Sharing is caring!

শিবগঞ্জ প্রতিনিধি \ চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জে পুলিশ পরিচয়ে ৩ লাখ টাকা ছিনতাইয়ের অভিযোগ উঠেছে। মঙ্গলবার বিকেলে পৌর এলাকার ৩নং ওয়ার্ডের বড়চকদৌলতপুর গুড়পট্টিতে এ ঘটনা ঘটে। এঘটনায় ছিনতাইকারী অভিযোগে ২জনকে আটক করেছে শিবগঞ্জ থানা পুলিশ। আটককৃতরা হলো- শিবগঞ্জ উপজেলার শাহবাজপুর ইউনিয়নের দৌলতবাড়ি গ্রামের মনিরুল ইসলামের ছেলে ইউসুফ আলী ও নওগাঁ জেলার নিয়ামতপুর থানার ফাইজুদ্দিনের ছেলে আইনাল হক। তবে, ছিনতাইকালে শিবগঞ্জ থানার এস.আই শহীদুল ইসলাম শহীদ উপস্থিত থাকলেও ছিনতাইয়ের হওয়া ব্যক্তি সহযোগিতা করেনি অভিযোগ করেন ছিনতাইয়ের শিকার ১নং ওয়ার্ডের আওয়ামীলীগের সভাপতি মো: মাইনুল ইসলাম। ছিনতাই এর শিকার আম ও গুড় ব্যবসায়ী এবং  ১নং ওয়ার্ডের আওয়ামীলীগের সভাপতি মো: মাইনুল ইসলাম জানান, সে শিবগঞ্জ সোনালী ব্যাংক থেকে  ৩ লক্ষ টাকা নিয়ে বাড়ি যাওয়ার পথে গুড়পট্টিতে পৌছা মাত্র পুলিশের ২ সোর্স ব্যাগে ইয়াবা আছে দাবী করে ব্যাগ ধরে টানা-হেচরার এক পর্যায়ে রাস্তায় ফেলে মারপিট করতে থাকে। এসময় স্থানীয়রা জানতে পেরে ঘটনাস্থল ঘিরে ফেলে এবং ওই ২ জনকে আটক করে। ছিনতাইয়ের শিকার মাইনুল আরও জানান, সোর্সের সাথে শিবগঞ্জ থানার এস.আই শহীদ ঘটনাস্থলে উপস্থিত থেকে ব্যাগ কেড়ে নেয়ার চেষ্টা করে ছিনতাইকারীরা। এ ব্যাপারে ৩ নং ও ৭ নং ওয়ার্ড সদস্যরা ঘটনাস্থলে উপস্থিত ছিলেনএবং এ ছিনতাই চেষ্টার সাথে এস.আই শহীদ ও তাঁর ২ সোর্স জড়িত থাকার বিষয়টি নিশ্চিত করেন। পরে, খবর পেয়ে শিবগঞ্জ থানা পুলিশ ওই ২ সোর্সকে আটক এবং এস.আই শহীদকে উদ্ধার করে নিয়ে আসে। এদিকে, এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে আওয়ামীলীগও অঙ্গসংগঠনের নেতা-কর্মীরা থানার সামনে বিক্ষোভ করলে শিবগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ হাবিবুল ইসলাম নেতা-কর্মীদের বিক্ষোভ থেকে শান্ত করার চেষ্টা করেন। এব্যাপারে তার সাথে  যোগযোগ করা হলে ব্যস্ত আছি, পরে কথা হবে বলে ফোন কেটে দেন। এ ব্যাপারে চাঁপাইনবাবগঞ্জ পুলিশ সুপার টি এম মুজাহিদুল ইসলাম জানান, বিষয়টি তদন্ত হচ্ছে। এব্যাপারে অভিযোগ দায়েরে পর তদন্ত করে দায়ীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে  এবং সহকারী পুলিশ সুপার (সার্কেল)এ টি এম মাইনুল ইসলাম কে শিবগঞ্জ থানায় বিষয়টি তদন্ত করার জন্য পাঠানো হয়েছে। এ সংবাদ লেখা পর্যন্ত শিবগঞ্জ থানায় মামলা দায়ের এর প্রস্তুতি চলছিল।

আপনার মতামত লিখুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *