Sharing is caring!

gonokobor pic-1শিবগঞ্জ প্রতিনিধি \ শিবগঞ্জের বিনোদপুর উচ্চ বিদ্যালয় মাঠ প্রাঙ্গনে শহীদ আরিফুল ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে  ৬  ও ৭ অক্টোবর  গণহত্যা দিবস পালিত হয়েছে। দিবসটি উপলক্ষে মঙ্গলবার সকালে শহীদদের গনকবরে নির্মিত শহীদ মিনারে শ্রদ্ধা নিবেদন ও পুষ্পার্ঘ অর্পন এবং বিকেলে আলোচনা সভা এবং সন্ধ্যায় মুক্তিযুদ্ধের উপর রচিত কবিতা আবৃতির আসর বসে। অনুষ্ঠানে জেলার বিভিন্ন স্থান থেকে মুক্তিযোদ্ধা, শহিদ পরিবার, মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের ব্যাক্তিরা এবং বিনোদপুর-মনাকষায়  গনহত্যার দায়ে আান্তর্জাতিক ট্রাইব্যুরাল আদালতের মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে  দায়ের করা মামলার স্বাক্ষীগন অনুষ্ঠান স্থলে উপস্থিত হন। এ উপলক্ষে নেয়া হয় প্রশাসনের পক্ষ থেকে কড়া নিরাপত্তা। দিবস উদযাপন কমিটির আহবায়ক এম,এ,রাকিবের সভাপতিত্বে এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের  সহ সাধারন সম্পাদক ডাঃ শামিল উদ্দিন আহম্মেদ শিমুল। বিশেষ অতিথি হিসেবে জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার সেরাজুল ইসলাম, চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের সহ সভাপতি ও বিনোদপুর ডিগ্রী কলেজের অধ্যক্ষ রুহুল আমিন। শেষে গভীর রাত অবধি মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে রচিত বিভিন্ন কবিতা আবৃতি করে শোনান, সাবেক ছাত্রলীগ নেতা ডাঃ আহসান হাবিব। প্রতিবছরের মত এবছরও ৬ ও ৭ অক্টোবর জেলার শিবগঞ্জ উপজেলার মনাকষা ও বিনোদপুর ইউনিয়নের ৪৪ তম গণহত্যা দিবস হিসেবে পালিত হয়েছে। উল্লেখ্য, ১৯৭১ সালে ৬ অক্টোবর চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার শিবগঞ্জ উপজেলার বিনোদপুর উচ্চবিদ্যালয়ে অবস্থিত পাকিস্থানী বাহিনীর ক্যাম্পের সদস্যদের সহায়তায় আলবদরর, রাজাকারগন বিনোদপুর ইউনিয়নের চাঁনশিকারী, লছমনপুর ও এরাদতবিশ্বাসের টোলা গ্র্রামের স্বাধীনতার পক্ষর ৩৯ জন নিরীহ মানুষকে বাড়ি, কৃষিক্ষেত ও অন্যান্য স্থান থেকে ধরে নিয়ে এসে বিনোদপুর উচ্চ বিদ্যালয় ফুটবল মাঠে সারিবদ্ধ ভাবে দাঁড় করিয়ে সবাইকে গুলি করে হত্যা করে মাঠের দক্ষিণ পার্শে মাটিতে একসাথে গনকবর দেয় এবং পরদিন মনাকষা ইউনিয়নের ১৩ জনকে হুমায়ন রেজা স্কুলের পেছনে একই কায়দায় হত্যা করে। ৩৯ শহীদদের মধ্যে একজন হলেন আরিফুর। তার ছোট ভাই আঃ রকিবের উদ্যোগে শহীদ আরিফুল স্মৃতি ফাউন্ডেশন তৈরী করে প্রতিবছর ৬ অক্টোবর বিনোদপুরে গণহত্যা দিবস পালন করা হয়। এ ঘটনার স্মরনে প্রতিবছরের ন্যায় এ বছরও এ উপলক্ষে দিনটি পালনের জন্য মঙ্গল ও বুধবার নেয়া হয় নানা কর্মসূচি। ৭১ এর এ দিনে যাদের হত্যা করা হয়েছিল যারা মুক্তিযুদ্ধে বিশ্বাসী এবং যারা বাংলাদেশকে মনে প্রানে ভালবাসে তাদের একজন শহীদ সাইফুদ্দীনের ছোটভাই নওশিয়া বাদশাহ। তিনি অনুষ্ঠান স্থলে এসে যেসব যুদ্ধাপরাধীর এখনও বিচার হয়নি এবং এ এলাকার যেসব রাজাকারগন এখনো বিচারের সম্মুখিন হয়নি তাদের বিচার দাবী করেন স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধা ও শহীদদের পরিবারের লোকজন।

আপনার মতামত লিখুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *