Sharing is caring!

সরকারের ভাবর্মর্তি ক্ষুন্ন করে শিবগঞ্জে সরকারীভাবে গম সংগ্রহে অনিয়মের বিষয়টি খতিয়ে দেখে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানিয়েছেন সাধারণ কৃষক ও সচেতন মহল। বর্তমান সরকার কৃষক বান্ধব সরকার। কৃষকদের উৎপাদিত পণ্যের নায্য মূল্য সরাসরি কৃষকদের কাছে পৌছে দিতে সরকার বিভিন্নভাবে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। সরাসরি তৃণমূল পর্যায়ে কৃষকদের কাছ থেকে ধান/চাল ও গম সংগ্রহ প্রকল্প হাতে নেয় বর্তমান আওয়ামীলীগ সরকার। কিন্তু কিছু অসাধু ব্যক্তি বা নেতৃবৃন্দের ¯ে^চ্ছাচারীতায় সরকারের এই মহৎ উদ্যোগ বিঘিœত হচ্ছে। ব্যহত হচ্ছে সরকারের কাক্সিখত লক্ষ্য। বঞ্চিত হচ্ছে তৃণমূল পর্যায়ের কৃষকরা। সাধারণ কৃষকদের উৎপাদিত পণ্যের সঠিক মূল্য দেয়ার জন্যই প্রতিটি উপজেলায় স্থানীয় গম চাষিদের কাছ থেকে খোলা বাজারের তুলনায় বেশি দাম দিয়ে সরকার সরাসরি তৃণমূল কৃষকদের কাছ থেকে গম ক্রয়ের প্রকল্প হাতে নেই। খোলা বাজারে গমের দাম ২৪/২৫ টাকা। সরকারীভাবে গম ক্রয়ের মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে ২৮ টাকা। পার্শ্ববর্তী জেলায় গমের দাম অনেক কম থাকায় জেলার কৃষকদের কাছ থেকে না নিয়ে বাইরের জেলা থেকে দালাল বা ফড়িয়াদের মাধ্যমে গম সংগ্রহ করে গুদামজাত করা হচ্ছে। এতে মোটা অংকের অর্থ হাতিয়ে নিচ্ছেন দালাল এবং ক্ষমতাসীনরা। কৃষকদের ঘরে টাকা না গিয়ে লাভবান হচ্ছে কিছু ¯^ার্থাšে^ষী মহল। তাই সরকারের নেয়া উদ্যোগে যেন সঠিকভাবে বাস্তবায়ন হয়, সে বিষয়ে নজর দিয়ে কৃষকের ¯^ার্থ পুরণে এগিয়ে আসবেন সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ এমনটায় আশা করছেন চাঁপাইনবাবগঞ্জের সাধারণ কৃষক। উল্লেখ্য, সরকারী নীতিমালা উপেক্ষা করে চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জ উপজেলার সাধারণ গম চাষিদের কাছ থেকে গম সংগ্রহ না করে ব্যাপারী ও দালালের মাধ্যমে গম সংগ্রহ করছে শিবগঞ্জ উপজেলা খাদ্য অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা। বাইরে থেকে গম নিয়ে এসে খাদ্য গুদাম ভর্তি করা হচ্ছে। জানা যায়, সারাদেশের ন্যায় শিবগঞ্জ উপজেলাতেও গত ২৭ এপ্রিল থেকে গম সংগ্রহ কার্যক্রম শুরু হয়। আর এই গম সংগ্রহ কার্যক্রম চলবে ৩০ জুন পর্যন্ত। উপজেলার কার্ডধারী কৃষক ও সাধারণ গম চাষীদের কাছ থেকে তালিকার মাধ্যমে গম সংগ্রহ করার নির্দেশনা রয়েছে। কিন্তু সাধারণ গম চাষিদের তালিকা না করে ক্ষমতাসীন দলীয় নেতাদের হস্তক্ষেপে ও নিজের ইচ্ছে মত তালিকা তৈরি করে ব্যাপারী ও দালালের মাধ্যমের গম সংগ্রহ করা হচ্ছে। এতে সরকারের ধার্যকৃত দামের টাকা সাধারণ চাষিদের না দিয়ে যাচ্ছে ব্যাপারী, দালাল ও ক্ষমতাসীন দলীয় নেতাদের পকেটে। পার্শ্ববর্তী জেলা নওগাঁ, নাটোর, দিনাজপুর, ঠাকুরগাঁওসহ বিভিন্ন জেলা থেকে প্রায়শই ট্রাক বা ট্রাক্টরযোগে নি¤œমানের এবং কম দামে গম নিয়ে এসে গুদামজাত করা হচ্ছে দালালদের মাধ্যমে। বঞ্চিত হচ্ছে স্থানীয় কৃষকরা। এভাবে গম সংগ্রহ হওয়ায় যেমন স্থানীয় কৃষকরা ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে, তেমনই সরকারের আসল উদ্দেশ্য ব্যাহত হচ্ছে।

আপনার মতামত লিখুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *