হয়ে শুধু ফেসবুক নিয়েই ব্যস্ত। এব্যাপারে আওয়ামীলীগ দলীয় নৌকার প্রার্থী ও জেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ডাক্তার সামিল উদ্দিন আহমেদ শিমুলের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, যে দলীয় মনোনয়ন পাওয়ার সকল নেতাকর্মীর সাথে যোগাযোগ রয়েছে এবং সকলে একসাথে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে কাজ করছে। লবিং-গ্রুপিং এর কোন প্রভাব নেই। গণসংযোগ অব্যাহত রয়েছে। ব্যাপকভাবে নেতা-কর্মীসহ সাধারণ জনগনের সাড়া পাওয়া গেছে। আগামী ৩০ ডিসেম্বর এর ভালো ফলাফল পাবো ইনশাল্লাহ। দলীয় সকল কোন্দল ও সমস্যাগুলো চিহ্নিত করে সেগুলো সমাধান এবং সকল ভেদাভেদ ভুলে একত্রে নির্বাচনী মাঠে প্রচারণায় অংশ নিয়ে নৌকার বিজয় নিশ্চিত করতে ঝাঁপিয়ে পড়বেন আওয়ামীলীগ দলীয় ও অঙ্গসংগঠনের নেতা-কর্মীরা এমনটায় আশা করছেন দলের ত্যাগী নেতৃবৃন্দ।

আপনার মতামত লিখুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *