Sharing is caring!

শিবগঞ্জ প্রতিনিধি \ অবশেষে শিবগঞ্জে বাল্য বিয়ের হাত থেকে রক্ষা পেল ৬ষ্ঠ শ্রেনীর এক ছাত্রী। ভাগ্যবান ছাত্রীটি হলো, জমিনপুর হররোজ আলী দাখিল মাদ্রার ৬ষ্ঠ শ্রেনীর ছাত্রী মারিজা খাতুন ওহিদা। সে শিবগঞ্জ উপজেলার বিনোদপুর ইউনিয়নের কিরনগঞ্জ ঝড়ু–টোলা গ্রামের আঃ গফুর মন্ডলের মেয়ে। এদিকে, বাল্য বিয়ে দেয়ার অপরাধ শিকার করায় নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেষ্ট মেয়ের পিতাকে ১৮ বছরের আগে আর বিয়ে দিবেনা এ মর্মে মুচলেকা দিয়ে ছেড়ে দেন বলে জানায় শিবগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সৈয়দ ইরতিজা আহসান। জানা গেছে, বুধবার শিবগঞ্জ উপজেলার কিরনগঞ্জ এলাকায় ৬ষ্ঠ শ্রেনীর এক ছাত্রীর বিয়ে হচ্ছে এমন সংবাদের ভিত্তিতে নির্বার্হী ম্যাজিষ্ট্রেট ও সহকারী কমিশনার(ভূমি) আফাজ উদ্দিন শিবগঞ্জ থানা পুলিশের একটি দল নিয়ে মেয়ের বাড়িতে গিয়ে তাৎক্ষনিক বিয়ে বন্ধ করে মেয়ের পিতা আঃ গফুর মন্ডলকে বেলা ২টার দিকে আটক করে নিয়ে আসেন। পরবর্তীতে তিনি মেয়ের পিতাকে বিয়ে দেয়ার কারন নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করলে মেয়ের পিতা অভাবের কারন দেখিয়ে তার এক নিকট আত্নয়ের ছেলের সাথে বিয়ে দেয়া হচ্ছে বলে জানায়। পরবর্তীতে নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট আফাজউদ্দিন মেয়েটির পিতা পরিবারের একমাত্র উর্পাজনক্ষম ব্যাক্তি হওয়ায় তার সাজা মওক’ফ করে এবং শর্তসাপেক্ষে বয়স ১৮ বছর পূর্ন না হবার আগে বিয়ে না দেয়ার মুচলেকা নিয়ে বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে ছেড়ে দেন । এ ব্যাপারে জানতে চাইলে শিবগঞ্জ উপজেলা নির্বার্হী কর্মকর্তা সৈয়দ ইরতিজা আহসান বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

আপনার মতামত লিখুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *