Sharing is caring!

parchowkapic1শিবগঞ্জ প্রতিনিধি \ চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জে ইউপি নির্বাচন পরবর্তী আবারো সহিংসতায় এক সাংবাদিকের বাড়িসহ আরো ৪টি বাড়ি ভাংচুর করেছে প্রতিপক্ষরা। এর আগে রবিবার সকালে মনাকষা ইউনিয়নের ৪ নং ওয়ার্ডের রানিনগর এলাকায় ২ মেম্বার প্রার্থীদের মধ্যে সংঘর্ষের রেশ কাটতে না কাটতেই একই দিন রোববার সন্ধ্যায় একই ইউনিয়নের আরও একটি ওয়ার্ডের পারচৌকা গ্রামে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। ঘটনার পরপরই পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনলেও এলাকাটি শান্ত থাকার পর সোমবার বেলা ১২টার দিকে আবারো হামলা চালানো হয় ক্ষতিগ্রস্থ বাড়িগুলোতে। পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, মনাকষা ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ডের নবনির্বাচিত ইউপি সদস্য সাদেকুল ইসলামের নেতৃত্বে রোববার সন্ধ্যায় একটি বিজয় মিছিল বের করা হয়। এসময় মিছিল থেকে তার প্রতিদ্বন্দ্বি পরাজিত প্রার্থী মইনুর রহমানসহ ৫টি বাড়ি ভাংচুর করা হয় এবং পরিবারের সদস্যদের মারধর ও লাঞ্ছিত করা হয়। এসময় দৈনিক ইত্তেফাকের শিবগঞ্জ উপজেলা সংবাদদাতা ও পরাজিত প্রার্থীর চাচা সফিকুল ইসলামের বাড়িতেও হামলা ও ভাংচুর চালানো হয়। প্রতিপক্ষের হামলায় রিপন, বাবু ও ভুট্টুসহ অন্তত ৯ জন আহত হয়। এ ব্যাপারে শিবগঞ্জ থানার ওসি এম.এম ময়নুল ইসলাম জানান, খবর পেয়ে থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে। এসময় নবনির্বাচিত ও পরাজিত প্রার্থীকে আটক করে থানায় নিয়ে আসা হয়। এ ব্যাপারে সাংবাদিক শফিকুল ইসলাম বলেন, একটি সন্ত্রাসী বাহিনী দেশীয় অস্ত্র নিয়ে সাবেক আওয়ামীলীগের ওয়ার্ড সভাপতির বাড়িসহ তার সমর্থকদের বাড়িতে নব্য আওয়ামীলীগারগন ৪ নং ওয়ার্ডে সকালে ও ৫ নং ওয়ার্ডে বিকেলে এবং পরদিন দুপুরে আবারো হামলা চালালেও এর কোন প্রতিকার হচ্ছেনা। এর আগে উপজেলার মনাকষা ইউনিয়নের ৪ নং ওয়ার্ডের রানীনগরে রবিবার সকালে নির্বাচন পরবর্তী সহিংস হামলায় মহিলাসহ ২০ জন আহত এবং ২২টি বাড়ি ও দোকান ভাংচুরের ঘটনা ঘটে। মনাকষা ইউনিয়নের ওয়ার্ড সদস্য পদে বিজয়ী প্রার্থী শুকুরুদ্দিনের লোকজন ওয়ার্ড সদস্য পরাজিত প্রার্থী নুরুল ইসলাম ও তার সমর্থকদের উপর হামলা, বাড়িঘর ভাঙচুর ও ককটেল বিস্ফোরন ঘটায়। এ ঘটনায় উভয় পক্ষের প্রায় ২০ জন আহত হয়। আহতদের মধ্যে গুরুতর আহত ৫ জনকে রাজশাহী মেডিকাল কলেজ হাসপাতালে ও ১৫ জনকে  শিবগঞ্জ  স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভতি করা হয়।

আপনার মতামত লিখুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *